৬ কোটি গ্রাহকের তথ্য চুরি, উবারের বিরুদ্ধে মামলা

বিশ্বের অন্যতম স্মার্টফোন অ্যাপ্লিকেশন (অ্যাপ) নির্ভর ট্যাক্সি পরিবহনসেবা সংস্থা উবারের প্রায় ছয় কোটি গ্রাহকের তথ্য চুরি হয়েছে। তথ্য চুরির ওই বিষয়টি এক বছর ধরে গ্রাহকদের কাছ থেকে গোপন করে উবার। শুধু তাই নয়, সংস্থার ডেটাবেস হ্যাকের এই ঘটনা চাপা দিতে হ্যাকারদের এক লাখ ডলার দেয় সংস্থাটি।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের ব্লুমবার্গে এ ঘটনা প্রকাশিত হয়। পরে খবরের সত্যতা স্বীকার করে বিবৃতি দেয় উবার কর্তৃপক্ষ।

গতকাল মঙ্গলবার উবারের নতুন সিইও দারা খোসরুশাহির এক বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর বিষয়টি পরিষ্কার হয়।পরে উবার কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা করেছেন নিউ ইয়র্কের অ্যাটর্নি জেনারেল এরিক স্নেইডারম্যান।

উবারের পক্ষ থেকে পাঠানো ওই বিবৃতিতে জানানো হয়, গত এক বছর ধরে এই ঘটনার কথা তারা সম্পূর্ণ গোপন রাখে। শুধু তাই নয়, এই খবর কোনোভাবে যাতে বাইরে ফাঁস না হয়, সে ব্যবস্থা সুনিশ্চিত করতে হ্যাকারদের এক লাখ ডলারও দেওয়া হয়েছিল।

ব্লুমবার্গের রিপোর্ট অনুযায়ী, ২০১৬ সালের অক্টোবরে ওই হ্যাকিংয়ের ঘটনায় প্রায় ছয় কোটি গ্রাহক ও চালকদের ব্যক্তিগত তথ্য খোয়া গিয়েছিল। যার মধ্যে ছিল তাদের নাম, পরিচয়, মোবাইল নম্বর, ইমেল আইডি, চালকদের লাইসেন্স নম্বরের মতো গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিগত তথ্যও।

উবার জানিয়েছে, হ্যাকারদের মাধ্যমে চুরি যাওয়া এই সব তথ্য মুছে ফেলা হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা। পুরো ঘটনা চেপে যাওয়ার জন্য সরানো হয়েছে বেশ কয়েক জন শীর্ষ আধিকারিককে। যার মধ্যে রয়েছেন নিরাপত্তা অফিসার জো সুলিভান। যিনি ফেসবুকের প্রাক্তন নিরাপত্তা অফিসার ছিলেন।

গতকাল উবারের নতুন সিইও দারা খোসরুশাহি এই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে অতীতের ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন। দারা বলেন, ‘‘এমন ঘটনা কখনই প্রত্যাশিত নয়। আমি এর জন্য কোনো অজুহাত দিতে চাই না। এটুকু বলতে পারি, অতীতের ভুল থেকেই আমরা শিক্ষা গ্রহণ করেছি। ঘটনার তদন্ত হয়েছে। উবারের তরফে আমি প্রত্যেকের কাছে ক্ষমা চাইছি।”

‘ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট ল’ অনুযায়ী যদি কোনো হ্যাকিংয়ের ঘটনায় এক লাখ ৫০০-র বেশি তথ্য খোয়া যায়, তা হলে সঙ্গে সঙ্গে গ্রাহকদের ও অ্যাটর্নি জেনারেলকে জানাতে হবে। কিন্তু এক বছর আগের এই ঘটনায় তেমন কোনো পদক্ষেপ নেয়নি উবার।

সূত্র : আনন্দবাজার

সিনিউজভয়েস//ডেস্ক/

Please Share This Post.