৫জি ১.২ ট্রিলিয়ন ডলার আয়ের সুযোগ সৃষ্টি করবে

আগামী পাঁচ বছরে ৫জি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় শিল্পে ১.২ ট্রিলিয়ন ডলার আয়ের সুযোগ সৃষ্টি করবে বলে জানিয়েছেন হুয়াওয়ের রিজিওনাল প্রেসিডেন্ট জেমস উ। গতকাল বার্সেলোনায় মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস (এমডব্লিউসি)-২০১৯ অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি এ তথ্য জানান।

‍বার্সেলোনায় সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে হুয়াওয়ের সাউথ-ইস্ট এশিয়ার প্রেসিডেন্ট জেমস উ বলেন, ‘সাউথ-ইস্ট এশিয়ার দেশগুলোতে আগামী ৫ বছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে গড়ে ৫-৬ শতাংশ হারে এবং এই প্রবৃদ্ধি অর্জনে মূল ভূমিকা পালন করবে ডিজিটাল অর্থনীতি, যা হবে মোট প্রবৃদ্ধির ২০ শতাংশ। এই অঞ্চলের দেশগুলোতে ডিজিটাল অর্থনীতির উন্নয়নের আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং আমরা একটি ডিজিটাল ইকোসিস্টেম গড়ে তুলতে অংশীদারদের সাথে কাজ করবো।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা ধারণা করছি, ২০২০ সালের আগে ভারত, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম এবং হংকংসহ ১১টি দেশ ও আঞ্চলিক বাজারে ফাইভজি’র ব্যাপক বাণিজ্যিকীকরণ হবে। আর আগামী ৫ বছরে এই অঞ্চলে ফাইভজি ব্যবহারকারীর সংখ্যা দাঁড়াবে ৮০ মিলিয়ন। ফলে তারবিহীন প্রযুক্তি এবং ডিজিটাল ও বুদ্ধিবৃত্তিক যন্ত্রাংশ সামাজিক উৎপাদনশীলতাকে গড়ে ৪-৮ শতাংশ বাড়াবে।’

হুয়াওয়ের রিজিওনাল প্রেসিডেন্টের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, হুয়াওয়ে ইতোমধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এবং সাউথ-ইস্ট এশিয়ার গ্রাহকদের কাছ থেকে ফাইভজি ট্রায়েলের আমন্ত্রণ পেয়েছে।

জেমস উ  বলেন, ‘সাউথ-ইস্ট এশিয়ায় ফাইভজি সম্প্রসারণে ২০১৯ সাল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ফাইভজি ভেন্ডর হিসেবে হুয়াওয়ে এই অঞ্চলের সব অপারেটরদের ফাইভজি’র স্বপ্ন পূরণে সহায়তা করবে। গ্রাহকদের সহায়তা করতে এবং চলমান প্রযুক্তি ব্যবহার করে নূন্যতম উপকার পেতে আমরা ফাইভজি, ব্রডব্যান্ড, ক্লাউড, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং স্মার্ট ডিভাইস প্রযুক্তিতে বিনিয়োগ অব্যাহত রেখেছি।

হুয়াওয়ে গত ১০ বছর ধরে ফাইভজি প্রযুক্তিতে বিনিয়োগ করে যাচ্ছে এবং হুয়াওয়ে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের চেয়ে ফাইভজি প্রযুক্তিতে ১২ থেকৈ ১৮ মাস এগিয়ে।

-সিনিউজভয়েস/জিডিটি/২৬এফ/১৯

 

Please Share This Post.