৪১টি আইটি কোর্সের প্রশিক্ষণ দেবে হাই-টেক পার্ক

বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের আওতাধীন কালিয়াকৈর হাই-টেক পার্ক (এবং অন্যান্য হাই-টেক পার্ক)-এর উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে সরকারিভাবে দক্ষ জনশক্তি তৈরির উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। বিভিন্ন আইসিটি কোর্সের অধীনে প্রায় তিন হাজার জন তরুণ-তরুণীকে দেবে বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের এই প্রকল্পটি।

দেশের তরুণ প্রজন্মকে দক্ষ জনশক্তিতে রূপান্তরের লক্ষে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে আর্থিক সহায়তা দেয়া ছাড়াও প্রশিক্ষণ সুবিধা সৃষ্টির জন্য প্রয়োজনীয় অবকাঠামোর ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে মূলত সফটওয়্যার শিল্পের সঙ্গে সম্পর্কিত লোকবলকে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

কালিয়াকৈর হাই-টেক পার্ক (এবং অন্যান্য হাই-টেক পার্ক)-এর উন্নয়ন প্রকল্পের পরিচালক এ এন এম সফিকুল ইসলাম (যুগ্মসচিব) এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমাদের প্রশিক্ষণের অন্যতম লক্ষ্যই হলো, হাই-টেক পার্ক/সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক স্থাপিত বা অবস্থিত শিল্প প্রতিষ্ঠানের জনবলের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা। তাই আমরা আইটি/আইটিইএস সেক্টরের চাহিদার ভিত্তিতে ৪১টি বিষয়ের প্রশিক্ষণ কোর্স কারিকুলাম নির্ধারণ করেছি।’

এই উন্নয়ন প্রকল্পের সহকারী পরিচালক আসমাউল হুসনা লিজা বলেন, আইটি/ আইটিইএস সেক্টরের চাহিদার ভিত্তিতে প্রকল্পের ওয়ার্কফোর্স ট্রেনিং এর আওতায় কোর্স কারিকুলাম নির্ধারণের জন্য বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের সভাপতিত্বে ২০১৬ সালের অক্টোবরে এবং নভেম্বরে দুটি ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত ওয়ার্কশপে তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ, বেসিস, বাক্য, বিসিএস সহ বিভিন্ন কারিগরি বিশ্ববিদ্যালয়, আইটি/আইটিইএস প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন ট্রেনিং ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

ওয়ার্কশপে প্রশিক্ষণের কোর্সসমূহকে সফট স্কিল, কোর স্কিল এবং অ্যাডভান্সড স্কিল- এই তিনটি গ্রুপে ভাগ করা হয়। প্রকল্পের মাধ্যমে অনুষ্ঠিতব্য প্রশিক্ষণসমূহকে অ্যাডভান্সড স্কিল গ্রুপের আওতায় কোর্স কারিকুলাম নির্ধারণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় এবং এ লক্ষে কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির প্রস্তাবনা থেকে প্রাপ্ত কোর্স আউটলাইন সমন্বিত করে মোট ৪১টি কোর্স কারিকুলাম নির্ধারণ করা হয়। এই প্রোগ্রামের লক্ষ্য হচ্ছে, ২৯০০ জনবলকে প্রশিক্ষণ প্রদান।

৪১টি কোর্সের মধ্যে ১৬টি কোর্সের ভেন্ডর সার্টিফিকেশন রয়েছে। যেসব কোর্সের ভেন্ডর সার্টিফিকেশন নেই সেগুলোর জন্য পরীক্ষার ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রশিক্ষণের মান সমুন্নত রাখার জন্য প্রশিক্ষণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানকে ১ মাস পর ৩০%, কোর্স শেষে ৪০% এবং পরীক্ষার পর ৩০% ভাবে অর্থ পরিশোধ করা হবে। প্রশিক্ষণার্থীরা মোট কোর্স ফির ১০% বহন করবে।

এই উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের লক্ষে জনতা টাওয়ার সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে আজ একটি কর্মশালার আয়োজন করা হয়। প্রকল্পটির উপ-পরিচালক মো. আজিজুল ইসলামের সঞ্চালনায় এই কর্মশালায় বিভিন্ন আইটি প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার, স্টার্ট-আপ, সাংবাদিকবৃন্দ ছাড়াও আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের পরিচালক ড.খন্দকার আজিজুল ইসলাম, শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার প্রকল্পের পরিচালক গোরীশংকর ভট্টাচার্য, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তরের যুগ্মসচিব মো. রেজাউল মাকছুদ জাহেদী, হাই-টেক পার্ক সিলেট (সিলেট ইলেক্ট্রনিক সিটি) এর প্রকল্পের পরিচালক ব্যারিস্টার মো. গোলাম সরওয়ার ভুঁইয়া প্রমুখ।

আইটি কোর্সে প্রশিক্ষণের জন্য আবেদন করা যাবে এই লিংকে goo.gl/WaA69r

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক
Please Share This Post.