৩ দিনব্যাপী স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলার উদ্বোধন

 

দেশের ব্যবহারকারীদের আধুনিক স্মার্টফোন ও ট্যাবলেট কম্পিউটার দেখার ও কেনার সুযোগ করে দিতে ২৬ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার, সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়েছে ‘এডাটা স্মার্টফোন ও ট্যাব এক্সপো ২০১৭’। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ৩ দিনব্যাপী এই মেলা চলবে শনিবার পর্যন্ত। প্রতিদিন মেলা চলবে রাত ৮টা পর্যন্ত। ১১টি প্যাভিলিয়ন, ৮টি স্টল রয়েছে মেলায়। এছাড়া রয়েছে মিডিয়া বুথ ও টিকেট বুথ।

বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের কার্নিভাল হলে আনুষ্ঠানিকভাবে মেলার উদ্বোধন করেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান। এ সময় বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। এছাড়া গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বার ও বিডিওএসএনের সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান।

এছাড়াও উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গ্লোবাল ব্র্যান্ড (প্রা:) লিমিটেডের চেয়ারম্যান আব্দুল ফাত্তাহ, স্যামসাং ইলেকট্রনিক্স বাংলাদেশের জেনারেল ম্যানেজার ইয়াং উ লি, হুয়াওয়ের হেড অব মার্কেটিং মাশরুর হাসান মিম, সিম্ফোনি মোবাইলের মার্কেটিং বিভাগের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মো. আসাদুজ্জামান, উই স্মার্ট সল্যুউশনের ব্র্যান্ডিং ও কমিউনিকেশন বিভাগের সহকারি মহাব্যবস্থাপক মুনতাসির আহমেদ, অপ্পো বাংলাদেশ কমিউনিকেশন ইকুইপমেন্ট কো. লিমিটেডের হেড অব মার্কেটিং ব্রুস লি, লিনেক্স মোবাইলের এজিএম (সেলস) নেছার উদ্দিন ও এক্সপো মেকারের হেড অব অপারেশনস নাহিদ হাসনাইন সিদ্দিকী।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান বলেন, ‘২০০৯ সালে আমরা যখন ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানের কাজ শুরু করি তখন থেকেই যুব সমাজের উদ্ভাবন ও তাদেরকে সংযোগের আওতায় নিয়ে আসাটাই আমাদের প্রধান লক্ষ্য ছিলো। যাতে করে যুব সমাজকে উৎপাদনশীলতামুখী করতে পারি। স্মার্ট ডিভাইস বা অত্যাধুনিক মুঠোফোনই দূরযোগাযোগের মূল মাধ্যম হয়ে উঠছে আজ।’

স্মার্টফোনের ব্যবহার বৃদ্ধিতে স্মার্টফোন ও ট্যাব এক্সপোর গুরুত্ব উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘সাধারণ মানুষের কাছে অত্যাধুনিক পণ্যের ব্যবহার ও জনপ্রিয়করণের জন্য এক্সপো মেকারের মেলা আজ আমাদের বার্ষিক উপলক্ষ্য হয়ে উঠেছে।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘বর্তমানে দেশে মোট স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা কমপক্ষে ২ কোটি ৭৫ লাখ। অত্যাধুনিক মুঠোফোন ব্যবহারের জন্য কনটেন্ট তৈরির জন্য উদ্যোগ নিয়েছি আমরা। মাতৃভাষায় কনটেন্ট উন্নয়নের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের মাঝে স্মার্টফোন এবং স্মার্ট ডিভাইস ব্যবহার বাড়বে বলে আশা করছি। আমাদের হিসাব অনুযায়ী, ২০২০ সালে বাংলাদেশে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা দাঁড়াবে ৫ কোটি।’

বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বাংলাদেশের অর্জনকে উন্নত দেশসমূহ অনুসরণ করছে। তথ্যপ্রযুক্তি খাতে রফতানি ২০০৯ সালে ছিলো মাত্র ২৬ মিলিয়ন ডলার। বর্তমানে এই খাতে রফতানি আয় ৭০০ মিলিয়ন ডলারে পৌছেছে। আশাকরি ২০১৮ সালের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে আমরা আমাদের অভীষ্ট লক্ষ্য ১ বিলিয়ন ডলার লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের উদযাপন করতে পারবো।’

inner

এবারের মেলায় বিশ্বখ্যাত সব ব্র্যান্ডের স্মার্টফোন ও ট্যাবলেট পাওয়া যাচ্ছে। মেলায় স্যামসাং, হুয়াওয়ে, লিনেক্স মোবাইল, অপ্পো, সিম্ফোনি, উই, লাভা, শাওমি, মাইসেল, মাইক্রোম্যাক্স, লেনোভো, কুলপ্যাড, ম্যাঙ্গো, মিউজু, সেলস্ট্রিম, গ্যাজেট গ্যাং সেভেন, কিকশা ডটকম, আজকের ডিল ডটকমসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ড ও প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

এক্সপো মেকারের হেড অব অপারেশনস নাহিদ হাসনাইন সিদ্দিকী জানান, প্রদর্শনী উপলক্ষে অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলো বিশেষ ছাড় ও উপহার দিচ্ছে। দর্শকরা প্রযুক্তির আধুনিক সব স্মার্ট ডিভাইস যাচাই বাছাই করে দেখতে ও কিনতে পারছেন। রয়েছে অন্যান্য আয়োজনও।

এবারের মেলার প্ল্যাটিনাম স্পন্সর হিসেবে স্যামসাং, গোল্ড স্পন্সর হিসেবে হুয়াওয়ে ও সিলভার স্পন্সর হিসেবে লিনেক্স মোবাইল, অপ্পো, সিম্ফোনি ও উই এবং টিকেট বুথ স্পন্সর হিসেবে রয়েছে কিকশা ডটকম। পার্টনার হিসেবে রয়েছে এডুমেকার, পিপলস রেডিও এবং টেকশহরডটকম।

প্রতিবারের মতো এবারও মেলা উপলক্ষে স্মার্টফোন ও ট্যাব এক্সপোর অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে (www.facebook.com/STExpo) ‘স্মার্ট ব্যাটল ২০১৭’ নামক কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। এতে বিজয়ীরা হুয়াওয়ে, লাভা ও লিনেক্স মোবাইলের পক্ষ থেকে স্মার্টফোনসহ আকর্ষণীয় পুরস্কার জিতে নিতে পারবেন।

প্রদর্শনীর সব আপডেট ফেসবুক পেজ www.facebook.com/STExpo এবং দেশের আইসিটি ও টেলিকম বিষয়ক শীর্ষস্থানীয় নিউজ পোর্টাল টেকশহরডটকম (techshohor.com) -এ পাওয়া যাচ্ছে।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.