২০২১ সালের মধ্যে দেশে ২০ লাখ আইটি পেশাজীবি : পলক

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘২০২১ সালের মধ্যে দেশে আইটি পেশাজীবির সংখ্যা হবে ২০ লাখ। এ লক্ষ্য পূরণে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বিভিন্ন উদ্যোগের বাস্তবায়ন করছে সরকার। এসব উদ্যোগের বাস্তবায়ন হলে আগামীতে দেশের আইটি খাতে বিপুল সংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে।’

১ সেপ্টেম্বর  পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অধীন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের (বিসিসি) লিভারেজিং আইসিটি ফর গ্রোথ, এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড গভর্নেন্স (এলআইসিটি) প্রকল্প আয়োজিত আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্প’২০১৬ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শামস-উল-দ্দীন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ক্যারিয়ার ক্যাম্পে আরও বক্তব্য দেন পটুয়াখালীর জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এ কে এম শামিমুল হক ছিদ্দিকী, লিভারেজিং আইসিটি ফর গ্রোথ, এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড গভর্নেন্স (এলআইসিটি) প্রকল্প পরিচালক মো. রেজাউল করিম, এলআইসিটি প্রকল্পের কম্পোনেন্ট টিম লিডার সামি আহমেদ, বাংলাদেশ অর্গানাইজেশন অন লার্নিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট প্রতিষ্ঠানের প্রেসিডেন্ট কাজী এম. আহমেদ, পটূয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও চেয়ারম্যান ড. এস এম তোহিদুল ইসলাম এবং কমিউনিকেশন অ্যান্ড পিপল অ্যাট অ্যাপটিটিভের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান সাবিলা ইনুন।

পলক বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের জন্য একুশ শতকের উপযোগী দক্ষ মানব সম্পদ গড়ে তোলা ছাড়া কোনো বিকল্প নেই। এজন্য শুধুমাত্র তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ আগামী তিন বছরে এক লাখ দক্ষ মানব সম্পদ তৈরি করছে। এলআইসিটি প্রকল্পে ৪৪ হাজার দক্ষ মানব সম্পদ গড়ার লক্ষ্যে প্রশিক্ষণ চলছে। এর মধ্যে ১০ হাজার বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তিতে স্নাতক তরুণ-তরুণীকে টপ আপ আইটি এবং নন-আইটি বিষয়ে অধ্যায়নরত ২০ হাজার তরুণ-তরুণীকে ফাউন্ডেশন প্রশিক্ষণ দিচ্ছে সরকার কর্তৃক নিযুক্ত যুক্তরাজ্যভিত্তিক প্রতিষ্ঠান আর্নস্ট অ্যান্ড ইয়ং। টপ-আপ আইটি প্রশিক্ষণ শেষে অন্তত ৬০ শতাংশের কর্মসংস্থান হবে দেশে এবং বিদেশে। এছাড়াও আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে অর্থ আয়ের সুযোগ করে দেয়ার জন্য আরও ১০ হাজার তরুণ-তরুনীকে উন্নত প্রশিক্ষণে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আউটসের্সিংয়ে বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বে তৃতীয়। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং প্রকল্পের অধীনে আউটসোর্সিংয়ের প্রশিক্ষণ দিয়ে ৫৫ হাজার ফ্রিল্যান্সার তৈরি করা হচ্ছে। মানসম্মত প্রশিক্ষণ নিশ্চিত করার জন্য তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলে বিশোয়িত ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে।’

পলক বলেন, ‘তথ্যপ্রযুক্তি খাতের বিকাশ ও ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নকে এগিয়ে নিতে আইসিটি অবকাঠামো উন্নয়নসহ ব্যাপক কার্যক্রম গ্রহণ করেছে সরকার। যশোরে শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক নির্মাণ কাজ প্রায় সমাপ্তির পথে। কালিয়াকৈরে ৩৩২ একর জমির উপর বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্ক নির্মাণের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে। এ দুটি পার্কসহ দেশে ১২টি আইটি পার্ক গড়ে তোলা হচ্ছে। শুধুমাত্র কালিয়াকৈরে বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্ক নির্মাণের কাজ শেষ হলে এখানে লক্ষাধিক মানুষের কর্মসংস্থান হবে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণ-তরুণীদের আইটিতে ক্যারিয়ার গড়া এবং প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজেদের দক্ষ করে তোলার আহবান জানিয়ে পলক বলেন, ‘বিগত সাড়ে সাত বছরে ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের অগ্রগতি সাধিত হওয়া তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বিরাট সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। এ সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে আপনাদেরকেই এগিয়ে আসতে হবে।’

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.