হুয়াওয়ে ফোরজি-এলটিই প্রযুক্তি পরীক্ষা করল বাংলালিংক কার্যালয়ে

প্রতিনিয়ত পরিবর্তিত হচ্ছে বিশ্ব এবং এটি এগিয়ে যাচ্ছে ডিজিটাল যুগের দিকে। বাংলাদেশে ব্যাপক সংখ্যক মানুষ স্মার্টফোনে ইন্টারনেটের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে যা সীমাহীন সম্ভাবণার পথ খুলে দেয়।

বর্তমানে মানুষজন মোবাইলে অনলাইনে অনেক সময় ব্যয় করে, ফেসবুক ও ইউটিউবে দৈনন্দিন জীবনের বিভিন্ন মূহুর্ত শেয়ার করে, তথ্য খুঁজে বের করে এবং আপনজন ও বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে চ্যাটিং করে থাকে। এছাড়া মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহার করে অনলাইনে শপিং, সংবাদ পড়া, গান শোনা, নতুন নতুন বিষয় সম্পর্কে জানা, মুভি দেখা, টাকা পাঠানো এমনকি নিজেদের মোবাইল অ্যাকাউন্ট পরিচালনার মতো কাজগুলো করছে। ডিজিটাইজেশনের পথে এটি একটি বিশাল পরিবর্তন।

বাংলাদেশ সরকারের ভিশন ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ বিনির্মাণের পথে আরেক ধাপ এগিয়ে রাখতেই বিশ্বের হালনাগাদ প্রযুক্তি এলটিই/ফোরজি বা চতুর্থ প্রজন্মের নেটওয়ার্ক সেবা সবার হাতের নাগালে নিয়ে আসতে দেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় মোবাইল অপারেটর বাংলালিংকের প্রধান কার্যালয় ‘টাইগার্স ডেন’-এ সম্প্রতি এলটিই (লং-টার্ম ইভোল্যুশন)/ ফোরজি পরীক্ষা করল বিশ্বখ্যাত আইসিটি সল্যুশনস সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে। একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য হুয়াওয়েকে দেয়া বিটিআরসির অনুমোদনক্রমে এ পরীক্ষাটি সরকার কর্তৃক বাংলাদেশে ফোরজি প্রযুক্তি বাণিজ্যিকভাবে উদ্বোধনের আগে জরিপের অংশ হিসেবে পরিচালিত হয়েছে।

ফোর্থ-জেনারেশন ওয়্যারলেসের সংক্ষিপ্ত নামই হচ্ছে ফোরজি যা ব্রডব্যান্ড মোবাইল যোগাযোগের ক্ষেত্রে তৃতীয় প্রজন্মের চেয়ে অধিক শক্তিশালী। গতানুগতিক প্রযুক্তি টাইম ডিভিশনাল মাল্টিপল একসেস (টিডিএমএ) ও কোড ডিভিশন মাল্টিপল একসেস (সিডিএমএ)-এর পরিবর্তে নতুন প্রযুক্তি অর্থোগোনাল ফ্রিকোয়েন্সি-ডিভিশনাল মাল্টিপ্লেক্সিং (ওএফডিএম) ব্যবহার করে ফোরজি নেটওয়ার্ক পরিচালনা করা হয়। ফোরজি নেটওয়ার্কে উচ্চগতির ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ পাবে এর ব্যবহারকারীরা।

উল্লেখ্য, পরীক্ষার ফলাফল বেশ সন্তোষজনক। ফোরজি প্রযুক্তির পরীক্ষার সময় ডাউনলোড স্পিড ৬০ মেগাবাইটেরও বেশি পাওয়া গেছে।

ফোরজি পরীক্ষা প্রসঙ্গে হুয়াওয়ে টেকনোলোজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেড-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ঝাও হাওফু বলেন, ‘বাংলালিংকের প্রধান কার্যালয়ে ফোরজি পরীক্ষা সম্পন্ন করতে পেরে আমরা সন্তুষ্ট। আমরা লক্ষ্য করেছি যে, নতুন প্রযুক্তি নিয়ে মানুষ কতটা উত্তেজিত এবং আগ্রহী। আগামীর ডিজিটাল জীবনধারায় মানুষকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার এ পথচলায় যুক্ত থাকতে পেরে আমরা আনন্দিত।’

বাংলালিংকের চিফ টেকনোলজি অফিসার সঞ্জয় ভাঘাশিয়া বলেন, ‘নতুন প্রযুক্তির নেটওয়ার্ক সিস্টেম বাংলালিংকের কার্যালয়ে পরীক্ষা করার জন্য আমরা হুয়াওয়ে প্রতি কৃতজ্ঞ। নতুন ফোরজি প্রযুক্তি দেশের মানুষের জীবনধারায় ব্যাপক পরিবর্তন আনবে বলে আমি বিশ্বাস করি। বাংলালিংকের ডিজিটাল সার্ভিস গ্রাহকদের কাছে আরো কার্যকরভাবে পৌঁছানোর ক্ষেত্রে ফোরজি নেটওয়ার্ক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।’

হুয়াওয়ে টেকনলোজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেড-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ঝাও হাওফু এবং বাংলালিংকের চিফ টেকনোলজি অফিসার সঞ্জয় ভাঘাশিয়া ছাড়াও পরীক্ষার সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলালিংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এরিক অস।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.