হারমনি ওএস নিয়ে ঢাকায় নলেজ শেয়ারিং করেছে হুয়াওয়ে

প্রযুক্তি বিশ্বে এখন বহুল উচ্চারিত নাম ‘হারমনি ওএস’। এই অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে বাংলাদেশের সাংবাদিকদের সাথে নলেজ শেয়ারিংয়ের আয়োজন করে শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে। এতে হুয়াওয়ের সিনিয়র প্রোডাক্ট মার্কেটিং এ·পার্ট রেমন্ড ঝো হারমনি ওএস সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য ও নানাদিক তুলে ধরেন। সাংবাদিকরাও তাদের বিভিন্ন প্রশ্ন উপস্থাপন করেন।

নলেজ শেয়ারিংয়ের বিশেষ এ আয়োজনটি বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) ঢাকায় অবস্থিত হুয়াওয়ের বাংলাদেশ অফিসে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানটিতে হুয়াওয়ের প্রধান কার্যালয় থেকে আসা বিশেষজ্ঞ রেমন্ড ঝো, হুয়াওয়ে কনজ্যুমার বিজনেস গ্রুপ (বাংলাদেশ) এর কান্ট্রি ডিরেক্টর কেলভিন ইয়াং, মার্কেটিং ডিরেক্টর ঈগল সং, সিনিয়র পিআর ম্যানেজার (ডিভাইস) সুমন সাহা, হুয়াওয়ের ঊধ্বর্তন কর্মকর্তারাসহ বাংলাদেশের গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

ছবিঃ রেমন্ড ঝো

 

নলেজ শেয়ারিং এর বিশেষ এ আয়োজনে বিশেষজ্ঞদের বিস্তারিত বক্তব্যের পাশাপাশি সাংবাদিকরাও বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে প্রশ্ন উপস্থাপন করেন। বিশেষজ্ঞরা সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরও দেন।

হারমনি ওএস নতুন প্লাটফর্মটি মাইক্রোকার্নেল বেজ। এটি বেশ বড় পরিসের ব্যবহার করা যাবে। অপারেটিং সিস্টেমটি স্মার্ট স্পিকার, স্মার্টস্ক্রিন, গাড়ি, কম্পিউটার, স্মার্ট ওয়াচ, ট্যাবলেট এবং স্মার্টফোনে ব্যবহার করা যাবে। হারমনির উন্নয়নের জন্য এটি ডেভলোপারদের জন্য ওপেন সোর্স প্লাটফর্ম হিসেবে উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে। তবে এটি অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস এর থেকে সম্পূর্ণ আলাদা হবে। এটি এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যে এর ব্যবহার হবে সম্পূর্ণ নিরাপদ। এ অপারেটিং সিস্টেমে একবার একটি অ্যাপ ডেভলপ করার মাধ্যমে অনায়াসেই অনেকগুলো ডিভাইসে ব্যবহার করা যাবে।

সাধারণত নতুন অপারেটিং সিস্টেম নতুন কোনো ডিভাইসের সাথে যুক্ত করে বাজারে ছাড়া হয়। কিন্তু আজ থেকে দশ বছর আগে হুয়াওয়ে ভবিষ্যতের বুদ্ধিভিত্তিক এক জীবনব্যবস্থার চিত্র অনুধাবন করতে পারে। যেখানে বুদ্ধিভিত্তিকভাবে আমাদের জীবনব্যবস্থার সবস্তরকে এক করা যাবে। তখন থেকে হুয়াওয়ে এ বিষয়ে কাজ করতে শুরু করে। এমন একটি প্লাটফর্মের অনুসন্ধান শুরু করে যার ফলে শারীরিক উপস্থিতির বাঁধাকে অতিক্রম করতে পারা যায় এবং এর ব্যাপ্তি বিভিন্ন প্লাটফর্ম ও হার্ডওয়্যারে ছড়িতে দিতে পারা যায়।

হারমনি ওএস সহজ ও সংক্ষিপ্ত অপারেটিং সিস্টেম কিন্তু এর কর্মক্ষমতা শক্তিশালী। এটি প্রথমবারের মতো স্মার্ট স্পিকার, স্মার্টস্ক্রিন, স্মার্ট ওয়াচ, গাড়ি ব্যবস্থাপনার মতো স্মার্ট ডিভাইসগুলোতে ব্যবহার করা হবে। এগুলোর বাস্তবায়নের মাধ্যমে হুয়াওয়ে বিভিন্ন ডিভাইসের মধ্যে ব্যাপকভাবে একটি ইকোসিস্টেম গড়ে তুলতে চায়।

-সিনিউজভয়েস/ডেক্স/১২সেপ্টেম্বর/১৯ 

Please Share This Post.