স্যাটেলাইট উদ্বোধনে রাজধানীতে যত আয়োজন

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আগামী ৫ মে বাংলাদেশ সময় ভোরে মহাকাশে উড়তে যাচ্ছে বাংলাদেশের প্রথম স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১।

ওই দিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেপ ক্যানাভেরালে উৎক্ষেপণকারী প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্সের লঞ্চ প্যাড থেকে এটিকে মহাকাশের নির্ধারিত কক্ষপথের উদ্দেশে পাঠানো হবে।

এদিকে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের দিনকে ঘিরে ওই দিন সন্ধ্যায় দেশজুড়ে আনন্দ-উৎসবের আয়োজন করছে সরকার।

আয়োজনে রয়েছে আতশবাজির উৎসব। রাজধানীর অন্তত পাঁচটি এলাকাসহ সারাদেশে হবে এই উৎসব। তবে উৎসবগুলোর মূলকেন্দ্র হিসেবে থাকছে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান।

রাজধানীতে উৎসব হবে হাতিরঝিল, উত্তরা রাজউক স্কুল, আহসান মঞ্জিল এবং কাচপুর ব্রিজ এলাকায়।

অন্যদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা যে প্যাড থেকে স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপিত হবে সেখানেও বাংলাদেশের পক্ষ থেকে এবং উৎক্ষেপণ কোম্পানি স্পেসএক্স-এর পক্ষ থেকেও অনুষ্ঠান আয়োজন করা হলে বলে জানা গেছে।

স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ উপলক্ষে একটি স্মারক ডাক টিকিট প্রকাশের উদ্যোগ নেবে ডাক অধিদফতর।
টেলিযোগাযোগ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় উৎক্ষেপণের আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াও দেশে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে হবে মূল অনুষ্ঠান। এতে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

১৬০০ মেগাহার্টজ ক্ষমতাসম্পন্ন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মোট ৪০টি ট্রান্সপন্ডার থাকবে। এর মধ্যে ২০টি ট্রান্সপন্ডার বাংলাদেশের ব্যবহারের জন্য রাখা হবে। বাকি ২০টি ট্রান্সপন্ডার বিদেশি কোনো প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রির জন্য সংরক্ষিত থাকবে।

২০১৫ সালের ২১ অক্টোবর মন্ত্রিপরিষদ স্যাটেলাইট সিস্টেম বিষয়ক প্রকল্পের অনুমোদন দেয়।

পরে বিটিআরসির দুই হাজার কোটি টাকা বাজেটে ফ্রান্সের প্রতিষ্ঠান থ্যালেস অ্যালেনিয়াকে স্যাটেলাইট নির্মাণের দায়িত্ব দেয়। ২০১৬ সালের ৯ সেপ্টেম্বর হংকং অ্যান্ড সাংহাই ব্যাংকিং কর্পোরেশন প্রকল্পে প্রায় ১৪০০ কোটি টাকা অর্থায়নে চুক্তিবদ্ধ হয়।

বর্তমানে নিজস্ব স্যাটেলাইট সিস্টেম না থাকায় বাংলাদেশকে ইন্টারনেট সংযোগের জন্য প্রচুর পরিমাণ টাকা বিদেশি প্রতিষ্ঠানকে দিতে হয়।

বঙ্গবন্ধু -১ স্যাটেলাইট সিস্টেম বাস্তবায়ন হলে নিজেদের ব্যবহারের জন্য ব্যান্ডউইথ পাওয়ার পাশাপাশি অন্যদের কাছে বিক্রি করেও অর্থ আয় করা সম্ভব হবে।

সিনিউজভয়েস//ডেস্ক/

Please Share This Post.