স্মার্ট তরুণদের প্রথম পছন্দ

সময় দেখার জন্য ঘড়ির ব্যবহার কমে গেছে আগের থেকে। বা গান শোনার জন্য রেডিও বা টেলিভিশনের যুগ। এ যুগে ঘড়ি ‘স্মার্ট ওয়াচ’ নামে বিশেষভাবে এসেছে মানুষের কাছে। এবং গান শোনার ফ্রি বাডস থ্রি পূরণ করছে প্রযুক্তিগত অনেক চাহিদা। প্রযুক্তি ও ফ্যাশনপ্রিয় মানুষদের কাছে এ দুটো উপকরণ আছে পছন্দের তালিকায়।

প্রয়োজনীয়তা: কয়েক বছর ধরেই তর তর করে বাড়ছে স্মার্ট ওয়াচের জনপ্রিয়তা। স্মার্ট ওয়াচ ব্যবহারকারীর হাঁটার পদক্ষেপ, হার্ট রেট, তাপমাত্রাসহ তথ্য সংগ্রহও করে। স্মার্ট ওয়াচ হৃৎস্পন্দনে সব সময় নজর রাখে। এটি আপনাকে জানিয়ে দেবে, কত ক্যালরি খরচ করলেন। এর ফলে ওজন নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্য থাকলে ওয়াচের সাহায্যে ক্যালরির ঘাটতি পূরণে খাবারের পরিকল্পনাও করা যায়। প্রতিদিন কত পদক্ষেপ হাঁটলেন কিংবা দৌড়ালেন, তা জানাবে এই স্মার্ট যন্ত্র। পর্যাপ্ত ঘুম আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। তা যথাযথ রুটিনে মেনে চলাও জরুরি। স্মার্ট ওয়াচের মনিটর কম সময় ঘুমালে সেটিও জানাবে। কতটুকু ঘুম স্বাস্থ্য অনুসারে প্রয়োজন, তা-ও জানতে পারবেন। স্মার্ট ওয়াচে তাপমাত্রা নির্ণয়ের জন্য থার্মোমিটার ব্যবহার করা হয়। এই ফিচারটি অ্যাথলেটদের জন্য বেশ কার্যকর। কতটুকু ক্যালরি বার্ন হয়েছে, তার হিসাব কষতে স্মার্ট ওয়াচে ব্যবহার করা হয় অ্যালগরিদম। এর মাধ্যমে জিম করা, দৌড়ানো, পাহাড়ে ওঠা, সাইকেল চালানো ও সাঁতার কাটার সময় পরিমাপ করা যায়।

হুয়াওয়ে ওয়াচ জিটি: ওয়াচ জিটি’র পর নতুন একটি স্মার্টওয়াচ দেশের বাজারে নিয়ে এসেছে হুয়াওয়ে। ওয়াচ জিটি ২ নামে এ স্মার্টওয়াচটি ৪৬ মিলিমিটার ও ৪২ মিলিমিটারের দু’টি ভার্সনে পাওয়া যাচ্ছে। ৪৬ মিলিমিটার ভার্সনটির সংস্করণ দু’টি- স্পোর্টস ও ক্ল্যাসিক। দৈনন্দিন জীবনে স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিভিন্ন তথ্য পাওয়া যাবে স্মার্ট এ ডিভাইসটিতে।

হুয়াওয়ের ওয়াচ জিটি ২ স্মার্টওয়াচটি হাতঘড়ি হিসেবে ব্যবহারের পাশাপাশি, প্রাত্যহিক জীবনের স্মার্ট অ্যাসিসট্যান্ট হিসেবেও কাজ করবে। এর সাহায্যে জানা যাবে হৃৎস্পন্দনের গতির বিভিন্ন বিবরণ, অনুশীলনের বিবরণ, ক্যালরি ক্ষয়ের মাত্রা। নান্দনিক ডিজাইনের এ ডিভাইস দিয়ে স্বাস্থ্য সম্পর্কিত সকল ডেটার সার্বিক বিশ্লেষণও করা যাবে।

উন্নতমানের ব্যাটারি পারফরমেন্স: হুয়াওয়ের ওয়াচ জিটি ২’তে এমন কিছু ফিচার ও প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে যার ফলে উন্নতমানের ব্যাটারি পারফরমেন্স পাওয়া যাবে। এতে ব্যবহার করা হয়েছে হুয়াওয়ের নিজস্ব কিরিন এআই চিপ। এ চিপ ব্যবহারের ফলে ব্যাটারি অপচয় কম হবে। পাশাপাশি হাই অপারেশন পারফরমেন্সও নিশ্চিত করবে। ডুয়াল চিপ ডিজাইনসহ পাওয়ার সেভিং অ্যালগরিদম ২.০ প্রযুক্তি ব্যবহারের কারণে দীর্ঘসময় ধরে ব্যাটারি ব্যাকআপ দেবে। ঘড়িটি ২৪ ঘণ্টা হাতে পরিধান করলে ২ সপ্তাহের বেশি ব্যাটারি ব্যাকআপ পাওয়া যাবে।

নান্দনিক ডিজাইন: ওয়াচ জিটি ২ এর ডিজাইনে ক্ল্যাসিক হাতঘড়ি ও নতুনত্বের মিশেল রাখা হয়েছে। থ্রিডি কার্ভড ডিজাইনের বেজেললেস এ স্মার্টওয়াচটি ধুলা ও পানিরোধী। অ্যামলয়েড ডিসপ্লের গোলাকার এ ওয়াচটির কেস ৪৬ ও ৪২ মিলিমিটার। ফলে এটি দেখতে নৈপুণ্যপূর্ণ, রুচিসম্মত, হালকা ও মজবুত। স্মার্টওয়াচটির ডিসপ্লে নিজের মতো করে পরিবর্তনের সুবিধাও রয়েছে। বিভিন্ন স্টাইল ও কালারের জন্য জিটি ২ হবে বৈচিত্র্যময়।

প্রফেশনাল স্পোর্টস ট্রেইনার: হুয়াওয়ের ওয়াচ জিটি ২’তে পাওয়া যাবে স্বাস্থ্য সুরক্ষার সব ধরণের ট্র্যাকিংয়ের ফলাফল। দৌড়ের মাত্রা, হৃদস্পন্দনের গতি, হাঁটার বিভিন্ন মাত্রার বিবরণ, ঘুমের বিভিন্ন পরিমাপ পাওয়া যাবে। কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা এবং হুয়াওয়ের ট্রুসিন প্রযুক্তির সাহায্যে স্মার্টওয়াচটি হৃদস্পন্দনের গতি জানিয়ে দেবে। এছাড়া সাতার কাঁটার সময়ও জানা যাবে হৃদস্পন্দনের গতি, ক্যালরি ক্ষয়ের বিবরণ, সাতার কাঁটার দুরত্ব ও এর গতি। এটি পানিরোধক হওয়ায় সাতার কাঁটালেও কোনো সমস্যা হবে না ওয়াচ জিটি ২ এর। ট্র্যাকিং সম্পর্কিত বিভিন্ন ডেটার সাহায্যে সার্বিক ফলাফলও দেবে স্মার্টওয়াচটি।

প্রাত্যহিক জীবনের স্মার্ট অ্যাসিসট্যান্ট: দৈনন্দিন জীবনকে আরও সহজ করতে হুয়াওয়ের ওয়াচ জিটি ২ তে ব্যবহার করা হয়েছে দারুণ কিছু ফিচার। ব্যায়াম, খেলাধুলা বা ব্যস্ত সময়ে এই ডিভাইসটি দিয়ে মোবাইল ফোনে কল করা যাবে ও রিসিভ করা যাবে। এতে ৫০০ এর মতো গান সংরক্ষণ করা যাবে। এর বিল্ড ইন স্পিকারে সেটি শোনাও যাবে। যুক্ত করা যাবে ব্লুটুথ হেডফোনের সাথেও। ঘুমের ৬টি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের বিভিন্ন ধরণের ফলাফল জানাবে ওয়াচ জিটি ২।

হুয়াওয়ে ফ্রি বাডস থ্রি:
ইন্টেলিজেন্ট নয়েজ ক্যানসেলেশন প্রযুক্তিসহ অডিও এক্সপেরিয়েন্সের উন্নত ফিচারসহ পাওয়া যাচ্ছে ফ্রি বাডস থ্রি। এতে ব্যবহার করা হয়েছে কিরিন এ১ চিপসেট, পপ-ওপেন ইনস্ট্রান্ট পেয়ারিং এবং স্মার্ট চার্জিং প্রযুক্তি। অ্যাকসেসরিজটি ডলফিন বায়োনিক ডিজাইনের হওয়ায় স্বাচ্ছন্দ্যে কানে যুক্ত করা যাবে। ওপেন ফিট ডিজাইনের জন্য নিশ্চিত হবে সর্বোচ্চ মানের আয়েশ। এতে বিশ্বের প্রথম ̄স্বীকৃত ব্লু-টুথ ৫.১ সক প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে। ফলে খুবই দ্রুত এর ব্লু-টুথ সংযোগ হবে। এতে নয়েজ ক্যানসেলেশন প্রযুক্তি ব্যবহারে শব্দ শোনার ক্ষেত্রে ভালো এক্সপেরিয়েন্স পাওয়া যাবে।

এছাড়া বাজারে অ্যাপল, স্যামসাং, শাওমিসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের স্মার্ট ওয়াচ ও এয়ার ফোন বাজারে পাওয়া যায়। এ প্রযুিিক্ত পণ্যের দাম ৫০০ থেকে ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত। রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি, যমুনা ফিউচার পার্ক, ইস্টার প্লাজা, মোতালিব প্লাজাজাসহ দেশের প্রযুক্তি পণ্যের মার্কেটে এ পণ্যগুলো পাওয়া যায়।

 

– সিনিউজভয়েস/জিডিটি/জানু.২৬/২০

 

 

Please Share This Post.