সুবিধাবঞ্চিতদের কাছে বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে টনিক


আজ বিশ্বজুড়ে পালিত হচ্ছে ‘বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস ২০১৮’। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) তথ্য অনুযায়ী বিশ্বের অন্তত অর্ধেক মানুষ তাদের প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যসেবা নিতে পারছেন না। এক্ষেত্রে, কাজ করছে নানা প্রতিকূলতা। আর এসব প্রতিকূলতা দূর করে বিশ্বের সব মানুষের জন্য মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্য নিয়ে এবারের বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারিত হয়েছে #হেলথফরঅল (সবার জন্য সুস্বাস্থ্য)। আর এ প্রতিপাদ্যের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে সামাজিকভাবে দায়বদ্ধ প্রতিষ্ঠান হিসেবে টেলিনর হেলথের ডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবাদাতা প্রতিষ্ঠান টনিক স্বাস্থ্য দিবসকে সামনে রেখে এক অভিনব কর্মসূচি পালন করছে।

গত ৫ এপ্রিল থেকেই টনিক ব্র্যান্ডেড একটি ট্রাক সুস্বাস্থ্যে জনসচেতনতায় ঢাকা জুড়ে কাজ করছে। ট্রাকটিতে রয়েছে বিশেষভাবে ডিজাইন করা একটি ট্রেডমিল। ট্রেডমিলে টনিকের পক্ষ থেকে পথচারীদের দৌড়ানোর আহ্বান জানানো হয়। এটা একইসাথে যেমন তাদের সুস্বাস্থ্যে সচেতনতায় কাজ করেছে এর পাশাপাশি এর আরও একটি বড় ব্যাপার হচ্ছে, প্রতিজনের তিন মিনিটের দৌড়ানোর ফলে তিন মাসের জন্য টনিকের আশা প্যাকেজ বিনামূল্যে পৌঁছে দেয়া হবে দেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের কাছে। যার অধীনে আর্থিকভাবে অসচ্ছলরা তাদের স্বাস্থ্যসেবায় পাবেন হাসপাতালের ক্যাশ কাভারেজ সহ স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে নানা সুবিধা। সবার জন্য সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে প্রত্যন্ত অঞ্চলে টনিক বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিচ্ছে। জনসচেতনতায় টনিকের সুস্বাস্থ্য বিষয়ে এ কর্মসূচিতে ইতিমধ্যেই বিপুল সাড়া লাভ করেছে। টনিকের কর্মসূচি চলবে ৭ এপ্রিল পর্যন্ত।

এ নিয়ে টেলিনর হেলথের মার্কেটিং ম্যানেজার সেজামী খলিল জানান, টেলিনর হেলথ বিশ্বাস করে পৃথিবীর সব মানুষের অধিকার রয়েছে মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবা পাওয়ার। আর টেলিনর হেলথে আমরা সে লক্ষ্যেই নিরলস কাজ করে যাচ্ছি। সামাজিকভাবে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ প্রতিষ্ঠান হিসেবে আমরা চেয়েছি মানুষের পাশে দাঁড়াতে। বিশেষ করে যেসব অঞ্চলে মানুষ আর্থিকভাবে সক্ষমতার অভাব সহ নানা কারণে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণ করতে পারছেন না। বিশ্বস্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে আমাদের এ কর্মসূচি আমরা এমনভাবে সাজিয়েছি যাতে করে এর সুফল প্রত্যক্ষভাবে দেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষ লাভ করতে পারে। আর আমাদের এ কর্মসূচিতে অনেক মানুষ অংশগ্রহণ করেছেন যেটা আমাদের অনুপ্রাণিত করেছে ভবিষ্যতেও এ ধরনের কর্মসূচির আয়োজনের।’

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে দেশের প্রতিটি মানুষের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবাকে পৌঁছে দিতে ২০১৫ সালে যাত্রা শুরু করে টনিক। টনিক গ্রামীণফোনের গ্রাহকদের জন্য একটি ডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবা যা সকলের জন্য উচ্চমানের স্বাস্থ্যগত তথ্য, পরামর্শ এবং সেবা প্রদান করতে সাহায্য করে।

সিনিউজভয়েস//ডেস্ক/