সাড়ে ১০ হাজার নারীকে প্রযুক্তি প্রশিক্ষণ দেবে সরকার

সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে প্রায় ৮১ কোটি টাকা ব্যয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) অধিদপ্তরের উদ্যোগে ‘প্রযুক্তির সহায়তায় নারীর ক্ষমতায়ন’ শীর্ষক একটি প্রকল্প আজ ২ মে মঙ্গলবার, জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) এর সভায় অনুমোদিত হয়েছে।

এ প্রকল্পের আওতায় সারাদেশের বৃহত্তর একুশ জেলার একুশটি উপজেলায় ১০,৫০০ জন নারী প্রশিক্ষণার্থীদের ৩টি ক্যাটাগরিতে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে।

কল সেন্টার ও বিপিও ইন্ডাস্ট্রি উপযোগী প্রশিক্ষণ এই প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত করায় বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কল সেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিং (বাক্য) এর পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ ও আইসিটি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলককে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানানো হয়েছে। সংগঠনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

আইসিটি অধিদপ্তরের অধীনে এই প্রকল্পটি জুলাই ২০১৭ থেকে জুন ২০১৯ পর্যন্ত দুই বছর মেয়াদে পরিচালিত হবে। ১০,৫০০ জন এর মধ্যে চার হাজার (৪০০০) নারীকে ‘ফ্রিল্যন্সার টু এন্ট্রাপ্রেনার’, চার হাজার (৪০০০) নারীকে আইসিটি সার্ভিস প্রোভাইডার এবং দুই হাজার (২৫০০) নারীকে কলসেন্টার এজেন্ট বিষয়ক প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ করে তোলা হবে।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমাদের বিশাল জনসংখ্যার অর্ধেকই নারী। দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে হলে অবশ্যই অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে সকল নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে। নারীদের ক্ষমতায়ন ও কর্মসংস্থানের জন্য এই প্রকল্প একটি মাইলফলক হয়ে থাকবে বলে আমি আশা করছি’।

আইসিটি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বণমালী ভৌমিক এ প্রসঙ্গে বলেন, এই প্রকল্পের মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশের সেবায় নারীদের অগ্রাধিকার নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

সরকারের এই উদ্যোগের প্রশংসা করে বাক্যের সভাপতি আহমাদুল হক বলেন, এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচির মাধ্যমে কল সেন্টার ও বিপিও ইন্ডাস্ট্রিতে নারীদের চাকরির যে প্রতিবন্ধকতা রয়েছে তা অনেকাংশে দূর হবে। কল সেন্টারগুলোয় প্রচুর দক্ষ নারীর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে, এই প্রকল্প এর অনেকটাই পূরন করবে বলে আমরা আশা করছি।

বিপিও কোম্পানিগুলোতে আইসিটি সার্ভিস প্রোভাইডারদের চাহিদা এই প্রকল্প মেটাতে সক্ষম হবে বলে মনে করছেন বাক্যের সাধারন সম্পাদক তৌহিদ হোসেন।

সরকারকে এই প্রকল্প অনুমোদনের জন্য সাধুবাদ জানান বাক্যের সহসভাপতি ওয়াহিদ শরীফ। একটি সময়োপযোগী প্রকল্পের সিদ্ধান্ত ও বাস্তবায়নের পরিকল্পনার জন্য আইসিটি ডিভিশনকেও আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.