সার্ভিস ইনোভেশন ফান্ডের শিক্ষা সংক্রান্ত উদ্ভাবন প্রদর্শনী ও সভা অনুষ্ঠিত

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বাস্তবায়নাধীন প্রকল্প অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের আয়োজনে ১০ মে মঙ্গলবার, ‘সার্ভিস ইনোভেশন ফান্ড প্রাপ্ত শিক্ষা সংক্রান্ত উদ্ভাবন প্রদর্শনী এবং সম্প্রসারণ পরিকল্পনা’ নিয়ে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের করবী হলে অনুষ্ঠিত এই সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এম.পি. এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. হুমায়ুন খালিদ এবংশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন। অনুষ্ঠানটি সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব মো. আবুল কালাম আজাদ।

উল্লেখ্য, জনগণের সেবা প্রাপ্তি আরো সহজ করতে ও সরকারি সেবার মান উন্নয়নে সরকারি, বেসরকারি ও ব্যক্তি পর্যায়ের ইনোভেশন প্রচেষ্টায় সহায়তা প্রদান করতে এবং বিদ্যমান ক্ষুদ্র এবং মধ্যম পর্যায়ের উদ্যোগসমূহে উদ্ভাবনী দক্ষতার বিকাশে চালু করা হয় ‘সার্ভিস ইনোভেশন ফান্ড’।

এ বছর তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বিশ্বের সবচেয়ে সম্মানজনক পুরস্কার ‘ওয়ার্ল্ড সামিট অন ইনফরমেশন সোসাইটি (WSIS) পুরস্কার ২০১৬’ চ্যাম্পিয়ান হবার গৌরব অর্জন করেছে এটুআই প্রোগ্রামের চারটি উদ্যোগ এবং এর মধ্যে রয়েছে সার্ভিস ইনোভেশন ফান্ডের দুইটি প্রকল্প।

বাংলাদেশ সরকার, ইউএনডিপি ও ইউএসএইড এর সমন্বয়ে গঠিত সার্ভিস ইনোভেশন ফান্ড পরিচালিত হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের মাধ্যমে। এর আওতায় এ যাবত ৬টি রাউন্ডে মোট ৯০টি প্রকল্প পুরষ্কৃত করা হয়েছে। এর মধ্যে শিক্ষা সংক্রান্ত ১০টি প্রকল্প রয়েছে যেগুলো এসেছে ১টি সরকারি দপ্তর, ৫টি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, ১টি এনজিও প্রতিষ্ঠান, ২টি বিশ্ববিদ্যালয়, এবং ১জন ব্যক্তি থেকে।

অনুষ্ঠানে প্রদর্শনী হলে এসব প্রকল্পের উদ্যোক্তারা উপস্থিত অতিথিদের তাদের প্রকল্পের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন এবং বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। মূল অনুষ্ঠানের কার্যক্রম শুরু হয় এটুআই প্রোগ্রামের প্রকল্প পরিচালক কবির বিন আনোয়ারের স্বাগত বক্তব্যের মধ্য দিয়ে। পরে এটুআই প্রোগ্রামের পলিসি অ্যাডভাইজার আনীর চৌধুরী উপস্থিত সকলকে এটুআই প্রোগ্রামের কার্যক্রম এবং সার্ভিস ইনোভেশন ফান্ড সম্পর্কে ধারণা প্রদানকরেন।

এরপর এটুআই প্রোগ্রামের পরিচালক (ইনোভেশন) মোস্তাফিজুর রহমান সার্ভিস ইনোভেশন ফান্ডের শিক্ষা সংক্রান্ত প্রকল্পসমূহের সংক্ষিপ্ত উপস্থাপনা করেন এবং প্রকল্পের ওপর সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান প্রধানের মতামত চান। প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নের বিভিন্ন পর্যায় রয়েছে এবং সেগুলোকে সফলভাবে বাস্তবায়িত করতে ও পরবর্তীতে সম্প্রসারণের জন্যে করণীয় নিয়ে উন্মুক্ত আলোচনা করা হয়। আলোচনার প্রেক্ষিতে উদ্ভাবনী প্রকল্পগুলোর সফল বাস্তবায়ন এবং সম্পন্ন হবার পর উদ্বোধন ও সম্প্রসারণের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তর প্রধান এবং নীতি নির্ধারকগণ একমত পোষণ করেন।

অনুষ্ঠানের আলোচনায় উঠে আসে যে এটুআই প্রোগ্রাম বিভিন্ন সময় তরুণদের মধ্যে উদ্ভাবনী শক্তি তৈরিতে কাজ করে চলেছে। এরই ধারাবাহিকতায় ১২টি শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া ছাত্রীদের অংশগ্রহণে একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে যার মাধ্যমে নারীদের বিভিন্ন সমস্যার উদ্ভাবনী সমাধান প্রস্তাবনা আকারে জমা পড়বে। প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্ব আগত শীর্ষ ১২টি উদ্ভাবন প্রস্তাব করা শিক্ষার্থীদেরকে নিয়ে ২ দিনব্যাপী বুটক্যাম্প আয়োজন করা হবে যেখানে সেসকল উদ্ভাবন সংশ্লিষ্ট সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতিনিধিদেরকে আমন্ত্রণ করা হবে যারা খতিয়ে দেখবেন যে এই উদ্ভাবনগুলোকে তারা কোনোভাবে তাদের প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে সম্প্রসারণ করতে পারেন কি না। এই প্রতিযোগিতায় নারীদের যেসকল সমস্যা নিয়ে সমাধান তৈরি করতে বলা হবে, সেসকল সমস্যা নির্বাচনের লক্ষ্যে ২৯ মে একটি গোলটেবিল বৈঠক আয়োজিত হবে।

এই অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন সকল দপ্তরের প্রধানগণ, দপ্তরের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও এটুআই প্রোগ্রামের কর্মকর্তাবৃন্দ এবং গণমাধ্যমের প্রতিনিধিবৃন্দ।

 

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

 

Please Share This Post.