সাইবার ঝুঁকির আওতায় বাংলাদেশও

ঢাকাঃ সাইবার হুমকি বর্তমান সময়ের জন্য সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। বিশেষ করে ইন্টারনেটভিত্তিক ব্যবসা কার্যক্রম এবং সামাজিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে। এছাড়াও স্মার্টফোনের ক্রমবর্ধমান ব্যবহার এবং ফোনভিত্তিক কম্পিউটার এ্যাপ্লিকেশন, ডিভাইজভিত্তিক আর্থিক লেনেদেন কার্যক্রম পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানসমূহের ক্ষেত্রে এ ঝুঁকির পরিমাণ সারাবিশ্বের মতো আমাদের দেশেও বেশি। তাই এই সাইবার হুমকি মোকাবেলা করার জন্য আগে থেকেই আমাদের প্রস্তুত থাকা প্রয়োজন। আর এই প্রস্তুতির জন্য পর্যাপ্ত তথ্যজ্ঞান ও সাইবার নিরাপত্তা প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন সিটিও ফোরামের সভাপতি তপন কান্তি সরকার।

রবিবার দুপুরে রাজধানীর ডেইলি স্টারে সিটিও ফোরাম বাংলাদেশ ‘ক্র্যাক দ্য কোড-প্রিভেন্ট অ্যাডভান্স থ্রেটস’ শীর্ষক সেমিনার উপলক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

 এসময় তিনি সেমিনারের উদ্দেশ্য এবং আয়োজনের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে গণমাধ্যমকে অবহিত করেন। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সাইবার অপরাধ, ঝুঁকি ও নিরাপত্তা বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিতে সেমিনারটির গুরুত্ব তুলে ধরেন।

 তিনি বলেন, বর্তমানে দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৫ কোটিরও বেশি। আর মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা সাড়ে তের কোটি। এই ক্রমবর্ধমান ইন্টারনেট ব্যবহার এবং সার্ভারনির্ভর কার্যক্রমে ঝুঁকির পরিমাণও কম নয়। বিশেষ করে ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান এবং পেশাজীবীদের ক্ষেত্রে। সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশও সাইবার ঝুঁকির আওতাভুক্ত।

 সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সিটিও ফোরামের সাধারণ সম্পাদক ড. ইজাজুল হক, ফোরামের কোষাদক্ষ মো. মইনুল ইসলাম চৌধুরী, সুলতান বাদশা, তসলিমুল হকসহ অন্যান্য সদস্যবৃন্দ।

 ‘ক্র্যাক দ্য কোয-প্রিভেন্ট এডভান্স থ্রেটস’ শিরোনামের সেমিনারটি অনুষ্ঠিত হবে সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় রাজধানীর ধানমন্ডী ক্লাবে। সিটিও ফোরাম বাংলাদেশ এবং পালো আল্টো নেটওয়ার্ক যৌথভাবে সেমিনারটির আয়োজন করেছে।

সিনিউজভয়েস/ডেক্স

Please Share This Post.