সফটওয়্যার উন্নয়নে ৮ শতাংশ সিএসই শিক্ষার্থী

বাংলাদেশে প্রতিবছর প্রায় ১০ হাজার কম্পিউটার প্রকৌশল স্নাতকের মধ্যে শতকরা ৮ ভাগ সফটওয়্যার উন্নয়নে অবদান রাখে বলে জানিয়েছেন বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বার।

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস সভাপতি মোস্তাফা জব্বার ২০ ফেব্রুয়ারি সোমবার, রাজধানীতে দেশের প্রথম মেশিন লার্নিং সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, প্রযুক্তিভিত্তিক দেশ গঠনে আমাদের জন্য সবচেয়ে বড় ঝুঁকি হচ্ছে দক্ষ মানব সম্পদ তৈরি করা। কম্পিউটার প্রকৌশলে শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে তাদের সফটওয়্যার উন্নয়নে উৎসাহিত করতে হবে। নাহলে আমাদের দেশীয় উন্নয়ন কার্যক্রমে বিদেশী প্রতিষ্ঠান সমূহের প্রভাব কমানো সম্ভব নয়।

প্রথম বাংলা লেখার সফটওয়্যার বিজয়ের উদ্ভাবক বলেন, প্রযুক্তির সম্প্রসারণের সঙ্গে সঙ্গে আমাদের তরুণ প্রজন্মরা বাংলা ভাষার বিকৃত ব্যবহারে নিজেদের অজান্তে অভ্যস্ত হচ্ছে। অনেকের অভিযোগ বাংলা ভাষা প্রযুক্তির সঙ্গে মানানসই নয়। বাংলা ভাষার প্রযুক্তিভিত্তিক উন্নয়নে এ জন্য ‘গবেষণা ও উন্নয়নের মাধ্যমে তথ্যপ্রযুক্তিতে বাংলা ভাষা সমৃদ্ধকরণ’ নামে ১৫৯ কোটি টাকার একটি প্রকল্প নিয়েছে আইসিটি বিভাগ।

তিনি আরো বলেন, বাংলায় সরাসরি কথা থেকে লেখা বা লেখা থেকে কথায় রূপান্তরসহ কম্পিউটিং জগতে বাংলা ভাষার ব্যবহার সম্প্রসারণে ১৬টি ক্ষেত্রে কাজ করা হবে। এক্ষেত্রে মুখে বাংলা বললেই তা সফটওয়্যারের মাধ্যমে টেক্সটে রূপান্তর করা যাবে। এছাড়া হাতে লেখা ও প্রিন্ট করা দলিলপত্র ইত্যাদি ব্যবহারযোগ্য বাংলা টেক্সট হিসেবে রূপান্তরের সফটওয়্যারও তৈরি হবে এ প্রকল্পের আওতায়।

সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ, প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান গুগলের বাংলাদেশে কমিউনিটি গুগল ডেভেলপার গ্রুপ (জিডিজি) এবং প্রযুক্তি গবেষণা প্রতিষ্ঠান প্রেনিউর ল্যাবের আয়োজনে আয়োজিত হয়েছে দেশের প্রথম মেশিন লার্নিং সম্মেলন।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল ভবনে অনুষ্ঠিত হয় চার ঘণ্টাব্যাপী টেনসর ফ্লো ডেভেলপার সামিট ২০১৭, যেখানে উপস্থিত ছিলেন দেশের মেশিন লার্নিং ডেভেলপার, আইসিটি বিভাগের কর্মকর্তা এবং টেলিকম প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা। তারা মেশিন লার্নিং এর অগ্রগতি এবং ভবিষ্যৎ সম্ভাবনা তুলে ধরেন।

গুগল ডেভেলপার গ্রুপের উপদেষ্টা ও প্রিনিয়ার ল্যাবের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফ নিজামী বলেন, বিশ্বব্যাপী কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ও যন্ত্র শিক্ষাভিত্তিক সফটওয়্যারের বাজার ক্রমাগত বাড়ছে। গুগলের এক জরিপ বলছে ২০৩৫ সাল নাগাত মেশিন লার্নিং পণ্যের বাজার দাঁড়াবে ৮ দশমিক ৩ ট্রিলিয়ন ডলার।

ইভেন্টটির আয়োজক গুগল ডেভেলপার গ্রুপের ম্যানেজার রাখশান্দা রুখাম বলেন, মেশিন লার্নিং ভবিষ্যতের প্রযুক্তি। আমরা চাই বাংলাদেশের ডেভেলপার, স্টার্টআপ, ফ্রিল্যান্সাররা যাতে আগেই থেকে প্রস্তুত থাকে এই প্রযুক্তি গ্রহণ এবং ব্যবহার করে ক্যারিয়ার গঠনে।

চার ঘণ্টাব্যাপী আয়োজনে বিভিন্ন অধিবেশনে অংশ নেন আইসিটি বিভাগের এলআইসিটি প্রকল্পের বিশেষজ্ঞ নাইল রহমান, রবির ডিজিটাল সার্ভিসের ব্যপস্থাপক মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন গ্রামীণফোনের হেড অব অ্যাপ ইকোসিস্টেম জাকিয়া জেরিন এবং প্রাইম টেকের প্রধান কারিগরি কর্মকর্তা মোহাম্মদ আসিফ আতিক।

গুগল ব্রেন টিম প্রথম টেনসর ফ্লো ডেভেলপ করেছিল গুগল এর গবেষণা এবং প্রডাকশন কাজের জন্য। বর্তমানে এটি পৃথিবীর বহুল ব্যবহৃত মেশিন লার্নিং টুল। গুগলের সব প্রডাক্টের পিছেই আছে টেনসর ফলো এর ব্যবহার। মেশিন লার্নিং বর্তমানে ডেভেলপার, ফ্রিল্যান্সার, স্টার্টআপ এবং ডেভেলপমেন্ট এজেন্সিগুলোর জন্য এক অবারিত সুযোগ। কিন্তু এর প্রসার এখনো বাংলাদেশে তেমনভাবে হয়নি। তাই এটি সম্পর্কে সকলকে বিস্তারিতভাবে জানানো গেলে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে অনেক উন্নতি করা সম্ভব।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.