সনি মিউজিক ও মোবিমিডিয়ার নতুন ডিজিটাল মিউজিক সেবা

 

শুধু হলিউড কিংবা বলিউড নয়, পৃথিবীর জনপ্রিয় সব মিউজিক রিলিজ হওয়ার পরই ডিজিটাল মাধ্যমে বৈধভাবে এখন পৌঁছে যাবে আপনার কাছে। এর সঙ্গে যুক্ত হবে বাংলাদেশের গান।

একই প্ল্যাটফর্মে আন্তর্জাতিক শিল্পীদের পাশাপশি বাংলাদেশি শিল্পীরা তাদের নিজেদের গান তুলে ধরতে পারবেন বিশ্ববাজারে। ডিজিটাল মিউজিকের অন্যতম বৃহৎ প্লাটফর্ম এমজ্যামস মিউজিককে বাংলাদেশি শ্রোতাদের কাছে নিয়ে আসতে যাচ্ছে মোবাইল কনটেন্ট ও প্রযুক্তির আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান মোবিমিডিয়া এবং শীর্ষ সংগীত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সনি মিউজিক।

এম-জ্যামস মূলত মোবাইল ফোন বা অনলাইনে গান শোনার একটি জনপ্রিয় অ্যাপ্লিকেশন। দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার কয়েকটি দেশে সফলতার পর বাংলাদেশসহ মিয়ানমার ও নেপালে নিজেদের কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে এমজ্যামস।

এম-জ্যামস মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে বাংলাদেশি শ্রোতাদের কাছে অনলাইনে গান শোনার এক নতুন অভিজ্ঞতার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতে যাচ্ছে বলে জানান মোবিমিডিয়ার আঞ্চলিক প্রধান ক্যামেরন জ্যাকসন। শুধু বৈধভাবে গান শোনাই নয়, এখানকার সংগীতপ্রেমিরা সবার আগে মানসম্পন্ন মিউজিক সেবা নিতে পারবেন। এখানে সনি মিউজিক লাইব্রেরি ও ওয়ারনার মিউজিক থেকে তারা পাবেন লাখ লাখ জনপ্রিয় গানের ভান্ডার। ইংরেজি গানের পাশাপাশি সনি মিউজিক ইন্ডিয়ার ব্যানারের জনপ্রিয় সব হিন্দি গানও থাকবে এখানে। গান শোনার সঙ্গে শিল্পীদের ছবি, মিউজিক ভিডিও, রিং ব্যাক টোন এবং গান ডাউনলোড করাও যাবে মোবিমিডিয়ার ডিজিটাল প্ল্যাটফরম থেকে।

বাংলাদেশে নতুন এই মিউজিক সেবা সম্পর্কে সনি মিউজিকের (ভারত ও মধ্য প্রাচ্য) প্রেসিডেন্ট শ্রীধর শুভ্রমনিয়ম বলেন, সংগীতাঙ্গনে বাংলাদেশে যথেষ্ঠ বাজার সম্ভাবনা রয়েছে। সনি মিউজিক আশাবাদী, এম-জ্যামসের মত শক্তিশালী এবং দক্ষ প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে মিলে এখানে বিশ্বমানের একটি সেবা চালু হতে যাচ্ছে।

ক্যামেরন জ্যাকসন আরো বলেন, শুধু শিল্পী, প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান তথা ব্যবসায়িক অংশীদাদের জন্যই নয়, শ্রোতা ও ব্যবহারকারী উভয়ের জন্যই লাইসেন্সিং সমস্যার সমাধান করতে যাচ্ছি আমরা। এখন বিভিন্ন জায়গায় বৈধভাবে আন্তর্জাতিক মিউজিক ব্যবহারের সুযোগ থাকবে। এছাড়া টেলিযোগাযোগ সেবার মাধ্যমে বাংলাদেশের বাজারে বৈধ কনটেনন্টের ব্যবহার নিশ্চিত করা যাবে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশে মোবিমিডিয়া ও এমজ্যামসের যোগাযোগ সমন্বয় প্রতিষ্ঠান কুকিজারের পক্ষ থেকে ইমরান মাহমুদ ইমন বলেন, বাংলাদেশি সংগীতকে বিশ্ববাজারে পৌঁছে দেওয়ার সবচেয়ে বড় সুযোগটি করে দিতে যাচ্ছে এমজ্যামস। চালু হলে এম-জ্যামস মিউজিক স্টোরে আমরা যেমন আন্তর্জাতিক মিউজিক শুনতে পারব, সারা পৃথিবীতে আমাদের গান পৌঁছে দেওয়ার একটি নতুন সুযোগও তৈরি হবে এর মাধ্যমে।

 

সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.