শেষ হল ঢাকা বিভাগের ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ’ এর ক্যাম্পাস পিচিং পর্ব

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের আওতায় বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল এর অধীনে “উদ্ভাবন ও উদ্যোক্তা উন্নয়ন একাডেমী প্রতিষ্ঠাকরণ শীর্ষক প্রকল্প” বা “আইডিয়া প্রকল্প” এর মাধ্যমে দ্বিতীয় বারের মত আয়োজিত হচ্ছে সারাদেশের শিক্ষার্থীদের নিয়ে উদ্ভাবনী ভাবনা ও উদ্যোক্তা খোঁজার আয়োজন “স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ” প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় অধ্যায়। দেশের অগ্রগতি এবং উন্নয়নে অবদান রাখতে যাদের উদ্ভাবনী পরিকল্পনা আছে এমন তরুণ উদ্যোক্তা খুঁজে বের করা এবং তাদের উদ্যোগগুলোর সঠিক বাস্তবায়নের জন্য ফান্ডিং করাই হল এই আয়োজনের মূল লক্ষ্য।

গত ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে আইডিয়া প্রকল্পের মাধ্যমে আয়োজিত “স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ: চ্যাপ্টার টু” এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক এমপি দেশের সকল শিক্ষার্থীদের এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে অনুরোধ জানান। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখ বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখ মাওলানা ভাষানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (টাঙ্গাইল) এবং সবশেষে ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, ঢাকায় সফলভাবে আয়োজিত হয় ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ’ এর দ্বিতীয় অধ্যায়ের ক্যাম্পাস পিচিং পর্ব। উল্লেখিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী স্টার্টআপদের ক্যাম্পাস পিচিং এর মাধ্যমে অঞ্চলসমূহের প্রাথমিক বাছাই সম্পন্ন করা হয়।

গতকাল ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ এ আয়োজিত ক্যাম্পাস পিচিং-এ প্রায় ৩৪৫টি স্টার্টআপ অংশগ্রহণ করে যেখানে উপস্থিত হয় প্রায় ৫ শতাধিক শিক্ষার্থী। স্টার্টআপগুলো তাদের বিজনেস আইডিয়া বিচারকদের সম্মূখে উপস্থাপন করে। উক্ত ক্যাম্পাস পিচিং এ বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামের ফাউন্ডার আরিফুল হাসান অপু, নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির সিনিয়র লেকচারার শারমিনা জামান, আইডিয়া প্রকল্পের ডেভেলপমেন্ট ও কমার্শিয়ালাইজেশন বিষয়ক পরামর্শক দেওয়ান আদনান ও প্রকল্পের রিসার্স অফিসার আশিকুর ইসলাম। ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ’ বিষয়ক একটি ওয়ার্কশপের মাধ্যমে অংশগ্রহণকারী স্টার্টআপদের নিয়ে সকালে ক্যাম্পাস পিচিং শুরু হয়। এছাড়া এই আয়োজনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ-এর সম্মানিত ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য প্রফেসর মিলান পাগন এবং স্কুল অব বিজনেস এর ডিন প্রফেসর মো: আমিনুল করিমসহ অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ, সিআরআই এর প্রতিনিধি এবং ইয়াং বাংলার ক্যাম্পাস অ্যাম্বাসেডর ও তার দল।

উল্লেখ্য যে, সারাদেশের ১০০টির বেশি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে ২৫ টি ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত এ প্রতিযোগিতা থেকে ৭৫ টি প্রকল্প বাছাই করার পরিকল্পনা করা হয়। প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত স্টার্টআপদের ৩দিনের “জাতীয় স্টার্টআপ ক্যাম্প”- এ ‘আইডিয়া’ প্রকল্পের বাছাই কমিটি এবং অভিজ্ঞ বিচারকগণের মাধ্যমে নির্বাচন করা হবে জাতীয় পর্যায়ে সেরা ১০ উদ্ভাবনী ভাবনা বা স্টার্টআপ। বিজয়ী ১০ টি স্টার্টআপের প্রতিটিকে ১০ লক্ষ টাকা করে অনুদান দেয়া হবে । সেই সঙ্গে শীর্ষ ৩০-এ থাকা অপর ২০ স্টার্টআপও রানারআপ হিসেবে আইডিয়া প্রকল্প থেকে গ্রুমিং ও বিশেষ প্রশিক্ষণ নেয়ার সুযোগ পাবে। প্রশিক্ষণ শেষে স্টার্টআপ গুলো প্রস্তুত হলে তাদের জন্যও অনুদান প্রদান করবে আইডিয়া প্রকল্প। স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, বিশ্ববিদ্যালয় সহ যেকোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ১-৩ সদস্য বিশিষ্ট গঠিত টিম নিয়ে অংশগ্রহণ করার সুযোগ পায় এই প্রতিযোগিতায়। উদ্ভাবনী ভাবনা ও উদ্যোক্তা খোঁজার এই আয়োজনের সহোযোগিতায় আছে সেন্টার ফর রিসার্চ এন্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) এর ‘ইয়াং বাংলা’ প্ল্যাটফর্ম।

 

-সিনিউজভয়েস/ডেক্স/০৩অক্টো./১৯

Please Share This Post.