শেষ হলো ড্যাফোডিল অনলাইন লার্নিং সামিট

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ও বাংলাদেশ সরকারের এটুআই প্রকল্পের যৌথ আয়োজনে অনুষ্ঠিত তিন দিনব্যাপী (১৪-১৬ মে) ‘অনলাইন লার্নিং সামিট-২০২০’ এর সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ শনিবার (১৬ মে) ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফেসবুক পেজে অনুষ্ঠিত লাইভ সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, এমপি এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এটুআইয়ের পলিসি স্পেশালিস্ট আফজাল হোসেন সারোয়ার।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস এম মাহবুব উল হক মজুমদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ড্যাফোডিল পরিবারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ নূরুজ্জামান এবং অনলাইন লার্নিং সামিটের আহ্বায়ক ও কম্পিউটিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেম বিভাগের প্রধান সারোয়ার হোসেন মোল্লা। অনুষ্ঠানটি স ালনা করেন বিএসডিআই-এর নির্বাহী পরিচালক কে এম হাসান রিপন।

তিন দিনের এই সামিটে বিভিন্ন আয়োজনের মধ্যে শিক্ষার্থী বিতর্ক প্রতিয়োগিতায় অংশ নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ভিকারুন নিসা নুন স্কুল অ্যান্ড কলেজের দুই শিক্ষার্থী রাফসা আনজুম প্রশংসা ও নওরীন নাহার। রানার আপ হয়েছে বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক কলেজের দুই শিক্ষার্থী মো. মুনজের ইরফান ও মাহমুদুল হাসান। সেরা বিতার্কিক হয়েছে মোঃ মুনজের ইরফান।

অপরদিকে অনলাইন টিচিং বেস্ট প্র্যাকটিসেস অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন নীলফামারির রানাচান্দি স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক ইবুল হাসান তুষার। এ বিভাগে প্রথম রানার আপ হয়েছেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির শিক্ষক অমিত চক্রবর্তী এবং দ্বিতীয় রানার আপ হয়েছেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজের শিক্ষক ফারহানা জাহান লতা।

বিজয়ীদের অভিনন্দন জানিয়ে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, জ্ঞানভিত্তিক অর্থনীতি গড়ে তুলতে হলে শিক্ষাকে যুগপোযোগী করা ছাড়া উপায় নেই। এক্ষেত্রে আমাদেরকে অনলাইন শিক্ষা ব্যবস্থায় প্রবেশ করতেই হবে। ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি একটি সময়পযোগী সামিটের আয়োজন করেছে, এ জন্য তিনি ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়কে ধন্যবাদ জানান। তিন দিনের এই সামিট থেকে যেসব সুরারিশ ও সমাধান উঠে এসেছে তার সারসংক্ষেপ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর অনরোধ করেন মন্ত্রী।

উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী আরও বলেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে শুধু ব্যবসাবান্ধব বিষয়গুলো পড়ালেই চলবে না, বিজ্ঞানের মৌলিক বিষয় এবং সামাজিক বিজ্ঞানের বিষয়গুলোও পড়াতে হবে। পাশাপাশি কারিগরি সংক্ষিপ্ত কোর্সগুলোও চালু করতে হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। এ সময় শিক্ষা উপমন্ত্রী ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিনামূল্যে ল্যাপটপ কর্মসূচীর প্রশংসা করে বলেন, শিক্ষার্থীদের হাতে প্রযুক্তির সুফল তুলে দিতে ড্যাফোডিল বিনামূলে ল্যাপটপ বিতরণ করে যা খুবই প্রশংসনীয় উদ্যোগ। অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়কে এভাবে এগিয়ে আসা উচিত।

 

সিনিউজভয়েস/ডেক্স/১৭মে/২০

 

 

Please Share This Post.