শুরু হচ্ছে ‘উই ক্যান-ড্যাফোডিল অ্যাপস ফেলোশিপ ২০১৬’

 

আমরাই পারি, বাংলাদেশ (উই ক্যান, বাংলাদেশ) ও ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি (ডিআইইউ) এর আয়োজনে ‘উই ক্যান-ড্যাফোডিলঅ্যাপস ফেলোশিপ ২০১৬’ এর ওপর সংবাদ সম্মেলন ৩১ জানুয়ারি রাজধানীর ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিটির ভিআইপি লাউঞ্জে অনুষ্ঠিত হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি (ডিআইইউ) – এর ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. ইউসুফ এম ইসলাম। ডিআইইউ এর পরিচালক (স্টুডেন্ট অ্যাফেয়ার্স) সৈয়দ মিজানুর রহমানের পরিচালনায় সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন, আমরাই পারি, বাংলাদেশের চেয়ারপারসন সুলাতানা কামাল, ড্যাফোডির ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান মোঃ সবুর খান, সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান ও সহযোগী অধ্যাপক ড. তৌহিদ ভূঁইয়া ও আমরাই পারি, বাংলাদেশ এর জাতীয় সমন্বয়ক জিনাত আরা হক।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ১ ফেব্রুয়ারি থেকে অনলাইন নিবন্ধনের মাধ্যমে এই প্রতিযোগিতার কার্যক্রম শুরু হবে। রেজিস্ট্রেশন চলবে ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ পর্যন্ত। এরপর বিজ্ঞ বিচারকমন্ডলীর রায়ে বাছাই করা অ্যাপস্ সমূহকে মূল প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করার সুযোগ দেয়া হবে। ১৬ থেকে ৩০ বছর বয়সী যে কেউ এ অ্যপস্ প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণ করতে পারবে। চূড়ান্ত পর্ব অনুষ্ঠিত হবে ৫ মার্চ ২০১৬।

সংবাদ সম্মেলনে আরো জানানো হয়, এ প্রতিযোগীতার মাধ্যমে নারী অধিকার বিষয়ক এমন অ্যাপস তৈরি করা হবে যা আমরাই পারি ও ড্যাফোডিলের সঙ্গে ‘পরিবর্তনকামী’ হিসেবে নারীদের অধিকার আদায়ে কাজ করতে সাহায্য করবে। অংশগ্রহণকারীদের কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং, আইন, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা ও সাহিত্য বিষয়ের সমন্বয়ে ৫ সদস্য বিশিষ্ট এক একটি দল গঠন করতে হবে। প্রাথমিক বাছাইয়ে ২০টি দল এবং চূড়ান্ত পর্বে ৮টি দলের মধ্য থেকে সেরা বিজয়ী নির্বাচন করা হবে। বিজয়ীদের ২ লক্ষ টাকার প্রথম পুরস্কারসহ মোট ৫ লক্ষ টাকার ৫টি পুরস্কার প্রদান করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আমরাই পারি, বাংলাদেশের জাতীয় সমন্বয়ক জিনাত আরা হক জানান, নারীর প্রতি সহিংসতার বিরুদ্ধে কীভাবে ‘আমরাই পারি’ কাজ করে আসছে। তিনি বলেন, তাঁদের কাজের লক্ষ্য হিসেবে তারা কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের নিয়ে এই অ্যাপস প্রতিযোগিতার আয়োজন করতে যাচ্ছেন। তিনি আরও বলেন, তাঁরা সহকর্মী হিসেবে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিকে বেছে নিয়েছেন, কারণ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির জন্য এই বিশ্ববিদ্যালয়ের যথেষ্ট সুনাম রয়েছে।

 

 

সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.