শিশুদের প্রোগ্রামিং শেখার কিছু টুলস

আমরা এখন বাস করছি ডিজিটাল যুগে। চারপাশে কম্পিউটার, মোবাইল ফোন আর ট্যাবলেটসহ নানা নতুন গ্যাজেট। আজকাল এমনকি তিন বা চার বছর বয়সী শিশুর হাতেও আইফোন বা হাই-ফাই কোনো গ্যাজেট খেলনার মত শোভা পায়। কেবল তাই নয়, ওয়েবের নানা অ্যাপ ব্যবহারেও তারা পারদর্শী হয়ে উঠছে। প্রযুক্তিকে যখন তারা এতটাই আপন করে নিতে পেরেছে তখন তাদের প্রিয় প্রযুক্তির পেছনের ঘটনাও তাদের জানা উচিত। হ্যাঁ, আমি বলছি প্রযুক্তির পেছনের প্রযুক্তি মানে প্রোগ্রামিংয়ের কথাই। শিশুদেরকে অল্প বয়স থেকেই প্রোগ্রামিংয়ের হাতেখড়ি দেয়া উচিত যাতে করে তারা বড় হয়ে সহজেই এটিতে আস্তস্থ করে নিতে পারে।

আসুন আজ আমরা জেনে নিই এমন কয়েকটি শিক্ষামূলক ওয়েব টুল সম্বন্ধে যেগুলো আপনার শিশুর প্রোগ্রামিং শেখার পথকে মসৃণ করে তুলতে পারে। এখানে যেসব টুলের কথা বলা হল তার প্রায় সবগুলোই ভিজুয়ার প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজের ওপর ভিত্তি করে তৈরি। এখানে আছে ড্র্যাগ-ড্রপ ইন্টারফেস, কাজেই আপনার শিশু এগুলো ব্যবহার করে খেলার ছলে তার প্রোগ্রামিং জ্ঞানকে বৃদ্ধি করতে পারবে।

১। হপস্কচ (Hopscotch)

হপস্কচ দাবি করছে যে, প্রোগ্রামিং হচ্ছে ছেলেবুড়ো সবার জন্য। তাদের এ দাবির পেছনে যথেষ্ট কারণও আছে। কারণ তারা এমন একটি টুল তৈরি করতে পেরেছে যেটি ব্যবহার করে আপনার শিশুকে খুব সহজে প্রোগ্রামিংয়ের মৌলিক জ্ঞান দিতে পারবেন। বর্তমানে কেবল আইপ্যাডেই হপস্কচ অ্যাপ-এর ফ্রি ভারসনটি ডাউনলোড করতে পারবেন। এটি ব্যকবহার করে শিশুরা নিজস্ব গেম, গল্প, অ্যানিমেশন তৈরি করতে পারবে। আরো পারবে কোড-এর ব্লক ড্র্যাগ ও ড্রপ করার মাধ্যমে অনেক ইন্টার‌্যাকটিভ প্রোগ্রামও তৈরি করতে। আইপ্যাডকে নাড়াচাড়া, ঝাঁকানো এমনকি এটির উদ্দেশে চিৎকার করেও প্রোগ্রামের কারেক্টারগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।

২। স্ক্র্যাচ (Scratch)

স্ক্র্যাচ হচ্ছে অনলাইন কমিউনিটির জন্য তৈরি একটি প্রোগ্রামিং টুল। যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত এমআইটি মিডিয়া ল্যাবের লাইফলং কিন্ডারগার্টেন গ্রুপ এটি তৈরি করেছে। এটি বিনা পয়সায় ব্যবহার করার উপযোগী একটি ওয়েব সেবা যেটি ব্যবহার করে আপনার শিশু তার নিজস্ব অ্যানিমেশন, গেম ও গল্প তৈরি করতে পারবে। এরপর নিজেদের সৃষ্টিকে বিশ্বের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা স্ক্র্যাচ কমিউনিটির সদস্যদের সাথে অনলাইনে শেয়ারও করতে পারবে তারা।

৩। অ্যালিস (Alice)

অ্যালিস একটি ফ্রি থ্রিডি প্রোগ্রামিং টুল যেটি ব্যবহার করে গল্প বলা, ইন্টার‌্যাকটিভ ভিডিও গেম খেলা বা তৈরি করার সুযোগ আছে। তৈরি করা গেম বা ভিডিওকে ইচ্ছে করলেই ওয়েবে শেয়ার করাও সম্ভব। অ্যালিসের প্রধান উদ্দেশ্য হচ্ছে শিশুদেরকে অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিংয়ের প্রথম পাঠটি দেয়া। এটি ব্যবহার করে শিশুরা মানুষ, পশুপাখি ও গাড়িঘোড়াসমৃদ্ধ অ্যানিমেটেড মুভি তৈরি করতে পারবে, পারবে সহজসরল ভিডিও গেম তৈরি করতেও।

৪। টিংকার (Tynker)

টিংকার হচ্ছে একটি অনলাইন প্রোগ্রামিং লার্নিং সিস্টেম যার উদ্দেশ্য হচ্ছে শিশুরা যাতে তাদের সৃষ্টিশীলতাকে কাজে লাগিয়ে গেম, প্রজেক্ট ও অ্যানিমেটেড গল্প তৈরি করতে এবং তাদের নিজস্ব অ্যাপ ওয়েবে বিতরণ করতে পারে সে ব্যাপারে সাহায্য করা। টিংকারে সহজসরল ভিজুয়াল প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ ব্যবহার করা হয়েছে যাতে কোনো প্রোগ্রামিং সিনট্যাক্স-এর দরকার হয় না, দরকার হয় কেবল কোডের ব্লক। ব্লকগুলোকে পরপর সাজালেই প্রোগ্রাম তৈরি হয়ে যাবে। লাইফটাইম অ্যাকসেসের জন্য নির্দিষ্ট ফি দিতে হয়, তবে এর পাশাপাশি টিংকারের অনলাইন সেলফ-পেস্ড কোর্স, মোবাইল পাজল ও সামার ক্যাম্পও আছে।

৫। হ্যাকেটি হ্যাক (Hackety Hack)

হ্যাকেটি হ্যাক একটি সহজে ব্যবহারযোগ্য প্রোগ্রামিং টুল যেটি ব্যবহার করে আপনার শিশুকে প্রোগ্রামিং-এর একেবারে মৌলিক দিকগুলোর সাথে পরিচয় করিয়ে দিতে পারেন। হ্যাকেটি হ্যাক ব্যবহার করার জন্য প্রোগ্রামিং-এ কোনো পূর্ব অভিজ্ঞতা বা জ্ঞানের প্রয়োজন নেই। এটি রুবি প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজের ওপর ভিত্তি করে তৈরি। রুবি সাধারণত ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশন বা ওয়েব সাইট তৈরির জন্য ব্যবহৃত হয়। হ্যাকেটি হ্যাক-এর শোজ টুল ব্যবহার করে গ্রাফিক্যাল ইন্টারফেস তৈরি করা বেশ সহজ।

৬। কোডেবল (Kodable)

কোডেবল আইপ্যাডের জন্য তৈরি একটি ফ্রি প্রোগ্রামিং অ্যাপ। এর ট্যাগলাইন হচ্ছে ‘পড়তে শেখার আগেই কোড করতে শিখুন’। নিজেদের এ স্লোগানকে বাস্তবে রূপ দেয়ার জন্যই ফান গেমের মাধ্যমে শিশুদের প্রোগ্রামিং শেখানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে এই অ্যাপে। পাঁচ বছর থেকে বেশি বয়সী শিশুদের প্রোগ্রামিং শেখার জন্য বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে কোডেবলকে। অল্প কিছু নির্দেশনা অনুসরণ করেই ফান গেমের মাধ্যমে তারা প্রোগ্রামিং শিখে ফেলতে পারবে। কোডেবলে আছে প্রোগ্রামিং শেখার জন্য তিনটি লেভেল – কে-টু গ্রেড, থার্ড-ফিফথ গ্রেড ও সিক্সথ-টুয়েলফ্থ গ্রেড।

৭। স্টেনসিল (Stencyl)

স্টেনসিল একটি দ্রুতগতির, ব্যবহারকারী-বান্ধব ও ফ্রি প্রোগ্রামিং লারনিং টুল। একটি সহজে ব্যবহারযোগ্য ড্র্যাগ-অ্যান্ড-ড্রপ ইন্টারফেস (কোডের ব্লক টেনে এনে) ব্যবহার করে খেলার ছলে প্রোগ্রামিং শেখার সুযোগ আছে এই টুলে। এটি ব্যবহারের জন্য কোনোরকম কোডিং জানার দরকার হয় না। যারা এর ব্লক-স্ন্যাপিং ইন্টারফেসটি ব্যবহার করতে চায় না তাদের জন্য কোড লেখার মাধ্যমে প্রোগ্রামিংয়ের ব্যবস্থাও আছে। স্টেনসিলের প্লাটফর্ম সাপোর্ট সুবিধা বেশ বিস্তৃত। স্টেনসিলে তৈরি করা গেম অ্যান্ড্রয়েড, আইওএস, উইন্ডোজ, ম্যাক ও লিনাক্সে খেলা যায়।

-সিনিউজভয়েস/ডেক্স/২২জুলাই/১৯

 

Please Share This Post.