শিশুদের কম্পিউটার প্রোগ্রামিংয়ের সঙ্গে পরিচয় করালো মাইক্রোসফট

৩ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার, বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) বেসিস সফট এক্সপো-২০১৭ তে ‘কোডিং ফর কিডস’ শীর্ষক দু’ ঘণ্টাব্যাপী একটি কর্মশালার আয়োজন করেছে মাইক্রোসফট বাংলাদেশ। কর্মশালাটি, বাংলাদেশের শিশুদের কম্পিউটার প্রোগ্রামিং- এর সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয়ার মাইক্রোসফটের বৃহত্তর উদ্যোগেরই একটি অংশ। কর্মশালাটি দেশের সবকটি স্কুলের ১ম থেকে ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য উন্মুক্ত ছিল।

কর্মশালায় মাইক্রোসফট বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোনিয়া বশির কবির ছাড়াও প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের যুগ্ম-সচিব ও পরিচালক (পলিসি ও অপারেশন) আবদুর রব এবং এটুআই, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের স্থানীয় উন্নয়ন বিশেষজ্ঞ নাইমুজ্জামান মুক্তা।

বিভিন্ন বিদ্যালয়ের ১ম থেকে ৮ম শ্রেণির ৪০০ জন শিক্ষার্থী কর্মশালাটিতে অংশগ্রহণ করে। কর্মশালাটি সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালাটি পরিচালনা করেন মাইক্রোসফট এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের সাউথইস্ট এশিয়া নিউ মার্কেটস- এর ডেভলপার এক্সপেরিয়েন্স লিড ওয়েলিংটন পেরেরা। কর্মশালাটি সঞ্চালনা করেন প্রথম আলোর ইয়ুথ প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর মুনির হাসান। এই ৪০০ জন অংশগ্রহণকারীর প্রত্যেককেই মাইক্রোসফটের ব্র্যান্ড অ্যামবাসেডর হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হয়।

মাইক্রোসফট বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোনিয়া বশির কবির বলেন, ‘বর্তমান বিশ্বে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও সামাজিক রুপান্তরের ক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তির প্রয়োজনীয়তা অপরিহার্য। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রচুর তরুণ জনসংখ্যা রয়েছে। এ তরুণ প্রজন্মকে উপযুক্ত প্রযুক্তিগত দক্ষতায় দীক্ষিত করা গেলে তারা দেশকে আন্তর্জাতিকভাবে প্রযুক্তি-নির্ভর উন্নত অর্থনীতির দেশ হিসেবে পরিণত করতে অবদান রাখতে পারবে। আর তাই আমরা দেশের প্রতিভাসম্পন্ন তরুণ প্রজন্মের ধারণাশক্তি উন্নয়নের লক্ষ্যে বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করার পাশাপাশি নানারকম ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘আজকের আয়োজনে শিশুদের অংশগ্রহণ দেখে এটিই প্রতীয়মান হয় যে, বর্তমান সময়ের আধুনিক চিন্তাধারার অভিভাবকরা চান তাদের সন্তানরা যেনো উন্নত বিশ্বের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করার সামর্থ্য রাখে। এসব বিবেচনায় আমি আশা করতে পারি যে, আগামি কয়েক বছরের মধ্যে বাংলাদেশ ডিজিটাল দেশে পরিণত হবে, আর এ পথচলায় দেশের সঙ্গে থাকতে পেরে মাইক্রোসফট গর্বিত।’

৫ ফেব্রুয়ারি, মাইক্রোসফটের গুলশান কার্যালয়ে প্রথম ১৫০ জন শিশুকে কোডিং সংক্রান্ত আরো দীক্ষা দেওয়া হবে এবং কোডিং করার জন্য প্রত্যেককে স্মার্টফোন প্রদান করা হবে।

উল্লেখ্য, ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়েছে বেসিস সফট এক্সপো ২০১৭। বৃহত্তম এ আয়োজন শেষ হবে ৪ ফেব্রুয়ারি। মাইক্রোসফট বাংলাদেশ লিমিটেড এতে প্ল্যাটিনাম স্পন্সর হিসেবে অংশ নিয়েছে।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.