শিল্পীর অনুমতি ছাড়া ওয়েলকাম টিউন ব্যবহার নয়

গীতিকার, সুরকার ও শিল্পীর অনুমোদন ছাড়া মোবাইল অপারেটররা ওয়েলকাম টিউন ব্যবহার করতে পারবে না বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে বিভিন্ন মোবাইল অপারেটরের প্রতিনিধি এবং সঙ্গীতশিল্পী, সুরকার ও গীতিকারদের সঙ্গে বৈঠকে এ কথা জানান তিনি।

‘কনটেন্ট ডেভেলপার’ নামের এক শ্রেণির মধ্যস্বত্বভোগী ব্যবসায়ীরা গীতিকার, সুরকার ও শিল্পীদের অনুমতি না নিয়ে বা অবৈধ চুক্তিপত্র দেখিয়ে মোবাইল কোম্পানিগুলোর কাছে গানের স্বত্ব বিক্রি করছে বলে দীর্ঘদিন থেকে অভিযোগ করে আসছে শিল্পী-কুশলী সমাজ। এরই পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রণালয়ে শিল্পী-কুশলীসহ মোবাইল কোম্পানিগুলোর প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন তারানা হালিম।

বৈঠকে শিল্পীদের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, মোবাইল কোম্পানিগুলো যাচাই-বাছাই না করেই যাকে-তাকে গানের বিনিময়ে টাকা দিয়ে দিচ্ছে। অথচ আমরা শিল্পী-কুশলীরা দুস্থ জীবন-যাপন করছি।

মোবাইল কোম্পানির বিভিন্ন প্রতিনিধির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, কনটেন্ট ডেভেলপারদের কাছ থেকে নো অবজেকশন সার্টিফিকেট (এনওসি) পাওয়ার পরই তারা গান ব্যবহার করেন।

তবে কোম্পানিগুলো এটাও স্বীকার করে যে, কনটেন্ট ডেভেলপারদের কাছ থেকে পাওয়া এনওসি তারা যাচাই করে দেখেন না।

এ বিষয়ে শিল্পীদের পক্ষ থেকে মাইলস ব্যান্ডের সাফিন আহমেদ বলেন, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় থেকে বিএলসিপিএসকে অথরিটি দিয়ে এসব বিষয় দেখাশোনার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এখন মোবাইল কোম্পানিগুলো বিএলসিপির সঙ্গে যোগাযোগ করে তা বাস্তবায়ন করলে কোনো সমস্যা হবে না।

পরিপ্রেক্ষিতে তারান হালিম বলেন, আমার মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে আগামীকালই (বুধবার) এ-সংক্রান্ত একটি চিঠি সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ে পাঠাব। সংস্কৃত মন্ত্রণালয়কে বিএলসিপিএসের সঙ্গে মোবাইল কোম্পানিগুলোকে ওয়েলকাম টিউনে গান ব্যবহার-সংক্রান্ত বিষয়ে যোগাযোগ করার চিঠি প্রদান করতেও অনুরোধ জানাব।

বৈঠকে উপস্থিত থাকা সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিকেও এ বিষয়ে দিকনির্দেশনা দেন প্রতিমন্ত্রী।

কোম্পানির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলার পর মোবাইল কোম্পানিগুলো সরকারের এ সিদ্ধান্তের বিষয়ে তাদের অবস্থান জানাবে বলে বৈঠকে উল্লেখ করা হয়। এ ক্ষেত্রে প্রতিমন্ত্রী বলেন, শিল্পীদের স্বার্থ রক্ষার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা সরকার নেবে। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার জন্য অবশ্যই বেসরকারি কোম্পানিগুলোর অবদান অনেক। কিন্তু, সংস্কৃতিকর্মীদের বঞ্চিত করে কোনো উদ্যোগ নেওয়া যাবে না।

বৈঠকে কণ্ঠশিল্পী সাবিনা ইয়াসমিন, এন্ড্রু কিশোর, সুজিত মোস্তফা, গীতিকার ও সুরকার আলাউদ্দিন আলীসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব মো. ফয়জুর রহমান চৌধুরী, বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান লে. জে. (অব.) আহসান, মহাপরিচালক ব্রি. জে. বারীসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সিনিউজভয়েস/ডেক্স

Please Share This Post.