রেস্টুরেন্ট সেবায় নতুন মোবাইল প্রযুক্তি ‘লেটস ইট’

দেশব্যাপী কয়েক হাজার রেস্টুরেন্টে বছর জুড়েই চলে বৈচিত্রপূর্ন খাবারের মহাযজ্ঞ। বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে কারা, কখন, কতো ছাড় দিচ্ছে, সাধ্যের মধ্যে ভলো খাবার কোথায় আছে, খাবার মেন্যু, দরদাম ইত্যাদি তথ্য ঘরে বসেই জানতে স্মার্টফোনে ‘লেটস ইট’ (Let’s Eat) থাকলেই হলো। এটি মূলত রেস্টুরেন্ট মালিকদের দ্বারা পরিচালিত অনলাইন মার্কেট প্লেস লেটস যা গাইড হিসেবে ভেজনরশিকদের নানা তথ্য সরবরাহ করে থাকে। রেস্টুরেন্ট বিষয়ক দেশের পূর্নাঙ্গ এই মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন শুধু ভোজনরসিকরা নয়, রেস্টুরেন্ট মালিকরাও ব্যবহার করতে পারবেন। লেটস ইটের দুটি অ্যাপ আছে যার মধ্যে একটি এন্টারপ্রাইজ যা শুধু নিবন্ধিত রেস্টুরেন্টগুলো ব্যবহার করতে পারবে। অন্যটিঁ কনজ্যুমার অ্যাপ যা যে কেউ ব্যবহার করতে পারবে। উদ্ভাবনী এই মোবাইল প্রযুক্তি সম্প্রতি স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠানগুলো নিয়ে সবচেয়ে বড় প্রতিযোগিতা ‘ইনোভেশন এক্সট্রিম’-এ নির্বাচিত ২৫টি নতুন উদ্যোগের মধ্যে সেরা পাঁচে স্থান করে নিয়েছে।

‘লেটস ইট’ এর এন্টারপ্রাইজ অ্যাপ ব্যবহার করে রেস্টুরেন্টের মালিক, কর্মীরা খুব সহজেই নিজের রেস্টুরেন্টে বিভিন্ন অফার, মূল্য ছাড়, মেন্যু, দাম বাড়া-কমার তথ্য নিজেই হালনাগাদ করতে পারবেন। রেস্টুরেন্টের মালিক-কর্মকর্তারা এন্টারপ্রাইজ অ্যাপে নিজস্ব ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে যে কোন তথ্য ও ছবি সংযুক্ত করতে পারবেন। মাই রেস্টুরেন্ট প্যানেলে গিয়ে নিজের রেস্টুরেন্টের মেন্যু, খাবারের মূল্য, নতুন অফার হালনাগাদ করতে পারবেন। এছাড়া তাঁর রেস্টুরেন্ট কতজন ব্যবহারকারী, কতবার দেখেছেন, কতগুলো লাইক দিয়েছেন, ইউজার রেটিং, রিভিউ সবকিছু দেখতে পাবেন। টাইম লাইন মেন্যুতে গিয়ে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে তার রেস্টুরেন্টে কবে কি ঘটেছে তাও জানতে পারবেন। রেস্টুরেন্টের ভেতরের ছবি আপলোড করা থেকে শুরু রেস্টুরেন্টের মেন্যুও হুবহু স্ক্যান কপি আপলোড করতে পারবেন। এছাড়া মাই অ্যাকাউন্ট সেকশনে গিয়ে নিজের ইউজারনেম, পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করতে পারবেন।
লেটস ইটের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান বলেন, ‘লেটস ইট’ কে আমরা শুধু ব্যবহারীদের মধ্যে সিমাবদ্ধ না রেখে রেস্টুরেন্ট মালিকদের কথাও ভেবেছি। তাই তাদের জন্য আমাদের বিশেষ আয়োজন। একটি পূর্নাঙ্গ অ্যাপ তখনই স্বার্থক হয়, যদি সেটা নিয়মিত হালনাগাদ হয়। আর এই কাজটি আমাদের কর্মীবাহিনী ছাড়াও আমাদের টেকিনিক্যাল টিম এবং রেস্টুরেন্ট মালিক-কর্মীরা মিলে করবে। এতে আমরা নিশ্চয়তা দিতে পারবো যেকোন রেস্টুরেন্টে নতুন কিছু আসা মনেই ‘লেটস ইট’।
তিনি বলেন, লেটস ইট ব্যবহারকারীদের মধ্যে ব্যাপক সাঁড়া জাগিয়েছে। মাত্র তিনমাসের মধ্যেই এর ডাউনলোড ৪০ হাজার ছাড়িয়েছে। আমরা খুব শিগগিরই এর আরেকটি নতুন সংস্করন ছাড়তে যাচ্ছি যাতে ব্যবহারকারীরা আরো চমৎকার সব অফার, তথ্য ও সেবা পাবেন।
লেটস ইটে পাওয়া যাবে রেস্টুরেন্টের নাম, ঠিকানা, ফোন নাম্বার, মেনু, জিপিএস লোকেশন ও অন্যান্য তথ্যাদি। এছাড়া রেস্টুরেন্ট খোলার সময়, খাবারের মূল্য তালিকা, মান সম্পর্কে ক্রেতাদের রিভিউসহ নানা তথ্য পাওয়া যাবে। এছাড়া মৌসুমে রেস্টুরেন্টে চলে নানা মূল্য ছাড়, অফার যা জানা যাবে ‘লেটস ইট’ থেকে।
লেটস ইট ব্যবহারকারীরা তাদের নিজস্ব প্রোফাইলে ফলোয়ার, খাবারের ছবি, রিভিউ ইত্যাদি সংযুক্ত করতে পারবেন। অবস্থান খুঁজে পেতে সরাসরি গুগল ম্যাপে দেখা যাবে রেস্টুরেন্টের অবস্থান। এই অ্যাপ্লিকেশনে আছে সার্চ অপশন যা ব্যবহার করে দ্রুত রেস্টুরেন্ট ও বিশেষত্ব খুঁজে পাওয়া যাবে। এছাড়া রেটিং অপশন থেকে ক্রেতা তার অভিজ্ঞাতা জানিয়ে ভালো-মন্দ রেটিং দিতে পারবেন। ‘লেটস ইট’-এ আছে সোশ্যাল শেয়ারিং অপশন যা ব্যবহার করে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতেও শেয়ার করা যাবে।
এছাড়া কোন রেস্টুরেন্ট কোন বিশেষ অফার দিলে স্মার্টফোনে চলে আসবে তার নোটিফিকেশন। এক কথায় রেস্টুরেন্টের তথ্য জানতে এখন আর কোথাও যেতে হবে না, শুধু ‘লেটস ইট’ থাকলেই হলো
‘লেটস ইট’ অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড লিংক:
গুগুল প্লে স্টোর: http://goo.gl/ZQwhGv
অ্যাপল অ্যাপ স্টোর: https://goo.gl/zQCdV4

-সিনিউজভয়েস/ডেক্স

Please Share This Post.