রিভ গ্রুপের অনন্য উদ্যোগ

এক যুগেরও বেশি সময় ধরে বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন সফটওয়্যার সমাধান দিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশী বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান রিভ সিস্টেমস । এবার রিভ গ্রুপের বিভিন্ন দেশের সহকর্মীদের হাত ধরে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ছে স্বেচ্ছায় রক্তদান কার্যক্রম। রমজানে রক্তের স্বল্পতা পূরণে প্রতিবছর এই রোজার সময়টাকেই বেছে নিয়েছে রিভ গ্রুপ।

২০০৪ সালে রিভের ঢাকা কার্যালয়ের ১২ জন সহকর্মী একসঙ্গে রক্তদানকরেএই উদ্যোগের সূচনা করেছিলেন। আর এ বছর সপ্তাহব্যাপী স্বেচ্ছায় রক্তদান কার্যক্রমে অংশ নিচ্ছেন রিভ গ্রুপের বিভিন্ন দেশের কর্মীরা।

২৬ জুন রোববার, থেকে শুরু হওয়া রক্তদান কর্মসূচিতে সিঙ্গাপুরে রক্ত দান করেন প্রতিষ্ঠানের গ্রুপ সিইও এম রেজাউল হাসান ও প্রধান কার্যালয়ের কর্মীরা। কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের সার্বিক সহযোগিতায় ঢাকার বাড্ডাস্থ ফ্যাসিলিটিজ টাওয়ার কার্যালয়ে রিভ গ্রুপের ডিরেক্টর মুন্নুজান নার্গিস-সহ প্রতিষ্ঠানের নারী সদস্যরা স্বেচ্ছায় রক্তদান করেন। এছাড়াও দুর্লভ এবি নেগেটিভ গ্রুপের অধিকারী রিভ সিস্টেমসের সিইও আজমত ইকবাল ৩৮তম বারসহ, ঢাকায় আরো রক্ত দান করেন হেড অব গ্লোবাল সেলস রায়হান হোসেন ও রিভ গ্রুপের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানসমূহের কর্মীবৃন্দ।

‘স্বার্থক প্রয়াস’ সংগঠনের সহযোগিতায় ভারতের নয়াদিল্লীতে রিভ গ্রুপ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত রক্তদান কার্যক্রমে কান্ট্রি ম্যানেজার ও রিভ অ্যান্টিভাইরাসের সিইও সঞ্জিত চ্যাটার্জিসহ রিভ কর্মীরা অংশ নেন।

রাশিয়ার মস্কোতে রক্তদান কার্যক্রমে উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে অংশ নেন রিভের রাশিয়ান কর্মীবৃন্দ। এছাড়াও স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে আমেরিকার লস অ্যাঞ্জেলস-সহ রিভের অন্যান্য শাখা কার্যালয়সমূহেও।

রমজানে রিভ গ্রুপের কর্মীদের স্বেচ্ছায় রক্তদান প্রসঙ্গে সিঙ্গাপুরে অবস্থানরত প্রতিষ্ঠানের গ্রুপ সিইও এম রেজাউল হাসান বলেন, ‘বিভিন্ন জরুরি পরিস্থিতিতে বাংলাদেশে বছরে প্রায় নয় লক্ষ ব্যাগ রক্ত প্রয়োজন হলেও এর বিপরীতে সংগৃহীত রক্তের পরিমাণ সাড়ে পাঁচ থেকে সাত লাখ ব্যাগ। এই রক্তের মাত্র ৩০ ভাগ আসে স্বেচ্ছায় রক্ত দাতাদের কাছ থেকে। স্বাভাবিক সময়েই চাহিদার তুলনায় রক্তের যোগান অপ্রতুল বলে রমজান মাসে তা আরো ভয়াবহ রূপ নেয়। আমরা প্রতিবছরই আমাদের সাধ্যমত রক্তদান করার চেষ্টা করি, পাশাপাশি অন্যান্য প্রতিষ্ঠানও এগিয়ে এলে পরিস্থিতির উত্তরণ হবে।’

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.