যুক্তরাষ্ট্রের অনুমোদন পেল ফোর টায়ার ডেটা সেন্টারের নকশা

ডাটা সেন্টারের হোস্টিং ক্যাপাসিটি বাড়াতে, সরকারি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ডাটা/নথি সংরক্ষণ ও সুরক্ষিত রাখতে এবং জাতীয় ই-সেবা সিস্টেমের মাধ্যমে নাগরিক সেবা দ্রুত ও নিশ্চিত করার লক্ষ্যে গাজিপুরের কালিয়াকৈরের বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটি প্রাঙ্গণে গড়ে তোলা হচ্ছে ফোর টায়ার ডেটা সেন্টার। ১৫ জুন বৃহস্পতিবার, যুক্তরাষ্ট্রের আপটাইম ইনস্টিটিউট ফোর টায়ার ডেটা সেন্টারের ডিজাইন অনুমোদন দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের আপটাইম ইনস্টিটিউট ফোর টিয়ার মানের ডেটা সেন্টারকে Design Documents, Constructed Facility এবং Operational Sustainability এই তিন ধাপে সার্টিফিকেট প্রদান। এই অনুমোদনের ফলে ডেটা সেন্টার স্থাপনে এক ধাপ অগ্রগতি হয়েছে, যা আপটাইম ইনস্টিটিউট থেকে টায়ার ফোর গোল্ড ফল্ট টলারেন্ট সার্টিফিকেশন অর্জনের মাধ্যমে সমাপ্তি হবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

অনুমোদন প্রাপ্তিতে আইসিটি প্রতিমিন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদৃঢ় নেতৃত্বে ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টার সার্বিক তত্ত্বাবধানে দিনে দিনে ডিজিটাল বাংলাদেশের কলেবর বাড়ছে। আর সঙ্গে সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বেশি পরিমাণে ডেটা সংরক্ষণের প্রয়োজনীয়তাও। এই বাড়তি চাহিদা মেটাতে আমরা কালিয়াকৈরের বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটিতে টিয়ার ফোর মানের ডেটা সেন্টার স্থাপন করছি। এই ডেটা সেন্টারে সরকারি ডেটার পাশাপাশি আমরা সীমিত আকারে বেসরকারি ডেটাও হোস্ট করব। আর নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করবে আপটাইম ইনস্টিটিউট। টিয়ার ফোর মানের সার্টিফিকেশন দেয়ার আগে আপটাইম ইনস্টিটিউট সকল ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করবে। ’

‘ফোর টায়ার ন্যাশনাল ডাটা সেন্টার (4TDC)’ প্রকল্পের আওতায় দেশে একটি সমন্বিত ও বিশ্বমানের ডাটা সেন্টার গড়ে তোলা হচ্ছে যার ডাউন টাইম শূন্যের কোঠায়। এর ফলে সরকারের বিভিন্ন সংস্থার ডিজিটাল কন্টেন্ট সংরক্ষণের ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে, ডিজিটাল কন্টেন্ট সমূহের সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক সংস্থার মধ্যে তথ্য আদান প্রদানের মাধ্যমে জনসেবা উন্নত হবে এবং ক্লাউড কম্পিউটিং ও জি-ক্লাউড প্রযুক্তিতে বিশ্বের ৬ষ্ঠ বৃহত্তম স্থান হিসাবে অবদান রাখবে। প্রকল্পটির মাধ্যমে সরকারের সকল মন্ত্রণালয়, বিভাগ, অধিদপ্তর, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের সকল সরকারি কার্যালয়ের আইসিটি কার্যক্রম সরাসরি যুক্ত থাকবে।

এ ডেটা সেন্টারের জন্য আন্তর্জাতিক মানের দ্বিতল ভবন তৈরি হচ্ছে। ইতিমধ্যে নির্মাণ কাজের ৭০% অগ্রগতি হয়েছে। ডেটা সেন্টারের ইলেট্রিক্যাল ও আইটি ইকুইপমেন্ট ডিজাইন ও স্পেসিফিকেশন চূড়ান্ত করে প্রকল্পটির আওতায় স্থাপিত সার্ভার, স্টোরেজ, নেটওয়ার্ক, পাওয়ার সিস্টেম, কুলিং সিস্টেম, ফায়ার সিস্টেম ও অন্যান্য যন্ত্রপাতির আমদানিও প্রায় শেষ পর্যায়ে। এই ডাটা সেন্টার তৈরিতে ফোর টায়ার জাতীয় ডাটা সেন্টার প্রকল্পে কর্মকর্তাগণ বিশেষভাবে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত এবং দীর্ঘদিন ধরে এই কার্যক্রমের তদারকি করে আসছে। বিশালাকার এই ডাটা সেন্টারে থাকছে উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন ৬০৪ টি র‌্যাক, ৯ এমভিএ লোডের রিডান্ডেন্ট লাইনসহ সমৃদ্ধ ২৪ ঘণ্টার নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যু সংযোগের ব্যবস্থা, উচ্চ গতিসম্পন্ন ৪০ জিবিপিএস রিডান্ডেন্ট ডেটা কানেকটিভিটি/ ইন্টারনেট সংযোগ।

২০১৫ সালের ৬ অক্টোবর তারিখে অনুষ্ঠিত একনেক সভায় অনুমোদিত হওয়া এই প্রকল্পের মোট প্রাক্কলিত ব্যয় ১ হাজার ৫১৬.৯০ কোটি টাকা। এর মধ্যে ৩১৭.৫৫ কোটি টাকা সরাকারি অর্থায়ন এবং বাকী ১ হাজার ১৯৯.৩৬ কোটি টাকা প্রকল্প সাহায্য। প্রকল্পটি ২০১৮ সালের জুনে শেষ হবে।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.