মোবাইল অ্যাপ ও গেম : সম্ভবনা ও করণীয়

১১ জানুয়ারি, টেকশহর ডটকম স্মার্টফোন ও ট্যাব এক্সপো’তে অনুষ্ঠিত হয় ‘মোবাইল অ্যাপ ও গেম : সম্ভবনা ও করণীয়’ বিষয়ক সেমিনার। এডুমেকার ও টেকশহরের আয়োজনে এই সেমিনারটিতে কিনোট উপস্থাপন করেন বিশ্বমাতানো গেম ট্যাপ ট্যাপ অ্যান্টসের নির্মাতা এবং রাইজআপ ল্যাবসের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও এরশাদুল হক। সেমিনারটি মডারেটও করেন তিনি।

সেমিনারে মাইন্ডফিশার গেমসের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও জামিল রশিদ বলেন, ‘দেশিয় খাতে গেম বেশ কম, তাই যদি দেশিয় বাজার লক্ষ্য করে ভালো গেম তৈরি করা যায় তাহলে অনেক বেশি সাড়া পাওয়া যাবে। নতুনদের গেম তৈরি করতে হলে কোয়ালিটির দিকে নজর দিতে হবে। তিনি আরো বলেন, বড় ধরনের গেম তৈরির জন্য অনেক বিনিয়োগের প্রয়োজন। তাই গেমগুলো কেমন সেগুলো অনেকাংশ নির্ভর করে বিনিয়োগের ওপর। তবে নতুনদের বিনিয়োগ কম থাকে, সেক্ষেত্রে ছোট ছোট কিছু গেম তৈরি করে শুরু করা উচিত। তারপর আস্তে আস্তে বড় প্রজেক্টের গেম তৈরি করা উচিত।’

নতুন কেউ যদি মোবাইল অ্যাপ তৈরি করতে চায় তাহলে কোন বিষয়ে নজর দিতে হবে, এমন প্রশ্নের জবাবে অডাসিটি আইটি সলিউশনের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও সিদ্দিক আবু বাক্কার বলেন, ‘নতুন ডেভেলপাররা যদি দেশিয় মার্কেট লক্ষ্য করে অ্যাপ তৈরি করতে চান তাহলে প্রথমে কোনো একটি সমস্যার সমাধান করতে হবে। যদি অ্যাপ ব্যবহারকারীদের উপকার হয় তাহলে তা দ্রুত জনপ্রিয়তা পাবে এবং লাভবান হওয়া যাবে।’

নতুনরা কিভাবে স্কিল ডেভেলপ করবেন, এই সম্পর্কে আইটিআইডব্লিউ এর প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও তানভীর আদনান বলেন, ‘গেম খাতে কাজ করতে হলে অবশ্যই তাদের আগ্রহী হতে হবে বিষয়টি নিয়ে। গেম নিয়ে বিশ্বের অনেক দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪ বছরের কোর্স রয়েছে। কিন্তু আমাদের দেশে তেমন নেই। তবে কিছু প্রতিষ্ঠান প্রশিক্ষণ দিলেও তা পর্যাপ্ত নয়। এক্ষেত্রে সবচেয়ে সহজ উপায় হল ইন্টারনেট থেকে শেখা।’

ইউটিউবে অনেক ভিডিও টিউটোরিয়াল রয়েছে গেম ডেভেলপমেন্ট নিয়ে। এরশাদুল হক বলেন, ‘গেম তৈরি শিখতে হলে ধৈর্য ধরে কাজ করতে হবে। এতে কোনো শর্টকাট উপায় নেই। তাই যদি কেউ ধৈর্য্য করে কাজ করতে চায় তাহলে সফলতা আসবেই।

এছাড়া ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক রিয়াদ হোসেন সেমিনারে মোবাইল গেইম ডেভেলপমেন্ট ও গেম অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্টে বাংলাদেশের সম্ভাবনার বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।

উল্লেখ্য, বিশেষ মূল্যছাড় আর উপহারে রাজধানীতে জমে উঠা তিন দিনব্যাপী ‘টেকশহর ডটকম স্মার্টফোন অ্যান্ড ট্যাব এক্সপো ২০১৮’ মেলার শেষ দিন চলছে আজ। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সকাল থেকেই দর্শনার্থীদের পদচারনায় মুখরিত হয়ে উঠেছে স্মার্টফোন এবং ট্যাব নিয়ে দেশের সবচেয়ে বড় এই প্রদর্শনী। বিক্রিও হচ্ছে বেশ।

মেলায় দেশি বিদেশি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে স্যামসাং, টেকনো, শাওমি, উই, হুয়াওয়ে, এলজি স্মার্টফোন, অপ্পো, সিম্ফনি, লাভা, নকিয়া, লেনোভো, আসুস জেনফোন, উইনম্যাক্স, মাইক্রোম্যাক্স, ডিসিএল, ডিটেল, এডাটা, কিকসা ডটকম, আজকের ডিল, মেঘনা ব্যাংক ট্যাপ এন পে, কুইক ফিক্স, বিজয় ডিজিটালসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ড ও প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করেছে। মেলা উপলক্ষে ইতোমধ্যে ব্র্যান্ডগুলো নানা ধরনের ছাড়-উপহার দিচ্ছে।

স্মার্টফোন অথবা ট্যাবলেট, যে ডিভাইসই হোক না কেন সবাই সেটি কোনো কারণে নষ্ট হয়ে গেলে কোথায় নির্ভরযোগ্য ভাবে সেটি ঠিক করা যাবে তা নিয়ে চিন্তিত থাকেন। সে চিন্তা দূর করতে রিপেয়ার সেবা নিয়ে স্মার্টফোন ও ট্যাব এক্সপো ২০১৮ তে হাজির হয়েছে কুইক ফিক্স। সেবাটির মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা স্যামসাং, হুয়াওয়ে, অপ্পো, ভিভো, শাওমি, অ্যাপল ও অন্যান্য ব্র্যান্ডের ডিভাইসের নানাবিধ সমস্যা রিপেয়ার করতে পারবেন। মেলা উপলক্ষে কুইক ফিক্সের স্টলে বুকিং দিয়ে প্রথম রিপেয়ারে পাওয়া যাবে ১০ শতাংশ ডিসকাউন্ট। সেবাটি নেয়ার জন্য কুইক ফিক্সের ওয়েবসাইটে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।

অনুষ্ঠান ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান এক্সপো মেকারের স্মার্টফোন ও ট্যাবলেট নিয়ে এটি নবম আয়োজন। এক্সপো মেকারের কৌশলগত পরিকল্পনাকারী মুহম্মদ খান জানান, প্রদর্শনী উপলক্ষে অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলো বিশেষ ছাড় ও উপহার দিচ্ছে। দর্শকরা প্রযুক্তির আধুনিক সব স্মার্ট ডিভাইস যাচাই বাছাই করে দেখতে ও কিনতে পারছেন। রয়েছে অন্যান্য অনেক আয়োজন।

এবারের মেলার টাইটেল স্পন্সর দেশের আইসিটি ও টেলিকম বিষয়ক শীর্ষস্থানীয় নিউজ পোর্টাল টেকশহরডটকম। প্ল্যাটিনাম স্পন্সর স্যামসাং ও টেকনো মোবাইল। গোল্ড স্পন্সর শাওমি ও উই। সিলভার স্পন্সর হুয়াওয়ে, এলজি স্মার্ট ফোন, অপ্পো ও সিম্ফনি। পার্টনার হিসেবে রয়েছে এডুমেকার। মেলার টিকিট বুথ স্পন্সর কিকসা ডটকম। মেলা সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত চলবে।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.