মেয়েদের প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়

প্রোগ্রামিং ব্যাপারটা কেবল ছেলেদের একচেটিয়া নয়। বরং প্রোগ্রামিং-এর সূচনা অ্যাডা লাভলেসের হাত ধরে এবং মেয়েরা প্রোগ্রামিং-এ বিশ্বজয়ও করতে পারে। আর এজন্য দরকার একাগ্রতা ও অনুশীলন।

বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের মেয়েদের জন্য দেশে প্রথমবারের মতো আয়োজিত আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় গার্লস প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতার নানান অধিবেশনে এই অভিমত উঠে এসেছে। নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত এই প্রতিযোগিতায় দেশের ৫৩টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬৫টি দল অংশ নেয়। এর আগে ১২ জানুয়ারি বাছাই প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছে ২৪৩টি দল।

প্রতিযোগিতায় ৯টি সমস্যার মধ্যে ৬টি সমস্যার সমাধান করে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্র্যাক ইউ_কোড ফেইরিস দল। দ্বিতীয় হয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের জেইউ_এক্সেপ্টেড এবং তৃতীয় হয়েছে ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের ইইউ প্রাইওরি ইনকানটেটাম।

চ্যাম্পিয়ন দলের প্রতিনিধি তাহানিমা চৌধুরি বলেন, ‘চ্যাম্পিয়ন হতে পেরে আমরা খুবই আনন্দিত। আমরা আগেও অনেক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছি। কিন্তু এবার-ই প্রথম কোনো প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হওয়া। নিয়মিত প্রোগ্রামিং করার ফলেই এটা সম্ভব হয়েছে।’

২৬ জানুয়ারি সকালে প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার ও তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের চেয়ারম্যান এবং এনএসইউ এসিএম স্টুডেন্ট চ্যাপ্টার এর শিক্ষক উপদেষ্টা ড. সাজ্জাদ হোসেন, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ফিজিক্যাল সায়েন্স এর ডিন ড. আরশাদ এম চৌধুরি, বিডিওএসএনের সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার ও তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপিকা ড. নোভা আহমেদ এবং নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার ও তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের প্রভাষক ও এনএসইউ এসিএমডব্লিউ এর শিক্ষক উপদেষ্টা তামান্না মোতাহার।

বিকালে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার ও তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের চেয়ারম্যান এবং এনএসইউ এসিএম স্টুডেন্ট চ্যাপ্টার এর শিক্ষক উপদেষ্টা ড. সাজ্জাদ হোসেন, নর্থ সাউথ বিশবিদ্যালয়ের স্কুল অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ফিজিক্যাল সায়েন্স এর ডিন ড. আরশাদ এম চৌধুরী, নর্থ সাউথ বিশবিদ্যালয়ের কম্পিউটার ও তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপিকা ড. নোভা আহমেদ, উইমেন ইন ডিজিটাল এর প্রতিষ্ঠাতা আছিয়া খালেদা নীলা, স্টার কম্পিউটার সিস্টেম লিমিটেডের পরিচালক রেজওয়ানা খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার ও তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের প্রভাষক এবং এই প্রতিযোগিতার জাজিং ডিরেক্টর হাসনাইন হেইকেইল, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার ও তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের সিনিয়র প্রভাষক, এনএসইউ এসিএমডব্লিউ এর শিক্ষক উপদেষ্টা তামান্না মোতাহের এবং বিডিওএসএন-এর প্রোগ্রাম অফিসার শারমিন কবীর।

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার ও তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপিকা ড. নোভা আহমেদ বলেন, ‘আমাদের মেয়েরা এমন প্রতিযোগিতায় নিজেদের যোগ্য করে তোলার মাধ্যমে আরো সামনে এগিয়ে যাবে বলে আমরা প্রত্যয়ী এবং ভবিষ্যতে আরো আয়োজনে আমরা তাদের সুযোগ সুবিধা দিব বলে আশা ব্যক্ত করছি।’

প্রতিযোগিতায় ৪টি ক্যাটাগরিতে মোট ২৮টি দলকে পুরস্কৃত করা হয়।

প্রতিযোগিতার সহ-আয়োজক বিডিওএসএনের প্রোগ্রাম অফিসার শারমিন কবীর জানান, বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের জন্য এই প্রথম আয়োজন মেয়েদের তথ্যপ্রযুক্তি ক্যারিয়ার হিসেবে গ্রহণে উদ্বুদ্ধ করবে।

এই আয়োজনে পৃষ্ঠপোষকতা করেছে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ও ড্যানকেক। অ্যাসোসিয়েট পার্টনার দৈনিক প্রথম আলো।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.