মাতৃমৃত্যু হার কমাতে জিই হেল্থকেয়ার-এর উদ্যোগ

জিই হেল্থকেয়ার, সৃষ্টি ইনস্টিটিউট ফর হেল্থ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজির সঙ্গে যুক্ত হয়ে ৫৫০ জন আল্ট্রাসাউন্ড বিশেষজ্ঞ এবং চিকিৎসকদের জন্য আয়োজন করেছে বাংলাদেশের প্রথম ইন্টারন্যাশনাল সোসাইটি অব আল্ট্রসাউন্ড ইন অব জিন (আইএসইউওজি) অনুমোদিত কোর্স। এটি চিকিৎসক ও বিশেষজ্ঞদের সবচেয়ে সাধারণ অবসটেট্রিক ইমারজেন্সিতে দক্ষতার সঙ্গে চিকিৎসার জন্য হাতেকলমে প্রশিক্ষণ প্রদান করে। এই কর্মসূচির লক্ষ্য হচ্ছে নারীর স্বাস্থ্যের উন্নতি, এ বিষয়ে প্রশিক্ষণ এবং জ্ঞান বিনিময়, বাংলাদেশে মাতৃকালীন ও ভ্রুণের সুস্থতার জন্য সেবার মান ও প্রমাণ ভিত্তিক সমাধানের উন্নয়ন।

ভ্রুণ সংক্রান্ত ওষুধ, জেনেটিক স্ক্রিনিং এবং প্রি-ইক্লামপসিয়ার প্রাথমিক চিকিৎসার বিভিন্ন দিক থেকে উন্নত সাম্প্রতিক জ্ঞান ও দক্ষতায় সহায়তা করাও এই কর্মসূচির লক্ষ্য, যাতে প্রাথমিক চিকিৎসার মাধ্যমে মাতৃকালীন ও শিশু মৃত্যু এবং রোগ কমানো যায়।

এই কোর্সটি আইএসইউওজি অনুমোদিত স্বনামধন্য ফ্যাকাল্টি মেম্বারদের দ্বারা পরিচালিত। যুক্তরাজ্যের অধ্যাপক এরিস পাপাজিওরঘিউ, নেদারল্যান্ডস-এর অধ্যাপক কাটিয়া বিলরাডো, ভারতের ডা. প্রশান্ত আচার্য এবং ডা. মালা সিবালসহ বাংলাদেশের ফ্যাকাল্টি সৃষ্টি ইনস্টিটিউট ফর হেলথ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজির সিইও এবং প্রোগ্রাম ডিরেক্টর এবং শীর্ষস্থানীয় সোনোলজিস্ট ডা. মোহাম্মদ আখতার হোসাইন যৌথভাবে দুই দিনব্যাপি এই শিক্ষামূলক সেশন পরিচালনা করেন।

শিশু ও মাতৃ রোগের প্রাথমিক চিকিৎসার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করে অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আখতার হোসাইন বলেন, ‘বাংলাদেশে এই কোর্স নিয়ে আসতে জিই হেল্থকেয়ার-এর মতো আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত হতে পেরে আমরা কৃতজ্ঞ এবং আনন্দিত। এটি সরকারের স্বাস্থ্য সেবা উন্নয়নে, বিশেষ করে সুবিধাবঞ্চিত ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যসেবা খাতের উন্নয়নের লক্ষ্যের সঙ্গে মিল রয়েছে। বাংলাদেশে বর্তমানে ৫০% এরও বেশি নারী প্রসবকালীন সময়ে একবারও চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করেন না। বাংলাদেশে গর্ভকালীন জটিলতার কারণে প্রতি ১ লাখে ১৯৬ জনের মৃত্যু হয়। ২০১৫ সালে এই হার ছিল ১ লাখে ১৭৪ জন এবং ক্রমান্বয়ে এটি বাড়ছে। এই গর্ভাবস্থাকালীন যত্নের মধ্যে আল্ট্রাসাউন্ড প্রযুক্তি ব্যবহারের প্রয়োজন রয়েছে।

আল্ট্রাসাউন্ড প্রযুক্তি প্রসবকালীন-প্লাসেন্টা প্রিভিয়া হিমোরেজ (রক্তক্ষরণ), ভ্রুণের অনির্দিষ্ট অবস্থান, প্রি-ইক্লামপসিয়া, ইন্ট্রা ইউটেরিন গ্রোথ রেসট্রিকশন, ক্রোমোসোমাল অস্বাভাবিকতার মতো জটিলতা ও জরুরি অবস্থাগুলোতে আল্ট্রাসাউন্ড প্রযুক্তির প্রশিক্ষণ সহযোগিতা করবে।

এ অনুষ্ঠানে যুক্তরাজ্যের প্রসিদ্ধ বিশেষজ্ঞ এবং আইএসইউওজি সদস্য অধ্যাপক ডা. এরিস পাপাজিওরঘিউ বলেন, ‘এই প্রশিক্ষণ আইএসইউওজি-এর দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্যকে সমর্থন করে যাতে, বিশ্বের প্রতিটি নারীর আল্ট্রসাউন্ড ব্যবহারের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে এবং একই সঙ্গে প্রতিটি স্ক্যান বিশেষজ্ঞ এটি সরবরাহে পারঙ্গম। এই প্রতিষ্ঠানটি উচ্চমানসম্পন্ন শিক্ষা, অবসটেট্রিক্স অ্যান্ড গাইনোলজি সম্পর্কে মানদন্ড বা স্ট্যান্ডার্ড ও গবেষণা তথ্য সরবরাহ করে নারীর স্বাস্থ্য উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘বাংলাদেশের পক্ষ থেকে অংশগ্রহণকারীদের চমৎকার উপস্থিতি স্পষ্টভাবে বুঝিয়ে দেয় যে, দেশটি কীভাবে স্বাস্থ্যসেবা খাতে উন্নতি করছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘বিশ্বের উন্নয়নশীল অঞ্চলগুলোতে অবসটেট্রিক্স ও গাইনোকোলজিতে আল্ট্রাসাউন্ড সেবার উন্নয়নের আইএইউওজি-এর টিম কাজ করে যাচ্ছে। এ ধরনের কর্মসূচি নিয়ে আসতে আমরা জিই হেল্থকেয়ার-এর মতো ইন্ডাস্ট্রি অংশীদারের সঙ্গে যুক্ত হয়েছি যাতে আমরা এই অঞ্চলগুলোর মাতৃ মৃত্যুহার কমাতে সহযোগিতা করতে পারি।’

নেদারল্যান্ডের সুপরিচিত একজন ফ্যাকাল্টি মেম্বার এবং আইএসইউওজি সদস্য প্রফেসর ক্যাটরিনা বিলার্ডো বলেন, ‘পাবলিক হেলথ সিস্টেম-এ জ্ঞান ও দক্ষতার সীমাবদ্ধতা অনেক বড় একটি প্রতিবন্ধকতা। নারী স্বাস্থ্য বিষয়ক জ্ঞান অর্জনে জোর দেওয়া উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য অনস্বীকার্য এবং গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। এই কোর্সটি সাজানো হয়েছে ধাত্রীবিদ্যা (অবসটেট্রিক্স) সংক্রান্ত প্রাথমিক জ্ঞান ও ভ্রুণের ইমেজিং-এ অগ্রগতি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দিয়ে।’ তিনি আরো বলেন, ‘এই কোর্সে যারা অংশ নিয়েছেন, প্রত্যেকে অংশগ্রহণের সার্টিফিকেট এবং আইএসইউওজি পরিচালিত বিভিন্ন কোর্স ও শিক্ষামূলক কার্যক্রমে অংশ নেওয়ার জন্য আইএসইউওজি-এর এক বছরের মেম্বারশিপ পাবেন।’

দুই দিনের এই কোর্সের প্রথম দিনে ভ্রুণের সঠিকভাবে বেড়ে উঠা ও কোনো অস্বাভাবিকতা আছে কী না তা জানার জন্য গর্ভকালীন প্রথম ছয় মাস আল্ট্রাসাউন্ড-এর ব্যবহার সম্পর্কে আলোচনা করা হয়। দ্বিতীয় দিন, কীভাবে ভ্রুণ এর হার্ট ইমেজিং করতে হবে এবং ভ্রুণ এর হৃৎপিণ্ডে কোনো অস্বাভাবিকতা আছে কী না তা কীভাবে জানতে হবে সে বিষয়ে অংশগ্রহণকারীদের শেখানো হয়। ধাত্রীবিদ্যা সংক্রান্ত প্রাথমিক জ্ঞান ও ভ্রুণের ইমেজিং-এ অগ্রগতি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য নিয়ে কোর্সটি সাজানো হয়েছে। অংশগ্রহণকারীরা আল্ট্রাসাউন্ড সম্পর্কে সর্বাধুনিক তথ্য ও এর আধুনিক ব্যবহার যেমন থ্রি-ডি ও ফোর-ডি আল্ট্রাসাউন্ড ইমেজিং এবং গাইনীকোলজি ও ধাত্রীবিদ্যায় এর ব্যবহার সম্পর্কেও জানতে পেরেছে। ভ্রুণের কার্ডিয়াক ইভাল্যুয়েশনের থ্রি-ডি ও ফোর-ডি আল্ট্রাসাউন্ড ইমেজিং এর ব্যবহার এবং গাইনীকোলজী ও ইনফার্টিলিটি বিষয়ে নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার সম্পর্কে জানতে পেরেছে।

জিই হেল্থকেয়ার:
হার্ডওয়্যার, সফটওয়্যার এবং বায়োটেক-এর ডাটা আহরণ ও বিশ্লেষণ, জিই হেল্থকেয়ার জিই (এনওয়াইএসই:জিই)-এর ১৮ বিলিয়ন ডলারের হেল্থকেয়ার প্রতিষ্ঠান। শীর্ষস্থানীয় মেডিকেল ইমেজিং যন্ত্রপাতি সরবরাহকারী হিসেবে, ইন্ডাস্ট্রিতে ১০০ বছরেরও বেশি এবং ১০০টি দেশে ৫০,০০০ এরও বেশি কর্মী নিয়ে স্বাস্থ্যসেবা খাতে অবদান রেখে যাচ্ছে।

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক