ইয়ুথ ফোরামের অংশগ্রহণকারীরা কাজ করবে বৈশ্বিক স্বাস্থ্য সমস্যার সমাধান নিয়ে

নরওয়ের অসলোতে টেলিনর ইয়ুথ ফোরামে চূড়ান্ত পর্ব অনুষ্ঠিত হয়েছে। ঐদিন, মোবাইল ও ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করে বৈশ্বিক স্বাস্থ্য সমস্যার সমাধানে চারটি নতুন ধারণার প্রদর্শন করা হয়। ৬ মাসব্যাপী বৈশ্বিক টেলিনর ইয়ুথ ফোরামে নিজেদের যাত্রা শুরু করতে বাংলাদেশ থেকে টেলনর ইয়ুথ ফোরামের দু’জন বিজয়ী টেলিনর এর অন্যান্য বিজনেস ইউনিটের (বিইউ)  বিজয়ীদের সাথে অসলো পর্বে যোগ দেয়। 

 টেলিনর ইয়ুথ ফোরামের ১৬ জন প্রতিনিধি (২০১৮-২০১৯ কর্মসূচির জন্য) বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্যখাতে বৈষম্য দূর করার লক্ষ্যে গত রবিবার হতে চার দিন অসলোতে এর সমাধান নিয়ে কাজ করছে। স্বাস্থ্য বিষয়ক চ্যালেঞ্জগুলো হলো: কৃষি উপযোগিতা বৃদ্ধি, বিশুদ্ধ পানি নিশ্চিত করা, অস্ংক্রামক রোগের সংক্রমণ হ্রাস করা এবং জনসংখ্যার ক্রমবর্ধমান বয়স্কদের সহায়তাদান।

অনুষ্ঠানে গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী মাইকেল ফোলি বলেন, ‘বিজয়ী দুই তরুণের জন্য এটা অনেক বড় সুযোগ। তারা শুধুমাত্র একটি বৈশ্বিক প্ল্যাটফর্মেই অংশগ্রহণ করবে না পাশাপাশি, এ অভিজ্ঞতা ভবিষ্যতে তাদের আরও অনেক কিছু শিখতে সহায়তা করবে। বাংলাদেশ থেকে সম্ভাবনাময় তরুণরা বিশ্বমঞ্চে যাবে এবং তারা নিজেদের ধারণার বিকাশে ও সমাজের ক্ষমতায়নে নতুন নতুন বিষয় শিখবে, এটা আমাদের জন্য বিশেষ গর্বের বিষয়। এ বছর বৈশ্বিক স্বাস্থ্য সমস্যার সমাধান প্রস্তাব করাই মূল চ্যালেঞ্জ। এ বছরের টিওয়াইএফ’র প্রতিপাদ্য ‘ব্রাইট মাইন্ডস রিডিউসিং ইনইকুয়ালিটিস’- এর লক্ষ্য প্রত্যক্ষভাবে সমাজের ক্ষমতায়ন।’

টিওয়াইএফ ২০১৮-২০১৯ প্রতিনিধিদের প্রস্তাবিত ধারণা—–

কৃষি সমস্যা সমাধানে টিওয়াইএফ প্রতিনিধি সামীন আলম (বাংলাদেশ), র্যাচেল লোহ (মালয়েশিয়া), ইনগ্রিদ রাসমুসেন (ডেনমার্ক) এবং এমিলিয়ে উদনেস (নরওয়ে)

বিশুদ্ধ পানি নিশ্চিতকরণ: টিওয়াইএফ  প্রতিনিধি সায়মা খান (বাংলাদেশ), লুকাস ম্যাকনাব (সুইডেন), আসমা লাদাক (পাকিস্তান) এবং নাং ইন ইন নোয়ে (মিয়ানমার)

অসংক্রামক রোগের প্রতিরোধে মায়েদা জাঞ্জুয়া (পাকিস্তান), গ্যাবিয়েলে স্টোপ (সুইডেন), চেরংচাই টাচো (থাইল্যান্ড) এবং ফেলিসিয়া উন (মালয়েশিয়া).

ডিজিটাল সমাধানের মাধ্যমে জনসংখ্যার ক্রমবর্ধমান বয়স্ক অংশকে সহায়তায় জ্যাকো আহমাদ (ডেনমার্ক), ক্রিস্টিনে শি নর্দভোলদ (নরওয়ে), থানাপা উকারানুম (থাইল্যান্ড) এবং থিহা জ

আগন্তুক থেকে সামাজিক উদ্যোক্তা

মাত্র চার দিনে এ প্রতিনিধিরা, যারা একটা সময় ট্যালেন্টপুলের ৫ হাজারদের মধ্যে একজন ছিলো তারা সম্পূর্ণ আগন্তুক থেকে সামাজিক উদ্যোক্তা দলের সদস্য হয়ে গেছে। আগামী ছয় মাস দলগুলোকে প্রশিক্ষণ দিবেন টেলিনর গ্রুপ এক্সপার্ট প্রশিক্ষকরা।

-সিনিউজভয়েস/

Please Share This Post.