বেসিস সফটএক্সপোতে বিশেষ যত আয়োজন

আগামী ১-৪ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে দেশের সবচেয়ে বড় সফটওয়্যার মেলা ‘বেসিস সফটএক্সপো ২০১৭’। ‘ফিউচার ইন মোশন’ স্লোগান নিয়ে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এগারতম এ মেলার আয়োজন করছে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের শীর্ষ বাণিজ্যিক সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস)।

এ উপলক্ষে ২৮ জানুয়ারি শনিবার, বেসিস মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বেসিসের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি রাসেল টি আহমেদ, সহ-সভাপতি এম রাশিদুল হাসান, বেসিসের পরিচালক ও বেসিস সফটএক্সপো ২০১৭ এর আহ্বায়ক সৈয়দ আলমাস কবীর, বেসিসের পরিচালক ও প্লাটিনাম স্পন্সর মাইক্রোসফট বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোনিয়া বশির কবির, গোল্ড স্পন্সর সিটি ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সোহেল আর কে হুসেইন। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন বেসিসের সহ-সভাপতি ফারহানা এ রহমান, বেসিসের পরিচালক উত্তম কুমার পাল, রিয়াদ এস এ হোসেনসহ বেসিস সফটএক্সপো ২০১৭ এর আয়োজক কমিটির সদস্যবৃন্দ।

এছাড়া স্পন্সর প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন র‌্যাংকসটেলের চিফ কমিউনিকেশন অফিসার মেহনাজ কবির, আমরা টেকনোলজিসের হেড অব মার্কেটিং মুনতাসির আহমেদ, ফ্লোরা সিস্টেমসের জোয়াহের আহমেদ।

বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘আমাদের দেশিয় তথ্যপ্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর ব্যবসায় প্রসারের সবচেয়ে কার্যকরী জায়গা বেসিস সফটএক্সপো। বিভিন্ন কারণে ২০১২ সালের পর আলাদাভাবে বেসিস সফটএক্সপো আয়োজন সম্ভব হয়নি। এখন থেকে পুনরায় প্রতিবছর বেসিস সফটএক্সপো আয়োজন করা হবে। আশাকরি বিগত সময়ের চেয়ে এবারের সফটএক্সপো সবচেয়ে সফল হবে।’

বেসিসের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি রাসেল টি আহমেদ বলেন, ‘দেশের সফটওয়্যার ইন্ডাস্ট্রির একটি পিলার হলো বেসিস সফটএক্সপো। এবার আরও শক্তিশালী সেই পিলার।’

বেসিসের সহ-সভাপতি এম রাশিদুল হাসান জানান, ‘এবার আমরা দেশি-বিদেশি অতিথি আলোচকদের সমন্বয়ে ২০টির বেশি সেমিনার ও ১০টির অধিক টেকনিক্যাল সেশনের আয়োজন করেছি। এসব আয়োজনের মাধ্যমে আমাদের ইন্ডাস্ট্রির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের নানা দিক উঠে আসবে।’

বেসিসের পরিচালক ও বেসিস সফটএক্সপো ২০১৭ এর আহ্বায়ক সৈয়দ আলমাস কবীর এবারের বেসিস সফটএক্সপোর সার্বিক চিত্র তুলে ধরেন এবং এটি সফল করতে সকলের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।

বেসিসের পরিচালক ও প্লাটিনাম স্পন্সর মাইক্রোসফট বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোনিয়া বশির কবির বলেন, ‘মাইক্রোসফট বিদেশি কোম্পানি হিসেবে প্রতিযোগিতা করতে নয়, বরং ইন্ডাস্ট্রি ও দেশিয় কোম্পানিগুলোকেই সহযোগিতা করছে। তারই ধারাবাহিকতায় এবারের সফটএক্সপোতে প্ল্যাটিনাম স্পন্সর হিসেবে আমরা যুক্ত হয়েছি।’

গোল্ড স্পন্সর সিটি ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সোহেল আর কে হুসেইন বলেন, ‘বাংলাদেশের সফটওয়্যার ইন্ডাস্ট্রি এখন অনেক আস্থাশীল। আমাদের দেশিয় কোম্পানির তৈরি ব্যাংকিং সফটওয়্যার ও অ্যাপস বিদেশিদের পিছনে ফেলছে। তাই এই ইন্ডাস্ট্রির সহযোগিতা করতেই বেসিস সফটএক্সপোতে আমরা যুক্ত হয়েছি।’

র‌্যাংকসটেলের চিফ কমিউনিকেশন অফিসার মেহনাজ কবির বলেন, ‘দেশের সম্ভাবনাময় একটি খাত ই-কমার্স। এই খাতের জন্য সহযোগিতা করতেই সম্প্রতি র‌্যাংকসটেল ১ জিবিপিএস গতির ইন্টারনেট নিয়ে যাত্রা শুরু করেছে। যা ভারতের চেয়েও আমরা আগে করতে পেরেছি। এই আয়োজনে যুক্ত হতে পেরে আমরা গর্বিত।’

আমরা টেকনোলজিসের হেড অব মার্কেটিং মুনতাসির আহমেদ বলেন, ‘এবারের সফটএক্সপোতে দর্শনার্থী ও অংশগ্রহণকারীদের জন্য ১ জিবিপিএস ব্র্যান্ডউইথের ওয়াইফাই সেবা প্রদান করবে আমরা। যা কোনো আয়োজনের ক্ষেত্রে নতুন মাইলফলক।’

ফ্লোরা সিস্টেমসের জোয়াহের আহমেদ বলেন, ‘আমরা দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছি। নিজেদের সক্ষমতা তুলে ধরতে ও দেশের সফটওয়্যার ইন্ডাস্ট্রিকে এগিয়ে নিতে আমরা এই আয়োজনে যুক্ত হয়েছে।’

এবারের সফটএক্সপোর লক্ষ্য
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির উন্নয়ন, উদ্ভাবন, গবেষণা, সফল প্রয়োগ, টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে নিরাপদ ও গ্রহণযোগ্য তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এবং ডিজিটাল ব্যবস্থাপনা তুলে ধরার প্রয়াসে ২০০২ সাল থেকে বেসিস নিয়মিতভাবে দেশের বেসরকারি খাতের সবচেয়ে বড় মেলা ‘বেসিস সফটএক্সপো’ আয়োজন করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় আগামী ১ থেকে ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বেসিস সফটএক্সপো ২০১৭ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এই আয়োজনের মাধ্যমে দেশের সফটওয়্যার ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সক্ষমতা, সাফল্য দেখানোর পাশাপাশি আইসিটি খাতের উন্নয়নে করণীয় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সেমিনার, কর্মশালাসহ নানা কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হয়ে থাকে।

প্রত্যাশা
বিগত যেকোনো সফটএক্সপোর তুলনায় বর্ধিত পরিসরে ও নানা আয়োজনে বেসিস সফটএক্সপো ২০১৭ অনুষ্ঠিত হবে। এই প্রদর্শনীতে দেশ বিদেশের সফটওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান, আন্তর্জাতিক আইটি সংগঠন, স্থানীয় সফটওয়্যার কো¤পানিসহ শতাধিক প্রতিষ্ঠান তাদের তথ্যপ্রযুক্তি পণ্য ও সেবার প্রদর্শন করবে। বেসিস সফটএক্সপো ২০১৭-তে সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের উর্ধতন কর্মকর্তা, সরকারি নীতিনির্ধারক, শিক্ষা ও প্রযুক্তিবিদ, ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ, ছাত্র-ছাত্রী, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার প্রতিনিধি ও সাধারণ দর্শকসহ প্রায় ৫ লক্ষাধিক লোকের সমাগম ঘটবে বলে আশা করা হচ্ছে।

উদ্বোধন
আয়োজনের অংশ হিসেবে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, বুধবার, সকাল ১০ টায় অনুষ্ঠানস্থলের সেলিব্রেটি হলে বেসিস সফটএক্সপো ২০১৭ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন জাতীয় সংসদের মাননীয় স্পিকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন পরিকল্পনামন্ত্রী জনাব আ হ ম মুস্তফা কামাল ও তথ্য ও যোগযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহমেদ পলক।
যা থাকছে এবারের আয়োজনে
এ বছর প্রদর্শনী এলাকাকে বিজনেস সফটওয়্যার জোন, আইটিইএস এবং বিপিও জোন, মোবাইল ইনোভেশন জোন ও ই-কমার্স জোন এই ৪টি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যবসায় প্রসারে থাকছে স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক বিজনেস ম্যাচমেকিং সেশন। বাড়তি সুবিধা হিসেবে থাকবে বিজনেস লাউঞ্জ। এছাড়া উল্লেখযোগ্য ইভেন্টের মধ্যে রয়েছে লিডারস মিট, ডেভেলপার কনফারেন্স, টেক উইমেন কনফারেন্সসহ নানা আয়োজন। শিশুদের জন্য থাকছে কোডিং প্রোগ্রাম।

সেমিনার
এবারের সফটএক্সপোতে তথ্যপ্রযুক্তির বিভিন্ন দিক নিয়ে অন্তত ২০টি সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। অনুষ্ঠানস্থলের মিডিয়া বাজার ও উইন্ডি টাউন হলে এসব সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। এসব সেমিনারের মধ্যে রয়েছে – স্থানীয় কোম্পানির জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি, ডিজিটাল এডুকেশন ও ই-লার্নিং, মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট, ইন্টারনেট অব থিংকস, অ্যাক্সেস টু ফিন্যান্স, ক্লাউড কম্পিউটিং, ডেটা নেটওয়ার্ক সিকিউরিটি, রফতানি বাজার উন্নয়ন, ডেভেলপিং ইনোভেশন ইকোসিস্টেম, ডিজিটাল সার্ভিস ডেলিভারি, আইটি মার্কেট রিসার্চ, কোয়ালিটি সার্টিফিকেশনসহ নানা বিষয়।

টেকনিক্যাল সেশন
এবারের সফটএক্সপোতে তথ্যপ্রযুক্তির বিভিন্ন দিক নিয়ে ১০টির অধিক টেকনিক্যাল সেশন অনুষ্ঠিত হবে। অনুষ্ঠানস্থলের গ্রিন ভিউ হলে এসব সেশন অনুষ্ঠিত হবে। আয়োজিত টেকনিক্যাল সেশনের মধ্যে রয়েছে – এপিআই এক্সচেঞ্জ, ক্রস প্লাটফর্ম গেইম ডেভেলপমেন্ট, এনক্রিপশন অন ক্লাউড ডেটা, মোবাইল ও গেইমিং অ্যাপ্লিকেশনে ইউআই/ইউএক্সের গুরুত্ব, স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে সাইবার নিরাপত্তা, ক্লাউড সার্ভার ব্যবস্থাপনার সহজ কৌশল, অনলাইন পেমেন্ট সহজীকরণের মাধ্যমে ব্যবসায় উন্নয়ন ও গ্রাহকসেবা বাড়ানো, ব্যবসায় উন্নয়নে ডিজিটাল মার্কেটিং ও অ্যাকাউন্টিং বিপিও : সুপ্ত সম্ভাবনা শীর্ষক বিষয়গুলো।

আন্তর্জাতিক বিটুবি
সফটওয়্যার ও তথ্যপ্রযুক্তি সেবার রফতানি বাড়াতে এবারের বেসিস সফটএক্সপোতে আন্তর্জাতিক বিজনেস টু বিজনেস ম্যাচমেকিংয়ের আয়োজন করা হচ্ছে। প্রদর্শনীর প্রথমদিন বিকাল ৩টা থেকে এই বিটুবি ম্যাচমেকিং অনুষ্ঠিত হবে। নেদারল্যান্ড, ডেনমার্কসহ বিভিন্ন দেশের অন্তত ১০টি কোম্পানি বাংলাদেশের অর্ধশতাধিক সফটওয়্যার ও তথ্যপ্রযুক্তিনির্ভর কোম্পানির সাথে আলাদা বৈঠকে মিলিত হবেন। এর মাধ্যমে তারা একে অন্যের সঙ্গে আগামীতে ব্যবসায় উন্নয়নে পদক্ষেপ নিতে পারবেন। বেসিসের আগের বিটুবির অভিজ্ঞতা থেকে ধারণা করা হচ্ছে এবারের বিটুবির মাধ্যমে বাংলাদেশি কোম্পানিগুলো বেশ কিছু আন্তর্জাতিক কোম্পানির সাথে ব্যবসায়ের সুযোগ পাবে।

এন্টারপ্রেওনারশীপ অ্যান্ড ক্যারিয়ার ইন আইটি
আয়োজনের অংশ হিসেবে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে ক্যারিয়ার গড়তে আগ্রহীদের চাকরির সুযোগ দিতে থাকছে ‘এন্টারপ্রেওনারশীপ অ্যান্ড ক্যারিয়ার ইন আইটি’ শীর্ষক আয়োজন। বেসিস স্টুডেন্টস ফোরামের সহযোগিতায় দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের শীর্ষস্থানীয় বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান তাদের যথোপযুক্ত জনবল খুঁজে নিতে অংশগ্রহণ করবে। প্রোগ্রামিং, ডিজাইন, মার্কেটিং, বিজনেস ডেভেলপমেন্ট, অ্যাকাউন্টিংসহ বিভিন্ন পদের জন্য আগ্রহীরা সিভি জমা দিতে পারবেন। প্রদর্শনীর প্রথম দিন থেকেই অনুষ্ঠানস্থলে থাকা নির্ধারিত বক্সে সিভি জমা দেওয়া যাবে। সমাপনী দিনে অনুষ্ঠিত ‘এন্টারপ্রেওনারশীপ অ্যান্ড ক্যারিয়ার ইন আইটি’ প্রোগ্রামে শিক্ষার্থী, চাকরিপ্রত্যাশী ও চাকুরিজীবিদের উন্নত ক্যারিয়ার গাইডলাইন দেওয়া হবে। যেখানে অভিজ্ঞ বক্তারা তথ্যপ্রযুক্তি খাতে ক্যারিয়ার গড়তে করণীয় বিভিন্ন বিষয়ে দিকনির্দেশনা দেবেন।

ফ্রি ওয়াইফাই ইন্টারনেট সেবা
প্রদর্শনীতে আগত দর্শনার্থীরা অনুষ্ঠানস্থলে এসেও যাতে অনলাইনে বিভিন্ন তথ্য খোঁজা, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপডেট দেওয়া কিংবা ইন্টারনেটের মাধ্যমে তাদের জরুরী কাজটি সেরে ফেলতে পারেন তার জন্য থাকছে দ্রুতগতির ওয়াইফাই ইন্টারনেট সুবিধা।

আগ্রহী যে কেউ অনুষ্ঠানস্থলে কিংবা অনলাইনের মাধ্যমে আগে থেকেই নিবন্ধন করে বিনা মূল্যে প্রদর্শনীতে প্রবেশ করতে পারবেন। বেসিস সফটএক্সপোর নিজস্ব ওয়েবসাইট (www.softexpo.com.bd) ভিজিট করে আগ্রহীরা নিবন্ধন করতে পারবেন। সেখানে প্রদর্শনীর বিস্তারিত তথ্যও পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া প্রদর্শনীর অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ (www.fb.com/BASIS.SoftExpo) থেকে আপডেট পাওয়া যাচ্ছে। একইসাথে বেসিস সফটএক্সপোর অফিসিয়াল অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপও উন্মোচন করা হয়েছে। আগ্রহীরা গুগল প্লে স্টোর থেকে (https://play.google.com/store/apps/details?id=com.bd.softexpo) অ্যাপটি ডাউনলোড ও ইনস্টল করতে পারবেন।

এবারের আয়োজনে প্লাটিনাম স্পন্সর হিসেবে রয়েছে মাইক্রোসফট। এছাড়া গোল্ড স্পন্সর হিসেবে সিটি ব্যাংক, সিলভার স্পন্সর হিসেবে এবি ব্যাংক রয়েছে। পাশাপাশি ই-কমার্স জোন পার্টনার হিসেবে র‌্যাংকসটেল, ইন্টারনেট পার্টনার হিসেবে আমরা টেকনোলজিস ও ফিনটেক পার্টনার হিসেবে রয়েছে ফ্লোরা সিস্টেমস।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.