বিসিএস-এর ২৯তম বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত

ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে অগ্রগ্রামী ভূমিকা রেখে সমিতির কার্যক্রম সারাদেশে ছড়িয়ে দেয়ার প্রত্যাশা নিয়ে বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি(বিসিএস) এর ২৯ তম বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

৩০ ডিসেম্বর বুধবার বেলা তিনটায় রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ বিসিএস ইনোভেশন সেন্টারে বার্ষিক সাধারণ সভায় ২০২০ সালের কার্যক্রম ও আর্থিক বিবরণী পেশ করার পাশাপাশি আগামী বছরের জন্য কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। এবারের এজিএম হাইব্রিড মডেলে অনুষ্ঠিত হয়।

বিসিএস সভাপতি মো. শাহিদ-উল-মুনীরের সভাপতিত্বে সভায় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য সহসভাপতি মো. জাবেদুর রহমান শাহীন, মহাসচিব মুহাম্মদ মনিরুল ইসলাম, যুগ্ম মহাসচিব মো. মুজাহিদ আল বেরুনী সুজন, কোষাধ্যক্ষ মো. কামরুজ্জামান ভূঁইয়া, পরিচালক মোশারফ হোসেন সুমন এবং মো. রাশেদ আলী ভূঁইয়াসহ সংগঠনের সাধারণ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

করোনা কালীন সময়ে বিসিএস এর ৮ জন সদস্য মৃত্যুবরণ করেন। সভার শুরুতেই বিসিএস সভাপতি শোকপ্রস্তাব পেশ করেন। শোকপ্রস্তাব শেষে সদস্যদের আত্মার মাগফেরাত এবং করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য দোয়া করা হয়।

আলোচ্যসূচি অনুসারে ২৮তম বার্ষিক সাধারণ সভার কার্যবিবরণী সভায় উপস্থাপন করেন বিসিএস সভাপতি। কন্ঠভোটে কার্যবিবরণী অনুমোদন করেন উপস্থিত সদস্যরা। সভাপতির সস্মতিক্রমে মহাসচিব মুহাম্মদ মনিরুল ইসলাম ২০২০ সালের কর্মকান্ডের বিবরণী এবং কোষাধ্যক্ষ মো. কামরুজ্জামান ভূঁইয়া ২০১৯-২০ অর্থবছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পেশ করেন। ২০২০ সালের কার্যক্রম, নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন এবং আগামী অর্থ বছরের জন্য সমিতির বাজেটের উপর সভায় উপস্থিত সদস্যরা তাদের মতামত প্রদান করেন। সভায় বিস্তারিত আলোচনা ও মতামতের আলোকে ২০২০ সালের কার্যক্রম, নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন এবং আগামী অর্থ বছরের জন্য সমিতির বাজেট অনুমোদিত হয়।

বিসিএস সভাপতি মো. শাহিদ-উল-মুনীর বলেন, বিসিএস তথ্যপ্রযুক্তিতে নেতৃত্ব দেয়া দেশের সর্ববৃহৎ সংগঠন। ২০২১ এ আমরা ৩৫ বছরে পদার্পণ করতে যাচ্ছি। একই বছর উইটসার সদস্য সংগঠন হিসেবে বিসিএস সরকারের আইসিটি ডিভিশন এবং অন্যান্য প্রযুক্তি সংগঠনদের সাথে নিয়ে ঢাকায় আয়োজন করতে যাচ্ছে প্রযুক্তির অলিম্পিক খ্যাত ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস অব আইটি (ডব্লিউসিআইটি ২০২১)। এছাড়াও বিসিএস দেশব্যাপী তরুণরা যেন তথ্যপ্রযুক্তির সুফল ভোগ করতে পারে তার জন্য প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, করোনা কালীন সময়ে আমরা ‘পাশে আছি বাংলাদেশ’ শীর্ষক কার্যক্রম এবং ‘হেল্প ডেস্ক’ পরিচালনা করেছি। অনলাইনে ই-কমার্স বিজনেস, রোবটিক্স, আইওটি, ব্লকচেইন, মডার্ন ওয়ার্ক প্লেসসহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম সম্পন্ন করেছি। বিসিএস সদস্যদের নিত্যনতুন প্রযুক্তির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে ব্যবসায় নতুনত্ব নিয়ে আসতে বিসিএস এর কার্যক্রম চলমান রয়েছে। সদস্যদের সর্বোচ্চ সুযোগ সুবিধা দিতে কার্যকরী কমিটি বদ্ধ পরিকর।

ইংরেজী নববর্ষ ২০২১ সালের শুভেচ্ছা জানিয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

 

Please Share This Post.