বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে বিগ ডাটা অ্যানালিটিক্স এবং জাতীয় ডাটা প্ল্যাটফর্ম

ডিজিটালাইজেশনের দিকে আমাদের অগ্রগতি আকর্ষণীয়। দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে অনেক উদ্যোগ এবং বাস্তবায়ন। টেকনোলজি লিডারশিপ ফোকাস রয়েছে বিগডাটা এবং এনালিটিক্স এর ক্ষেত্রেও। বিগডাটা একটি টার্ম যা সেই সকল ডাটাসেট এর জন্য ব্যবহৃত হয় যা এতটাই বড় বা জটিল যে ট্র্যাডিশনাল ডাটা প্রসেসিং অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার তাদের মোকাবেলা করার জন্য যথেষ্ট নয়। চ্যালেঞ্জ হচ্ছে ডাটা ক্যাপচার, স্টোরেজ, বিশ্লেষণ, তথ্য কিউরেশন, অনুসন্ধান, ভাগ, স্থানান্তর, কল্পনা, কুয়েরিং, হালনাগাদকরণ ও তথ্য গোপনীয়তা রক্ষা করা। বিগডাটা, বড় প্রভাব, জাতীয় ডাটা প্লাটফর্ম এর নতুন সম্ভবনা। ডাটা প্লাটফর্ম বর্তমানের ডাটা-ড্রিভেন টেকনোলজিতে অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এই প্রেক্ষাপটেই কিছু বলতে চাই। আমাদের স্ট্রাটেজিক হতে হবে, শেষ ফলাফলকে মাথায় রেখে আগাতে হবে এবং নিজেদের প্রস্তুত করতে হবে গন্তব্যে যাওয়ার জন্য। স্টিফেনকোবে, বিশ্বের প্রধানতম থট লিডার্সদের একজন, তার সেভেন হ্যাবিট্স অফ হাইলি এফেক্টিভ পিপল এর দ্বিতীয় হ্যাবিট এ বলেছেন “সফল লোকেরা শেষের কথাটা ভেবে শুরুটা করেন”।

ডাটা প্ল্যাটফর্ম এবং এনালিটিক্স এর কিছু ব্যবহার নিয়ে কথা বলা যাক।

১) নাগরিক/ কাস্টমার বিহেভিয়ার এনালিটিক্স: অদূর ভবিষ্যতে বিভিন্ন উদ্যোক্তাদের এই ডোমেইনের মধ্যে উল্লেখযোগ্য আগ্রহ থাকবে।
অ) ধরা যাক, আমরা একটি বিজনেস এপ্লিকেশন বানাতে চাই, যেখানে আমরা প্রোগ্রাম মডিউল থেকে একটি অনলাইন এপিআই (অ্যাপ্লিকেশন প্রোগ্রামিং ইন্টারফেস) কল করব। ইনপুট দিব সিটিজেন বেসিক ডাটা এন্ড রেসপন্স আসবে তার ফিনান্সিয়াল বিহেভিয়ার ।
সে কখনো কোনো পোস্টপেইড পেমেন্ট ডিলে করেছে কিনা, ডিফল্ট হয়েছে কিনা, তার বাৎসরিক ইনকাম কত, তাকে কত টাকা পর্যন্ত ফিনান্স করলে তার রি-পে ক্যাপাবিলিটি থাকবে, এক্সিস্টিং লোন বা লিজ আছে কিনা ইত্যাদি।

আমার প্রসেসিং দ্রুত, ত্রুটিমুক্ত এবং সাশ্রয়ী হবে, এমনটাই আমরা চাই। আমার জানা মতে বর্তমানে এর জন্য প্রয়োজনীয় ডাটা প্ল্যাটফর্ম এবং এপিআই নেই।

আ) ধরা যাক, আমরা একটি এনালিটিক্স এপ্লিকেশন বানাতে চাই যেখানে কমোডিটি কনজাম্পশন এনালাইজ করে আমার স্টক, সাপ্লাই চেইন এবং ভবিষ্যৎ উৎপাদন পরিকল্পনা করা যাবে। আমার জানতে হবে কনজাম্পশন বাই এইজ গ্রুপ, জেন্ডার, লোক্যালিটি, খাদ্য, চিকিৎসা, এন্টারটেইনমেন্ট ইত্যাদি। এই ডাটা এন্ড সার্ভিস এর জন্য আমি সার্ভিস ফী দিতে, এন.ডি.এ. এবং এস.এল.এ. করতে প্রস্তুত। কিন্তু আমার জানা মতে বর্তমানে এর জন্য প্রয়োজনীয় ডাটা প্ল্যাটফর্ম এবং এপিআই নেই।

ই) ধরা যাক, আমরা একটি এপ্লিকেশন বানাতে চাই যা মোবাইল ডিভাইস, নাম্বার, অবস্থান এবং সিগন্যাল ট্র্যাক করতে সক্ষম। এই ক্যাপাবিলিটি ব্যবহার করে কোনো ডিজাস্টার লোকেশনে কারা ক্ষতিগ্রস্ত, কাদেরকে এখন পর্যন্ত উদ্ধার করা যায় নাই ইত্যাদি এনালাইজ করা সম্ভব। আমার জানা মতে বর্তমানে এর জন্য প্রয়োজনীয় ডাটা প্ল্যাটফর্ম এবং এপিআই নেই।

ঈ) ধরা যাক, আমরা একটি এপ্লিকেশন বানাতে চাই যা শনাক্ত করবে সন্দেহভাজন জঙ্গি, সন্ত্রাসী, অপরাধী রিয়েলটাইম এবং “লাইভ ফেইস ম্যাচিং” টেকনোলজির সাহায্যে। উদাহরণ: বরিশালে গতকাল রাতে ক্রাইম হয়েছে। আজকে সকাল ৮:৫০ এ বরিশাল পুলিশ সাস্পেক্টেড ব্যক্তিকে শনাক্ত করেছে এবং ৮:৫৫ তে বরিশাল পুলিশ আমাদের অনলাইন সিস্টেমএ ওই ব্যক্তির ছবি আপলোড করে ট্যাগ করেছে। ৮:৫৬তে ওই ব্যক্তি ঢাকা এয়ারপোর্টে ইমিগ্রেশনের সময় আমাদের টেকনোলজি তাকে শনাক্ত করে অ্যালার্ম জেনারেট করতে পারবে।

২) ই-কমার্স, পেমেন্ট এবং ফিনান্স টেকনোলজিস: এটিও খুবই সময় উপযোগী এবং সম্ভনাময় ডোমেইন।
অ) ধরা যাক, আমার ই-কমার্স সাইটে আমি আমার কাস্টমার এর ব্যাঙ্ক একাউন্ট ইনফরমেশন নিবো। ইনপুট এরর কমানোর জন্য আমি ব্যাঙ্ক কোড, ব্যাঙ্ক নাম, ব্র্যাঞ্চ কোড, ব্র্যাাঞ্চ নাম ইত্যাদি ব্যাঙ্ক মাস্টার থেকে পপুলেইট করতে চাই। আমার জানা মতে বর্তমানে এর জন্য প্রয়োজনীয় ডাটা প্ল্যাটফর্ম, এপিআই এবং সার্ভিস নেই।

কি করা যেতে পারে প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে-
প্রথম পদক্ষেপ: বিজনেস অব্জেক্টস এবং ডাটা অব্জেক্টস যেগুলো ন্যাশনাল লেভেল এ মেইনটেইন করা প্রয়োজন সেগুলো শনাক্ত করা। উদাহরণ: নাগরিক, ব্যাঙ্ক, অবস্থান ইত্যাদি।
দ্বিতীয় পদক্ষেপ: ডিফাইন এবং স্টেন্ডার্ডইজ কমন স্কিমা। উদাহরণ: ব্যাঙ্ক অবজেক্ট এর কতগুলো ডাটাফিল্ড হবে, ডাটাফিল্ড এর টাইপ এবং ডাটা লেংথ কেমন হবে, ব্যাঙ্ক কোড, ব্র্যাঞ্চ কোড, একাউন্ট নম্বর ইত্যাদি। যেমন জাপান এর উদাহরণ যদি দেখি সকল ব্যাঙ্ক একাউন্ট নম্বর এর ডাটাফিল্ড এর ব্যাপ্তি সাত অংকের, ব্যাঙ্ক কোড চার অংকের, এবং ব্রাঞ্চ কোড তিন অংকের।
তৃতীয় পদক্ষেপ: যথাযথ কর্তৃপক্ষ শনাক্তপূর্বক তাদেরকে ওনার হিসাবে দায়িত্ব দেয়া। দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্তৃপক্ষ স্কিমা, ডাটা এবং সার্ভিস মেইনটেইন করবে। যথাযথ সার্ভিস চার্জ নিয়ে এই সার্ভিস এন্টারপ্রাইজদের নিকট এভেইল্যাবল করবে।

-লেখক-সাইফুল হক, এন্টারপ্রাইজ আর্কিটেক্ট, আশুরিওন, জাপান
সাবেক হেড অফ আইটি, বিএমডাব্লিউ জাপান