বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবে সায়মা মেহেদী ও সামিন আলম

টেলিনর ইয়ুথ ফোরাম (টিওয়াইএফ) ২০১৮’র গ্র্যান্ড ফিনালেতে আট ফাইনালিস্টের মধ্যে থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএ’র শিক্ষার্থী সায়মা মেহেদী খান এবং ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির সামিন আলম বিজয়ী হয়েছেন। রবিবার রাজধানীর বসুন্ধরায় জিপি হাউজে গ্র্যান্ড ফিনালে অনুষ্ঠিত হয়।

এই বিজয়ীরা আগামী ডিসেম্বরে টেলিনরের কার্যক্রম রয়েছে এমন সাতটি দেশের প্রতিনিধিদের সঙ্গে যোগ দিতে নরওয়ের রাজধানী অসলোতে যাবে।

গ্র্যান্ড ফিনালেতে প্রধান অতিথি ছিলেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, দেশের নানান স্টার্টআপের সফল উদ্যেক্তা, সরকারি কর্মকর্তা, ডিজিটাল ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম বিশেষজ্ঞ এবং বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, আমাদের তরুণরা নতুন নতুন প্রযুক্তি নিয়ে সামাজিক সমস্যা সমাধানে কাজ করছে দেখে খুবই আনন্দ বোধ করছি। তারা বিশ্বের যে কোনো মঞ্চে নিজেদের প্রমাণ করার যোগ্যতা রাখে। তাদের এমন একটি বৈশ্বিক মঞ্চে যাবার সুযোগ করে দেয়ার জন্য আমি গ্রামীণফোন ও টেলিনর গ্রুপকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

টেলিনরের কার্যক্রম রয়েছে এমন আটটি দেশের ১৮ থেকে ২৮ বছর বয়সী তরুণদের সবার সামনে নিজেদের জীবন পরিবর্তনকারী ধারণা উপস্থাপনের সুযোগ করে দিতে নোবেল পিস সেন্টারের সাথে যৌথভাবে প্রতি বছর টেলিনর ইয়ুথ ফোরাম আয়োজন করে টেলিনর গ্রুপ।

 

টিওয়াইএফে প্রতিবছর দু’জন তরুণ বিজয়ী হিসেবে মনোনীত হয় এবং টেলিনর ইয়ুথ ফোরামের বৈশ্বিক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করে। এ বছরের বিজয়ী ধারণাগুলো হলো কৃষি নেট এবং প্রোজেক্ট সুরক্ষা।

একটি কঠোর নির্বাচনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে অংশগ্রহণকারীদের নির্বাচন করা হয় এবং তারা পরবর্তীতে গ্রামীণফোনের বিশেষজ্ঞ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান থেকে আগত বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে জুরিবোর্ডের সামনে তাদের ধারণা উপস্থাপন করে। আটজনের মধ্যে থেকে সেরা ধারণা উপস্থাপনকারী দুইজনকে বিজয়ী হিসেবে নির্বাচিত করে বিচারক প্যানেল।

সিনিউজভয়েস//ডেস্ক/

 

Please Share This Post.