৭ হাজার বাংলাদেশীর কর্মসংস্থান হচ্ছে অগমেডিক্সে

ইউএস ভিত্তিক গুগল গ্লাস স্টার্টআপ ও স্বাস্থ্যসেবা কোম্পানি অগমেডিক্স আগামী ৫ বছরে বাংলাদেশ থেকে ৭ হাজার জনবল নিয়োগের ঘোষণা দিয়েছে। ১০ মার্চ ২০১৭ শুক্রবার সন্ধ্যায় অগমেডিক্স ভবনে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ পরিকল্পনার কথা জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, কোম্পানির নিয়োগ পরিকল্পনা নিয়ে অগমেডিক্সের কো-ফাউন্ডার পেলু ট্র্যান এবং কোম্পানির শীর্ষ বিনিয়োগকারী অরবিমেড-এর ভেঞ্চার পার্টনার স্টিভেন ইয়েসিয়েছ চলতি সপ্তাহে বাংলাদেশ সফর করছেন এবং স্থানীয় ব্যবসায়ীদের সাথে কোম্পানির নিয়োগ পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করছেন। পরবর্তী ৫ বছরে অগমেডিক্স ও এর পার্টনাররা ঢাকাসহ সমগ্র বাংলাদেশ থেকে প্রচুর জনবল নিয়োগ দিবে যারা আমেরিকার ডাক্তারদের রিমোট পার্সোনাল এসিস্ট্যান্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

অগমেডিক্সের কো-ফাউন্ডার পেলু ট্র্যান এবং অরবিমেড-এর ভেঞ্চার পার্টনার স্টিভেন ইয়েসিয়েছ-এর উপস্থিতিতে ও অগমেডিক্স বাংলাদেশের ম্যানেজিং ডিরেক্টর আহমাদুল হকের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, এমপি। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী, অগমেডিক্সের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা ও বিভিন্ন গণমাধ্যমকর্মীবৃন্দ।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, এমপি বলেন, বাংলাদেশ এখন ইমার্জিং টেকনোলজির জন্য গন্তব্য এবং দেশের মেধাবী যুবকদের কল্যানে উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে আমাদের শীর্ষ উদাহরণ হচ্ছে অগমেডিক্স।

তিনি আরও বলেন, অগমেডিক্স বাংলাদেশে ৭ সহস্রাধিক তরুণ কর্মী নিয়োগের সিদ্ধান্তটি সত্যিই প্রসংশনীয়। আইসিটি মন্ত্রণালয় এলআইসিটি প্রোগ্রামের মাধ্যমে অগমেডিক্সের জন্য প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষিত জনবল সরবরাহ করতে কাজ করছে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশে বৈদেশিক বিনিয়োগে আগ্রহী করতে সরকারের উদ্যোগ হিসেবে অগমেডিক্স বাংলাদেশ একটি মডেল উদাহরণ।

অগমেডিক্সের কো-ফাউন্ডার পেলু ট্র্যান বলেন, অগমেডিক্সের পরিচালনা কাজে ও আমেরিকার ডাক্তারদের সাথে মেধাবী স্ক্রাইবদের সংযোগ ঘটাতে বাংলাদেশ একটি আদর্শ জায়গা।  তিনি আরো বলেন, পুরো বাংলাদেশ জুড়েই ইংরেজি প্রচলিত আছে এবং দেশের ৫০ শতাংশ জনসংখ্যাই ২৫ বছরের নিচে ও খুবই প্রযুক্তি পারদর্শী। মেধা, যুব ও শিক্ষার এই সমন্বয় শক্তিশালী বিজনেস প্রসেস আউটসোর্সিং-এর জন্য সীমাহীন সম্ভাবনা তৈরি করেছে।

অগমেডিক্স সেবার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ কেবলমাত্র স্ক্রাইব সরবরাহই করছে না, কোম্পানির মূল অগমেডিক্স সফটওয়্যার এর ধারনা (কনসেপ্ট) থেকে শুরু করে ডেভেলপমেন্ট, টেস্টিং ও সাপোর্ট – সবই মেড ইন বাংলাদেশ। ২০১২ সাল থেকে চালু হওয়া কোম্পানির পান্থপথ কার্যালয়ে বর্তমানে প্রায় ১ ডজন ইঞ্জিনিয়ার ও অন্যান্য সাপোর্ট স্টাফ কাজ করছেন।

অরবিমেড-এর ভেঞ্চার পার্টনার স্টিভেন ইয়েসিয়েছ বলেন, আমাদের বাংলাদেশ টিমের মান নিয়ে আমরা খুবই খুশি এবং তারা অগমেডিক্সের উন্নয়নে অনেক অবদার রাখছে।  তিনি আরো বলেন, সান ফ্রান্সিসকো, ঢাকা এবং অন্যান্য গ্লোবাল ও দেশীয় পার্টনারদের সাথে আমরা ক্রমাগত উন্নতি চালিয়ে যেতে চাই। আমরা চিকিৎসকদের সহযোগীতা ও স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে কাজ করে যাবো যেখানে চিকিৎসকদের উৎপাদনক্ষমতা ও পেশাগত সন্তুষ্টি আরো বাড়বে।

অগমেডিক্স বাংলাদেশের ম্যানেজিং ডিরেক্টর আহমাদুল হক বলেন, আমরা বাংলাদেশ থেকে দেশের গন্ডি পেরিয়ে প্রযুক্তিনির্ভর সেবা দিয়ে যাচ্ছি এবং ব্যাপক সন্তোষজনক মতামত পাচ্ছি।

Augmedix logo

তিনি আরও বলেন অগমেডিক্স দ্রুতই বিশ্বব্যাপি ব্যবসা সম্প্রসারণ করে যাচ্ছে এবং আইসিটি মন্ত্রণালয় ও হাই টেক পার্ক অথরিটির সহয়াতায় আগামী ৫ বছরে আমাদের কোম্পানিতে ৭ হাজার দক্ষ জনবল নিয়োগ দেয়া হবে।

উল্লেখ্য, গত ডিসেম্বরে অরবিমেড ২৩ মিলিয়ন ইউএস ডলার বিনিয়োগের মাধ্যমে স্ট্রাটেজিক পার্টনার হিসেবে অগমেডিক্সের সাথে কাজ শুরু করে। ঢাকা সফরকালে অগমেডিক্স কো-ফাউন্ডার পেলু ট্র্যান ও অরবিমেড-এর ভেঞ্চার পার্টনার স্টিভেন ইয়েসিয়েছ বিভিন্ন সরকারি কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ীদের সাথে সাক্ষাত করবেন। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, এমপি ছাড়াও স্কয়ার গ্রুপের ম্যানেজিং ডিরেক্টর তপন চৌধুরীর সাথেও সাক্ষাত করবেন এই প্রতিনিধি দল।

২০১২ সালে যাত্রা শুরু করে অগমেডিক্স। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত যুক্তরাষ্ট্রের ইয়ান শাকিল ও কো-ফাউন্ডার পেলু ট্র্যান অগমেডিক্সের উদ্যোক্তা। এ উদ্যোগ ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের বড় পাঁচটি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে প্রায় ১৭ মিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগ পেয়েছে। বর্তমানে অগমেডিক্স যুক্তরাষ্ট্রের ৩০ টিরও বেশি স্টেটে প্রাইমারি কেয়ার ডক্টর, স্পেশালিস্ট ও সার্জনদের সেবা দিয়ে আসছে যারা প্রতিদিন প্রায় ৫ হাজার রোগি দেখেন।

অগমেডিক্স সম্পর্কে
অগমেডিক্স সববিভাগেই প্রথম এবং সর্ববৃহৎ গুগল গ্লাস স্টার্টআপ। এর সেবা বাধ্যতামূলক তালিকা প্রস্তুতি থেকে ডাক্তারদের মুক্তি দেয় এবং একই সাথে রোগীর চাহিদা ও মানসম্পন্ন সেবার প্রতি দৃষ্টি দেয়। পরীক্ষাগারে প্রবেশের পূর্বে একজন ডাক্তার গুগল গ্লাস পড়ে নেয় এবং তারপরে কম্পিউটারের পর্দায় তাদের দৃষ্টি না দিয়ে রোগীদের সাথে কথা বলতে অগ্রসর হন। ফর্ম, হেলথ হিস্ট্রোরি, ল্যাব র্অর্ডাস, প্রেসক্রিপশনস এবং অন্যান্য বিষয়গুলো সম্পন্ন হয়ে যায় একটি রিমোট স্ক্রাইব, ভার্বাল নোট ও কমান্ডের মাধ্যমে। এই সেবাটি ঐওচঅঅ কমপ্লায়েন্ট, সকল ঊঐজ এর সাথে কাজ করে এবং ডাক্তারদের কর্মদক্ষতা ৩০ শতাংশেরও বেশি বৃদ্ধি পায়। আরও তথ্যের জন্য ভিজিট করুন: www.augmedix.com

অরবিমেড সম্পর্কে
অরবিমেড স্বাস্থ্যসেবাখাতের একটি শীর্ষ বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান যাদের বর্তমানে ১৪ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি সম্পদ রয়েছে। বিশ্বব্যাপি ভেঞ্চার কেপিটাল স্টার্টআপ থেকে শুরু করে বৃহৎ বহুজাতিক স্বাস্থ্যসেবা কোম্পানিতে বিনিয়োগ করে প্রতিষ্ঠানটি। অরবিমেডের প্রায় ৯০ জনের টিম অনেকগুলো প্রাইভেট ইকুইটি ফান্ড, পাবলিক ইকুইটি ফান্ড, রয়্যালটি/ ডেবট ফান্ড ও অন্যান্য খাতের বিনিয়োগ পরিচালনা করছে। নিউ ইয়র্ক সিটিতে অবস্থিত হেডকোয়ার্টার ছাড়াও সান ফ্রান্সিসকো, মুম্বাই, সাংহাই এবং হার্জলিয়ায় অরবিমেডের অফিস রয়েছে।

-গোলাম দাস্তগীর তৌহিদ