বাংলাদেশসহ বিশ্বব্যাপি ১০ মিলিয়ন হুয়াওয়ে পি৯ ও পি৯ প্লাস বিক্রি

বিশ্বব্যাপি ১০ মিলিয়ন পি৯ ও পি৯ প্লাস বিক্রির মাইলফলক অতিক্রম করেছে হুয়াওয়ে। দুর্দান্ত ক্যামেরার পি৯ স্মার্টফোনটির বিশেষ ফিচার হচ্ছে লাইকার ডুয়েল লেন্স ক্যামেরা। এটিই হুয়াওয়ের প্রথম কোনো ফ্ল্যাগশীপ মডেল যেটি ১০ মিলিয়ন বিক্রির মাইলফলক ছুঁয়েছে। এ সাফল্য পণ্য এমনকি ব্র্যান্ড হিসেবে হুয়াওয়েকে ঈর্ষণীয় উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছে। উত্থান-পতন থাকা সত্যেও স্মার্টফোনের বাজারে গত ২০১৬ সালে হুয়াওয়ের প্রিমিয়াম ডিভাইসটি ব্যাপক সফলতা বয়ে এনেছে যা বিশ্ব বাজারে স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে হুয়াওয়ের বিনিয়োগ ইতিবাচক প্রমাণ করেছে।

গত বছরের এপ্রিল মাসে উন্মোচিত হওয়া পি৯ ডিভাইসটি জার্মানীর বিখ্যাত ক্যামেরা নির্মাতা প্রতিষ্ঠান লাইকা এজি-এর সঙ্গে মিলে তৈরি করে হুয়াওয়ে। এই অংশীদারিত্ব স্মার্টফোনে নতুন এবং উন্নত ক্যামেরা যুক্ত করার ক্ষেত্রে মানদন্ড তৈরি করেছে যা স্মার্টফোন দিয়ে অসাধারণ ছবি তোলার অভিজ্ঞতা নিয়ে এসেছে।

বিশ্বব্যাপি বাজারে আসার মাত্র ছয় সপ্তাহেই ২.৬ মিলিয়নের বেশি পি৯ ডিভাইস রপ্তানী করেছে হুয়াওয়ে যার প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশেও। বাজারে আসার আট সপ্তাহের মাথায় বিশেষজ্ঞ ও গ্রাহকদের কাছ থেকে অভাবণীয় সাড়া পেয়েছে পি৯। বিশেষ করে ক্যামেরা, ডিজাইন এবং কর্মদক্ষতার বিচারে অল্প সময়ে এত জনপ্রিয়তা পেতে সক্ষম হয়েছে পি৯ ডিভাইসটি। ইআইএসএ-এর কাছ থেকে ইউরোপিয়ান কনজ্যুমার স্মার্টফোন ২০১৬-১৭ অ্যাওয়ার্ড, সিইএস এশিয়া থেকে বেস্ট পার্সোনাল কম্পিউটিং ডিভাইস অ্যাওয়ার্ড ছাড়াও শতাধিক আন্তর্জাতিক পাবলিকেশনগুলোর কাছ থেকে হুয়াওয়ে এই স্বীকৃতি পেয়েছে যে, স্মার্টফোনে উন্নত ক্যামেরার জন্য পি৯ ডিভাইসটি অন্যতম।

মডেলের গুলোর ব্যাপক সফলতার পাশাপাশি ফ্ল্যাগশীপ ডিভাইস মেইট ৮ ও মেইট ৯-এর চলমান সাফল্য বিশ্ব বাজারে হাই-অ্যান্ড স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে হুয়াওয়ে স্থান করে নিয়েছে। গত ২০১৬ সালের তৃতীয় প্রান্তিকে সারা বিশ্বে হুয়াওয়ে ৩৩.৫৯ মিলিয়ন স্মার্টফোন রপ্তানী করেছে যা গত ২০১৫ সালের একই সময়ের তুলনায় ২৩ শতাংশ বেশি। মিড-টু-হাই অ্যান্ড ডিভাইস রপ্তানীর ক্ষেত্রে ৪৪ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে হুয়াওয়ের। বর্তমানে বিশ্বের ৩০টি দেশে হুয়াওয়ের মার্কেট শেয়ার ১৫ শতাংশের বেশি, ২০টি দেশে ২০ শতাংশের বেশি। এছাড়া যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স এবং জার্মানীর বাজারে তাক লাগানো আধিপত্য বিস্তার করতে সক্ষম হয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। ২০১৬ সালের প্রথমার্ধের অর্থ বছরের ফলাফল অনুযায়ী, হুয়াওয়ে ৭৭.৪ বিলিয়ন আরএমবি মূল্যের ডিভাইস বিক্রি করেছে যা গত ২০১৫ সালের একই সময়ের তুলণায় ৪১ শতাংশ বেশি। বৃহত্তর চীনের বাজার থেকে অন্যান্য দেশের বাজারে হুয়াওয়ে ১.৬ গুণ বেশি ডিভাইস বিক্রি করেছে।

বিশ্বব্যাপি হুয়াওয়ে ব্র্যান্ডকে নিয়ে আলোচনা, প্রতিষ্ঠানটির বাজার দক্ষতা বৃদ্ধির সঙ্গে একই পথে সমান্তরালভাবে সামনের দিকে এগিয়ে গেছে। গত ২০১৬ সালে ইন্টারব্র্যান্ড-এর তালিকায় সেরা ১০০টি ব্র্যান্ডের মধ্যে ৭২তম স্থানে উঠে এসেছে। এছাড়া ব্র্যান্ড জেড-এর সেরা ১০০টি সেরা ব্র্যান্ডের তালিকায় ৫০তম স্থানে রয়েছে হুয়াওয়ে, গত ২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠানটি ছিলো ৭০তম স্থানে। জিএফকে-এর কনজ্যুমার জরিপ অনুযায়ী, চীনের ব্র্যান্ড র‌্যাংকিং -এ গত বছরের বেস্ট ব্র্যান্ডস ২০১৬-তে ‘বেস্ট কনজ্যুমার ইলেক্ট্রনিক্স ব্র্যান্ড হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

-সিনিউজভয়েস ডেক্স

Please Share This Post.