ফেসবুক লাইভে শেখাচ্ছে রবি-টেন মিনিট স্কুল

জেএসসি থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত সব স্তরের শিক্ষার্থীদের জন্য অনলাইনে মানসম্মত অ্যাডুকেশন কন্টেন্ট প্রচার করছে রবি-টেন মিনিট স্কুল। ফেসবুকের লাইভ ফিচারটি ব্যবহার করে দেশজুড়ে লাখ লাখ শিক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছে যাচ্ছে এই প্লাটফর্মটি। যাত্রা শুরু করার দুই বছরেরও কম সময়ের মধ্যে রবি-টেন মিনিট স্কুল দেশের শীর্ষ অনলাইন স্কুলে পরিণত হয়েছে।

ডিজিটাল অ্যাডুকেশন প্লাটফর্মটির সেবা গ্রহণ করা শিক্ষার্থীদের কাছে অনেক সহজ বলেই এটি এত দ্রুত জনপ্রিয়তার শিখরে উঠতে পেরেছে। একজন শিক্ষার্থী কোথায় আছেন তা কোনো ব্যাপার না, তিনি তার বাড়িতে বসে সহজেই প্লাটফর্মটি ব্যবহার করতে পারছেন। বিশেষত ঢাকার বাইরের শিক্ষার্থী যাদের মানস্মত শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ সীমিত তাদের জন্য একটি সঠিক বিকল্প এই প্লাটফর্মটি।

রবি-টেন মিনিট স্কুল’র প্রতিটি ডিজিটাল ক্লাসরুমে কমপক্ষে ১৫ হাজার শিক্ষার্থী অংশ নেন। রসায়নের নানা বিক্রিয়া, গণিতের বিভিন্ন কঠিন ধারণা বোঝানো বা দৈনন্দিন জীবনের সঙ্গে পদার্থবিজ্ঞানের সম্পর্ক ইত্যাদি নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করে প্লাটফর্মটি। শুধু তাই নয়, ফেসবুকের মাধ্যমে প্লাটফর্মটির স্কিল ডেভেলপমেন্ট ল্যাব’র আওতায় পাওয়ার পয়েন্ট বা ইলাস্ট্রেটর’র মতো সফটওয়্যারের টুলগুলো নিয়েও আলোচনা হয়। এছাড়া ফেসবুকে ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ ক্লাব’র মাধ্যমে বিনা মূল্যে শিক্ষার্থীদের ইংরেজি ভাষা শিক্ষার সুযোগ এনেছে রবি-টেন মিনিট স্কুল।

প্লাটফর্মটির সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ দিক হচ্ছে এটি শিক্ষক-শিক্ষার্থীর মধ্যে সম্পর্কের ধারণায় পরিবর্তন এনেছে। প্রথাগত প্রক্রিয়া ভেঙে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মাঝে কোনো নির্দিষ্ট বিষয় নিয়ে মুক্ত আলোচনার সুযোগ এনেছে রবি-টেন মিনিট স্কুল। লাইভ টেলিকাস্ট চলাকালে শিক্ষার্থীরা চ্যাটরুমে তাদের প্রশ্ন বা ভাবনা শিক্ষকের কাছে তুলে ধরতে পারেন যার উত্তর শিক্ষকরা সঙ্গে সঙ্গে দিয়ে থাকেন।

চলতি বছর বার্সেলোনায় অনুষ্ঠিত মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে সম্মানজনক গ্লোবাল মোবাইল অ্যাওয়ার্ডস অর্জন করেছে যুগান্তরকারী এই প্লাটফরমটি। ‘বেস্ট মোবাইল ইনোভেশন ফর অ্যাডুকেশন অ্যান্ড লানিং ক্যাটাগরি’তে অ্যাওয়ার্ডটি অর্জন করেছে রবি-টেন মিনিট স্কুল। www.facebook.com/10minuteschool সাইটটি ভিজিট করে শিক্ষার্থীরা এই ডিজিটাল ক্লাসরুমে যোগ দিতে পারেন।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.