ফেসবুকের সিইও হতে চান হিলারি!


সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী হওয়ার ইচ্ছা ব্যক্ত করেছেন। শুক্রবার হার্ভার্ডে ‘র‍্যাডক্লিফ মেডাল’ গ্রহণ করার সময় একথা বলেছেন ২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী। ‘সমাজে পরিবর্তনের প্রভাব এনেছেন’ এমন ব্যক্তিদের এই পদক দেওয়া হয়। খবর প্রযুক্তি সাইটে সিনেটের।

অনুষ্ঠানে ম্যাসাচুসেটস-এর অ্যাটর্নি জেনারেল ও ডেমোক্রেট সমর্থক মাউরা হিলি ক্লিনটনকে জিজ্ঞাসা করেন, তিনি কোন প্রতিষ্ঠানের প্রধান হতে চান। কোনো বিরতি ছাড়াই ক্লিনটন দ্রুত জবাব দেন ‘ফেসবুক’।

হিলারি ক্লিনটন আরও বলেন, এটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় খবরের প্লাটফর্ম। আমাদের দেশে বেশিরভাগ মানুষ ফেসবুক থেকে খবর পান, সত্য কি না?

ক্লিনটন স্বীকার করেছেন যে, ফেসবুক তাদের ‘ব্যবসায়িক মডেলের কিছু অপ্রত্যাশিত ফলাফল’ আটকানোর চেষ্টা করছে এবং নতুন করে মানুষের আস্থা ফিরে পেতে কাজ করছে। এটা সত্যি বিষয়টি আমাদের গণতন্ত্রের জন্য জটিল। মানুষ যে বিষয়গুলো থেকে সিদ্ধান্ত নেয় সে তথ্যগুলো যাতে সঠিক হয়।

এ বিষয়ে জানতে সিনেটের পক্ষ থেকে ক্লিনটন ফাউন্ডেশনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে কোনো মন্তব্য করেনি সংস্থাটি।

উল্লেখ্য, কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা ডেটা কেলেঙ্কারির ঘটনার পর পুনরায় গ্রাহকের আস্থা ফেরানোর চেষ্টা করছে ফেসবুক। এই কেলেঙ্কারির ঘটনায় ৮.৭ কোটি ফেসবুক গ্রাহকের তথ্য অবৈধভাবে শেয়ার করা হয়। পরবর্তীতে গোপনীয়তা এবং সেন্সরশিপ নিয়ে কংগ্রেসের সামনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় ফেসবুক প্রধান মার্ক জাকারবার্গকে। চলতি সপ্তাহের শুরুতে ইউরোপের নির্বাচনে ফেসবুকের প্রভাব কেমন ছিল তা আলোচনা করতে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টে যান জাকারবার্গ। তিনি বলেন রাজনৈতিক বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে নীতিমালা আনবে ফেসবুক।

সিনিউজভয়েস//ডেস্ক/


Please Share This Post.