ফেব্রুয়ারির ২২ তারিখ থেকে শুরু হবে বেসিস সফটএক্সপো

‘ডিজাইনিং দ্য ফিউচার’ স্লোগান নিয়ে আগামী ২২-২৫ ফেব্রুয়ারি, ৪ দিনব্যাপী বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) শুরু হতে যাচ্ছে দেশের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতের জনপ্রিয় প্রদর্শনী ‘বেসিস সফটএক্সপো ২০১৮’।

এ লক্ষ্যে বেসিস আডিটোরিয়ামে সোমবার সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর, সহ-সভাপতি ফারহানা এ রহমান, বেসিস সফটএক্সপোর আহ্বায়ক ও বেসিস পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল, পরিচালক রিয়াদ এস এ হুসেন এবং পরিচালক দেলোয়ার হোসেন ফারুক।

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) আয়োজিত তথ্যপ্রযুক্তির বৃহত্তম প্রদর্শনী সফটএক্সপোতে এবার প্রায় দুইশো দেশি-বিদেশি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের জন্য পণ্য ও সেবা প্রদর্শনের সুযোগ থাকছে।

প্রদর্শনী এলাকাকে পাঁচটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। রয়েছে সফটওয়্যার সেবা প্রদর্শনী জোন, উদ্ভাবনী মোবাইল সেবা জোন, ডিজিটাল কমার্স জোন, আইটিইএস ও বিপিও জোন এবং ক্লাউড কম্পিউটিং জোন। থাকবে ৩০টিরও বেশি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক সেমিনার, যেখানে বক্তব্য রাখবেন এক শতাধিক দেশি-বিদেশি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ।

দেশি-বিদেশি ব্যবসায়ীদের জন্যে থাকছে বি-টু-বি ম্যাচমেকিং সেশন। যার মাধ্যমে ব্যবসায়ীরা নিজেদের ব্যবসার প্রসার খুব সহজেই করতে পারবেন। পাশাপাশি থাকবে আইটি জব ফেয়ার জোন, যেখান থেকে দেশি-বিদেশি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোতে কাজের সুযোগ থাকছে।

এক প্রশ্নের উত্তরে বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর বলেন, সফটঅয়্যার ইন্ড্রাষ্ট্রিতে সব মিলিয়ে ৫ লাখের মতো জনবল কাজ করছে। আমরা ১০ লক্ষ দক্ষ জনবল তৈরী করতে পারলে আমাদের সফটঅয়্যার বা সেবা খাত আরো এগিয়ে যাবে, তখন চাকুরীর বাজার আরো সম্প্রসারিত হবে। আমরা ক্লাউড কম্পিউটিং এর ভীতি দূর করতে বিভিন্ন প্রকার কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছি। পাশাপাশি নতুন নতুন প্রযুক্তির সাথে দেশের মানুষের সাথে পরিচয় করতে নানা রকম কায্যক্রম মেলা সহ সব সময় অব্যহত থাকবে।

অনুষ্ঠানে বেসিস সফটএক্সপো ২০১৮’র আহ্বায়ক বেসিস পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল বলেন, বেসিস সফটএক্সপোর মাধ্যমে দেশীয় আইটি প্রতিষ্ঠানসমূহ নিজেদের সেবা আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে তুলে ধরার সুযোগ পাচ্ছেন, পাশাপাশি বেসিস স্টুডেন্ট ফোরামের সদস্যরা নিজেদের উদ্ভাবনী প্রকল্পগুলো তুলে ধরার পাশাপাশি তথ্য-প্রযুক্তি খাতের অগ্রগতি সস্পর্ন  করতে পারছে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, আমরা ক্লাউড সেবা দেশেই বিভিন্ন ভাবে ডাটা বা তথ্যে ভান্ডার মানে সার্ভার সেবা এখন শুধু বিদেশ নির্ভর না আমাদের দেশীয় কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান আস্থার সাথে ক্লাউড সেবা দিয়ে যাচ্ছে। সোহেল বলেন, সত্যি কথা আমার এক বিলিয়ন ডলারের যে টার্গেট নিয়ে ২০১৮ সালের মধ্যে অর্জন কারবো তার নির্দিষ্ঠ প্ল্যান না থাকলো সরকার ও ইন্ড্রাষ্ট্রি সমন্নয়ের মাধ্যমে অর্জন করতে পারবো বলো আশা করছি।

বেসিস সফটএক্সপো ২০১৮’র যা যা থাকছে:
চারদিন ব্যাপী আয়োজন ২২-২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮, স্থান : বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি)
৫টি বিশেষ জোন- (ক) সফটওয়্যার সেবা প্রদর্শনী জোন, (খ) উদ্ভাবনী মোবাইল সেবা জোন, (গ) ডিজিটাল কমার্স জোন
(ঘ) আইটিইএস ও বিপিও জোন এবং (ঙ) ক্লাউড কম্পিউটিং জোন।
এছাড়াও ১৮০টিরও বেশি দেশি-বিদেশি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের স্টল থাকছে। ৩০টিরও বেশি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক সেমিনার, ১০০ জনেরও বেশি দেশি-বিদেশি তথ্য ও প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞের অংশগ্রহণ করবেন। থাকছে আইটি জব ফেয়ার, ব্যবসা প্রসারের লক্ষ্যে দেশি-বিদেশি ব্যবসায়ীদের বি-ট-ুবি ম্যাচমেকিং সেশন সহ নানা রকম আয়োজন।

বিস্তারিত তথ্যে ও মেলা অংশগ্রহনের বা বুকিং এর জন্য ভিজিট করুন: www.softexpo.com.bd

– গোলাম দাস্তগীর তৌহিদ