প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতার জাতীয় পর্বে রাজধানীর ১০০ ক্ষুদে প্রোগ্রামার

কম্পিউটার হ্যাক হলে কী করতে হয়? কীভাবে সহজে প্রোগ্রামিং শেখা যায়? প্রোগ্রামিং-এর মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ কতদূর আগালো? গ্রামের শিক্ষার্থীদের কীভাবে প্রোগ্রামিং-এ যুক্ত করা যায়? এরকম নানা বুদ্ধিউদ্দীপক ও মজার প্রশ্ন করছিল ক্ষুদে প্রোগ্রামাররা।

এক এক করে সেগুলোর উত্তর দিচ্ছিল বিশিষ্টজনেরা। আর প্রতিটি প্রশ্নের উত্তর শিক্ষার্থীদের অনুপ্রাণিত করছে নতুন প্রশ্ন করার। এমন চিত্র দেখা গেছে আইসিটি বিভাগ আয়োজিত জাতীয় হাইস্কুল প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতার ঢাকা মহানগর আঞ্চলিক পর্বে।

শুক্রবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হল ও ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজি (আইআইটি)-তে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকালে বেলুন উড়িয়ে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর আ আ ম শ আরেফিন সিদ্দিক। এ সময় তিনি শিক্ষার্থীদের কম্পিউটারে দক্ষতা বাড়ানোর পাশাপাশি মানবিক গুনাবলীতে ঋদ্ধ হওয়ার আহবান জানান। তিনি বলেন, মানুষে মানুষে বিচ্ছিন্নতা বেড়ে যাওয়ায় বিশ্বজুড়ে হানাহানি বেড়ে যাচ্ছে্। নতুন প্রজন্মকে এ ব্যাপারে আরো সতর্ক হতে হবে।

উদ্বোধনী পর্বে আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মোহা্মদ কায়কোবাদ, আইসিটি বিভাগের উপ-সচিব মাহবুবে পান্ন ও আইআইটির পরিজালক অধ্যাপক মুহাইমনুস সাকিব। এছাড়া দিনভর নানান আয়োজনে আরও উপস্থিত ছিলেন আইআইটির ড. জেরিনা বেগম, ড. শরিফুল ইসলাম, ড. মইনুল হোসেন, সাঈদ সিদ্দিক আয়োজনের সহযোগী বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্কের সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিএসই বিভাগের শিক্ষক হাসনাইন হেইকেল প্রমুখ।

আইসিটি কুইজ ও প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা শেষে মোট ১০০ জনকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। বিজয়ীরা আগামী ৭ এপ্রিল ঢাকার কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে অনুষ্ঠেয় জাতীয় পর্বে অংশ নেবে।

উল্লেখ্য যে, দেশের হাইস্কুলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে কম্পিউটার প্রোগ্রামিংকে জনপ্রিয় ও তাদের দক্ষতা বাড়ানোর জন্য সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ তৃতীয়বারের মতো জাতীয় হাইস্কুল আইসিটি কুইজ ও প্রোগ্রমিং প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে। ১৬টি আঞ্চলিক ও ৩টি উপজেলা পর্যায়ের বিজয়ীরা ঢাকায় জাতীয় পর্যায়ে অংশ নেবে। এর পর ধারাবাহিক নির্বাচনের মাধ্যমে ইরানের তেহরানে অনুষ্ঠেয় আন্তর্জাতিক ইনফরমেটিক্স অলিম্পিয়াডের জন্য বাংলাদেশের সদস্যদের নির্বাচন করা হবে। বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক (বিডিওএসএন) প্রতিযোগিতার বাস্তবায়ন সহযোগী হিসাবে এবং কোড মার্শাল জাজিং প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

আগামী ২৭ মার্চ বাংলাদেশ আর্মি ইন্টারন্যাশনাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, কুমিল্লা ও শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় সিলেটে যথাক্রমে কুমিল্লা ও সিলেট অঞ্চলের প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। একই দিন চট্টগ্রামের আরোয়ারা উপজেলায় অনুষ্ঠিত হবে আনোয়ারা উপজেলা পর্ব। প্রতিযোগিতার সময়সূচি www.nhspc.org ওয়েবসাইট ও www.facebook.com/nhspcbd ফেসবুক পেজে পাওয়া যাবে।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.