প্রিমো জি-সেভেনের উন্নত সংস্করণ আনলো ওয়ালটন

নতুন স্মার্টফোন প্রিমো ‘জি-সেভেন প্লাস’ বাজারে ছেড়েছে ওয়ালটন। এটি ‘জি-সেভেন’ মডেলের উন্নত সংস্করণ। নতুন মডেলে বাড়ানো হয়েছে র্যাাম, স্টোরেজ এবং রিয়ার ক্যামেরার ক্ষমতা। ফলে ফোনের কার্যকারিতা বেড়েছে দ্বিগুণ। সম্ভব হচ্ছে আরো বেশি স্পষ্ট ও মানসম্পন্ন ছবি তোলা এবং ভিডিও ধারণ।

প্রথম বাংলাদেশি ব্র্যান্ড হিসেবে গত মার্চে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের সর্বশেষ সংস্করণ নূগাট ৭.০ পরিচালিত প্রিমো জি-সেভেন বাজারে ছাড়ে ওয়ালটন। বাজারে আসার পর পরই গ্রাহক পর্যায়ে ব্যাপক চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে দুই মাসের মধ্যে স্মার্টফোনটির উন্নত সংস্করণ আনলো ওয়ালটন।

ওয়ালটনের সেলুলার ফোন গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগের ডেপুটি ডিরেক্টর আরিফুল হক রায়হান জানান, ‘প্রিমো জি-সেভেন বাজারে আসার পরপরই ব্যাপক সাড়া ফেলে। বিশেষ করে অ্যান্ড্রয়েডের সবচেয়ে আকর্ষণীয় ও উন্নত সংস্করণ নূগাট পরিচালিত হওয়ায় ফোনটি প্রযুক্তিপ্রেমিদের কাছে দারুণভাবে সমাদৃত হয়। গ্রাহক চাহিদাকে প্রাধান্য দিয়ে র্যা ম, স্টোরেজ ও রিয়ার ক্যামেরাসহ বেশকিছু ফিচার বাড়িয়ে নতুন মডেলটি বাজারে ছাড়া হয়েছে।’

ওয়ালটনের নতুন এই হ্যান্ডসেটে ব্যবহৃত হয়েছে ৫.৫ ইঞ্চির আইপিএস এইচডি প্রযুক্তির ২.৫ডি কার্ভড (বাঁকানো) গ্লাসের ডিসপ্লে। এতে ১৬.৭ মিলিয়ন কালার সাপোর্টেড ১২৮০ বাই ৭২০ রেজুলেশনের পর্দা থাকায় পাওয়া যাবে আরো স্পষ্ট ও জীবন্ত ছবি। ২.৫ডি কার্ভড গ্লাস ডিসপ্লে প্যানেল ব্যবহারের ফলে স্ক্রিন টাচে গ্রাহক আরো বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন। মিরা ভিশন ডিসপ্লে প্রযুক্তি ব্যবহার করায় ছবি ও ভিডিওর কালার হবে ভাইব্রান্ট ও বৈচিত্রময়। মাল্টি-উইন্ডো প্রযুক্তি থাকায় একই সঙ্গে ডিসপ্লেতে একাধিক অ্যাপস ব্যবহার করা যাবে। ডিসপ্লেকে আঘাত ও আঁচর থেকে সুরক্ষা দিতে থাকছে কর্নিং গরিলা গ্লাস ২।

উন্নত পারফরম্যান্সের জন্য ‘জি-সেভেন প্লাস’-এ ব্যবহৃত হয়েছে ১.৩ গিগাহার্জ গতির কোয়াড কোর প্রসেসর। ২ গিগাবাইট র্যািম। গ্রাফিক্স থাকছে মালি-৪০০ জিপিইউ। ১৬ গিগাবাইট ইন্টারনাল স্টোরেজ। সুবিধা রয়েছে ৬৪ জিবি পর্যন্ত বর্ধিত মেমোরি ব্যবহারের।

g7..

ঝকঝকে ও নিখুঁত ছবি তুলতে এই স্মার্টফোনে রয়েছে বিএসআই সেন্সরযুক্ত অটোফোকাস ও এলইডি ফ্ল্যাশসহ ১৩ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরা। যাতে ফুল এইচডি (১০৮০ বাই ১৯২০) মোডে ভিডিও ধারণ করা যাবে। সেলফিপ্রেমীদের জন্য ফোনটিতে আছে বিএসআই সেন্সরযুক্ত ৮ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা। এলইডি ফ্ল্যাশ থাকায় অন্ধকার বা কম আলোতেও স্পষ্ট সেলফি তোলা যাবে। ক্যামেরায় নরমাল মোড ছাড়াও আছে ফেস বিউটি, ফেস ডিটেকশন, ডিজিটাল জুম, সেলফ-টাইমার, অটো-ফোকাস, কন্টিনিউয়াস ফোকাস, টাচ ফোকাস, হোয়াইট ব্যালান্স, এইচডিআর, প্যানোরমা, সিন মোডসহ বিভিন্ন আকর্ষণীয় মোড।

‘জি-সেভেন প্লাস’-এ ব্যবহৃত হয়েছে ২৮০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি। ফলে স্মার্টফোনটিতে দীর্ঘক্ষণ ব্যাটারি ব্যাকআপ মিলবে। ইন্টিগ্রেটেড ব্যাটারি সেভার থাকায় চার্জ খরচ কম হবে। ডুরা স্পিড প্রযুক্তি অব্যবহৃত অ্যাপস ইনঅ্যাকটিভ করে রাখবে। ফলে ফোনের গতি ও পারফরম্যান্স বাড়বে এবং একই সঙ্গে ব্যাটারি সাশ্রয় হবে।

থ্রিজি সাপোর্টেড দুই সিমের ফোনটির কানেক্টিভিটির জন্য আছে ওয়াই-ফাই, ব্লুটুথ ভার্সন ৪, ল্যান হটস্পট, ওটিএ ও মাইক্রো ইউএসবি২ সুবিধা, জিপিএস নেভিগেশন, অ্যাকসিলেরোমিটার (থ্রিডি) ইত্যাদি। মাল্টিমিডিয়া ফিচার হিসেবে আছে ফুল এইচডি ভিডিও প্লে-ব্যাক ও রেকর্ডিং সুবিধাসহ এফএম রেডিও।

এতসব উন্নত ফিচারসমৃদ্ধ প্রিমো ‘জি-সেভেন প্লাস’ স্মার্টফোনের দাম মাত্র ৮ হাজার ৫৯০ টাকা। দেশের সব ওয়ালটন প্লাজা ও ব্র্যান্ডেড আউটলেটে পাওয়া যাচ্ছে নতুন এই ফোন। ক্রেতাদের রুচি ও চাহিদার ভিন্নতা অনুযায়ী কফি, সোনালি ও ধূসর রঙে ছাড়া হয়েছে ওয়ালটনের নতুন এই স্মার্টফোন। ফোনটিতে থাকছে ১ বছরের বিনা মূল্যের বিক্রয়োত্তর সেবা।

জানা গেছে, নতুন এই স্মার্টফোন ছাড়াও দেশের সকল ওয়ালটন প্লাজা ও ব্র্যান্ডেট আউটলেটে ০% ইন্টারেস্টে ৬ মাসের ইএমআই সুবিধায় কেনা যাচ্ছে যে-কোনো মডেলের ওয়ালটন স্মার্টফোন। একই সঙ্গে ১২ মাসের কিস্তি সুবিধাও রয়েছে।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.