প্রযুক্তির নতুন সংযোজন নিয়ে অনুষ্ঠিত হল দারাজ ডিজিটাল সেলার সামিট

দেশের বৃহত্তম অনলাইন মার্কেটপ্লেস এবং আলিবাবা গ্রুপের অঙ্গ সংগঠন দারাজ বাংলাদেশ, ই-কমার্স বিক্রেতাদের সুবিধার কথা মাথায় রেখে তৃতীয়বারের মত আয়োজন করল সেলার সামিট। এই করোনার সময়ে সেলারদের স্বাথ্যঝুঁকির কথা খেয়াল রেখে জাঁকজমকপূর্ণ কোন ইভেন্ট না করে এবার অনলাইন ইভেন্টের আকারে সম্পন্ন হয়েছে অনুষ্ঠানটি। প্রায় দেড় হাজার সেলার দারাজ সেলার পেইজ লাইভের মাধ্যমে যুক্ত ছিলেন এই  ডিজিটাল অনুষ্ঠানে। দারাজ সেলার সামিট মূলত দারাজ বাংলাদেশ আয়োজিত একটি অনলাইন ইভেন্ট যা আসন্ন মেগা ইভেন্ট ইলেভেন ইলেভেন সংক্রান্ত তথ্য, অ্যাপের নতুন ফিচার ব্যবহার এবং ব্যবসা বৃদ্ধির উপায় সমূহ নিয়ে একটি আলোচনা সভা।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে গোটা বিশ্বজুড়ে পরিচালিত চীনা ই-কমার্স কোম্পানি আলিবাবার ইকোসিস্টেমে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর থেকে দারাজে যেসব নিত্যনতুন প্রযুক্তিগত পরিবর্তন আসছে সে সম্পর্কে বিক্রেতাদের অবগত রাখাই এই আয়োজনের মূল লক্ষ্য।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দারাজ বাংলাদেশ লিমিটেডের ম্যানেজিং ডিরেক্টর জনাব সৈয়দ মোস্তাহিদল হক এবং অন্যান্য উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের মধ্যে ছিলেন জনাব ফুয়াদ আরেফিন- চিফ কমার্শিয়াল অফিসার ও চিফ অপারেটিং অফিসার জনাব খন্দকার তাসফিন আলম  প্রমুখ। দারাজের বর্তমান এবং ভবিষ্যতের পরিকল্পনাসমূহ, করোনাকালীন সঙ্কট থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর উপায়, দারাজ সেলার সেন্টারের ডিজিটাল টুল ব্যবহারের নিয়ম এবং বিক্রয় বৃদ্ধির উপায়গুলো ছিল আলোচনার  মুখ্য বিষয়।

সেলার সামিট উপলক্ষ্যে, দারাজ বাংলাদেশের ম্যানেজিং ডিরেক্টর সৈয়দ মোস্তাহিদল হক বলেন “ আলিবাবা ইকোসিস্টেমে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর আমরা অনুধাবন করি যে আমরা আসলে দারাজ কে একটি ই- কমার্স প্ল্যাটফর্ম না একটি ইকোসিস্টেম বানাতে চাই। গত বছরের সেলার সামিটে আমরা এই বছরের যে টার্গেটটি দিয়েছিলাম তার অনেক কাছাকাছি রয়েছি, করোনার শুরুর প্রথম দিকে একটু হোঁচট খেলেও আমরা খুব অল্প সময়ের মধ্যে আবারো আগের জায়গায় চলে যেতে সক্ষম হয়েছি এবং তা  অবশ্যই সম্ভব আমাদের প্রিয় সেলারদের সমর্থনের মাধ্যমে।

 

Please Share This Post.