প্রডিজি ৫৪০জন তরুণের জ্ঞান ও দক্ষতা উন্নয়নে কাজ করছে

শনিবার বাংলা একাডেমিতে সিভিল সোসাইটি সংগঠন ডেমোক্রেসি ওয়াচ, সুশীলন, দ্য হাঙ্গার প্রজেক্ট, উত্তরণ ও ওয়েভ ফাউন্ডেশনের সাথে যৌথভাবে জাতীয় ইয়ুথ সামিটের আয়োজন করেছে ব্রিটিশ কাউন্সিল বাংলাদেশ।

ব্রিটিশ কাউন্সিল এর তরুণকেন্দ্রিক প্রকল্প প্রডিজি (প্রোমোটিং ডেমোক্রেটিক ইনক্লুশন অ্যান্ড গভর্নেন্স থ্রু ইয়ুথ)-এর অধীনে সামিটটি আয়োজন করেছে।

তরুণকেন্দ্রিক ক্লাব কার্যক্রম, মঞ্চ অভিনয়, স্থানীয় সরকারের সাথে সংযুক্তি, কমিউনটি রেডিও কর্মসূচি ও প্রকাশ্য সংলাপসহ নানা স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রমের মাধ্যমে বৃহত্তর সম্প্রদায়ের মানুষের সরকারি তথ্যে সকল সুযোগ নিশ্চিত করতে বৃহত্তর সম্প্রদায়ের সাথে তরুণদের যুক্ত করার ক্ষেত্রে প্রডিজি ৫৪০জন তরুণের জ্ঞান ও দক্ষতা উন্নয়নে কাজ করছে। এছাড়াও, সরকারি সব প্রয়োজনীয় ও তথ্যগত সহায়তা পাওয়ার মাধ্যমে সামাজিক পরিবর্তনে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সকল মানুষ যেনো অংশগ্রহণ করতে পারে ও ইতিবাচক অবদান রাখতে পারে এটা নিশ্চিত করতে প্রডিজি সকল অভিনব ও সৃষ্টিশীল সকল উদ্যোগকে সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে।

সরকারি সব তথ্য ও সেবায় মানুষের সুযোগ বৃদ্ধিতে তরুণরা যেনো তাদের অভিনব ও সৃষ্টিশীল কাজগুলো প্রদর্শন করতে পারে এ প্ল্যাটফর্ম করে দিতে প্রডিজির এ জাতীয় সামিটে ঢাকায় প্রডিজি নেটওয়ার্কের ৫০০ জন তরুণকে আমন্ত্রণ জানানো হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। অনুষ্ঠানে অন্যানের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন ব্রিটিশ কাউন্সিল বাংলাদেশের পরিচালক বারবারা উইকহ্যাম। অনুষ্ঠানে কুইন্স ইয়াং লিডার’স ২০১৬ বিজয়ী ও অ্যাকটিভ সিটিজেন সদস্য ওসামা বিন নূর তার ভাবনা ও সফল হওয়ার কাহিনি সবার সামনে তুলে ধরে উপস্থিত তরুণ তরুণীদের অনুপ্রাণিত করেন।

অনুষ্ঠানে আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, ‘বাংলাদেশ বর্তমানে ইতিহাসের একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। অন্তত আগামী ১৫ বছরের জন্য বাংলাদেশে জনসংখ্যার একটি বড় অংশ কাজ করার সঠিক বয়সে রয়েছে। যারা সঠিক নির্দেশনা ও উদ্যোগ পেলে বাংলাদেশকে সামাজিক-অর্থনীতিক ও গণতান্ত্রিকভাবে সমৃদ্ধির পরবর্তী ধাপে নিয়ে যেতে পারে। দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্মের জন্য সামাজিক উদ্যোগের সাথে শিক্ষাকে একীভূত করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’

বারবারা উইকহ্যাম বলেন, ‘ব্রিটিশ কাউন্সিল বিশ্বাস করে খুব অল্পসময়ে বাংলাদেশের সামগ্রিক উন্নয়ন সম্ভব। দেশটির এ দ্রুত উন্নয়নের সকল সম্ভাবনা রয়েছে। এক্ষেত্রে, আমাদের আশাবাদের প্রধান চালিকাশক্তি হলো বাংলাদেশের তরুণপ্রজন্ম। তারা বাংলাদেশকে দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও সামাজিক সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। বাংলাদেশি তরুণদের সামনে যে সম্ভাবনা রয়েছে সঠিক জ্ঞান ও সচেতনতার মাধ্যমে তা যেনো তারা বাস্তবে পরিণত করতে পারে এটা নিশ্চিত করতে আমরা প্রতিনিয়ত কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছি। প্রডিজি আমাদের আয়োজিত এ ধরনের অনেকগুলো কর্মসূচিরই একটি অংশ।’

বাংলাদেশের তরুণদের জ্ঞান ও দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে দেশের সামগ্রিক কর্মশক্তিতে আরও কার্যকরী ও স্বপ্নদর্শী সদস্য বৃদ্ধিতে ব্রিটিশ কাউন্সিলের অনেকগুলো কর্মসূচির একটি হচ্ছে প্রডিজি।

সিনিউজভয়েস/ডেক্স

Please Share This Post.