পিডিএফ-এর জায়গা নেবে সিডিএফ

আজ অনেক দিন হয়ে গেল পোর্টেবল ডকুমেন্ট ফরম্যাট বা পিডিএফ ইউনিভার্সাল ডকুমেন্ট হিসেবে মহা সমারোহে রাজত্ব করে আসছে।

ইউনিভার্সাল ডকুমেন্ট হচ্ছে এমন একটি ডকুমেন্ট যেটি যে কোনো কম্পিউটারে পড়া যায় এবং যাতে টেক্সট, চার্ট, গ্রাফিক্স, ইমেজ ইত্যাদি যে কোনো ধরনের উপাত্তকে অন্তর্ভুক্ত করা যায়।

তবে পিডিএফ-এর একটি বড় সমস্যা হচেছ, এগুলো অনেকাংশেই স্ট্যাটিক, এরা কি করতে পারে এবং কিভাবে এগুলোকে ব্যবহার করা যায় তার একটি সুনির্দিষ্ট ধরন আছে। খুব বেশি নমনীয়তা গুণ এদের নেই। এ কারণে পিডিএফ-এর বিকল্প বের করার জন্য চেষ্টা চলছে বহু দিন ধরেই। এবার এই উদ্যোগে সাফল্যের দেখা পাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে উলফ্রাম রিসার্চ।

উলফ্রাম আলফা সার্চ ইঞ্জিনের নির্মাতা স্টিভেন উলফ্রামের এই গবেষণা প্রতিষ্ঠান জানিয়েছে কম্পিউটেবল ডকুমেন্ট ফরম্যাট বা সিডিএফ নামে নতুন একটি ইন্টার‌্যাকটিভ ডকুমেন্ট ফরম্যাট উদ্ভাবনের কথা। সিডিএফ কি? সহজ কথায় বলতে গেলে, সিডিএফ হচ্ছে একটি পিডিএফ ডকুমেন্ট যাতে এমবেড বা প্রোথিত করা আছে বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশন। এটি এমন একটি ডকুমেন্ট যেটি নিজের মধ্যে কম্পিউটেশন তথা গণনা করতে পারে, এছাড়া গ্রাফিক্স ও চার্টের সঙ্গে ইন্টার‌্যাকটিভিটির নতুন একট লেয়ার যোগ করার মাধ্যমে ইউজারদেরকে কেবল ডাটা দেখাই নয়, ডাটাকে নিয়ে বিভিন্ন ধরনের কাজ করারও সুযোগ এনে দেয়।
একটি ইনভেস্টমেন্ট ফার্মের ফিন্যান্সিয়াল রিপোর্টের কথাই ধরুন।

সিডিএফ-এ এই রিপোর্ট তৈরি করা হলে পাঠক কেবল নির্দিষ্ট একটি সময়ে কোনো একটি ফান্ডের সঙ্গে সম্পর্কিত ডাটাগুলোই দেখতে পাবেন না, এসব ডাটাকে নিয়ে নানারকম কাজও (manipulation) করতে পারবেন। একজন বিনিয়োগকারী যদি ঐ ফার্মে আরো ৫ শতাংশ বেশি অর্থ বিনিয়োগ করতেন তাহলে আরো কত বেশি মুনাফা তিনি করতে পারতেন? আবার এক তহবিলে আটকে না রেখে কয়েকটি তহবিলে যদি অর্থ বিনিয়োগ করতেন তাহলেই বা মুনাফার পরিমাণ কেমন হত? এ ধরনের নানা প্রশ্নের উত্তর তিনি সঙ্গে সঙ্গে পেয়ে যাবেন।

সিডিএফ ডকুমেন্টের মধ্যে এমবেডেড অ্যাপ্লিকেশনকে ধারণ করতে পারে যার সাহায্যে পাঠকরা ডকুমেন্টের অ্যাপ্লিকেশনের মধ্যে সংখ্যা বা উপাত্ত প্রবেশ করাতে পারবেন, নির্দিষ্ট সময়ে মুনাফার পরিমাণ হিসাব করতে পারবেন অথবা পছন্দমত অন্যান্য ডাটা অন্তর্ভুক্ত করে কাস্টমাইজড ‘লেন্স’-এর মাধ্যমে নির্দিস্ট সময়ের ডাটা দেখতে পারবেন।

একইভাবে সিডিএফ-এ ডিজিটাল টেক্সট বুক তৈরি করা যাবে, যা দিয়ে ডকুমেন্টের মধ্যেই ইন্টার‌্যাকটিভ গ্রাফিক্স ‘লাইভ’ দেখা যাবে। এর ফলে শিক্ষার্থীদের শিখন ক্ষমতা বাড়বে এবং তারা ডকুমেন্টের অন্তর্গত উপাত্ত নিয়ে নানারকম সৃষ্টিশীল কাজ করতে পারবে।

 

– সিনিউজভয়েস/ইন্টা. জিডিটি/জানু.০৪/২০

 

Please Share This Post.