নতুন লাগেজ ও ব্যাগপ্যাক এনেছে ব্যাগপ্যাকার্স

গ্রাহকদের চাহিদা অনুযায়ী নিজস্ব ব্রান্ডের লাগেজ ও ব্যাগপ্যাক বাজারে এনেছে ব্যাগপ্যাকার্স। ‘পানিতে, জমিনে বা আসমানে, বয়ে চলে সবকিছু সব ক্ষনে’ স্লোগানের আলোকে নিজস্ব ডিজাইনের লাগেজ এবং ব্যাগপ্যাক বাজারে ছেড়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী নতুন বছরের জানুয়ারি মাস থেকেই নতুন মডেলের লাগেজ এবং ব্যাগপ্যাকগুলো বিপণন শুরু করে ব্যাগপ্যাকার্স। লাগেজ এবং ব্যাগপ্যাকগুলো পাওয়া যাচ্ছে মোহাম্মদপুরের জাকির হোসেন রোডে প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব শো রুমসহ রাজধানীর সকল অভিজাত শপিং মলে।

ব্যাগপ্যাকার্স নিজস্ব ব্যানারে যে নতুন লাগেজ নিয়ে এসেছে তা পাওয়া যাচ্ছে দুটি মডেলে আর তিনটি সাইজে। লাগেজ এবং ব্যাগপ্যাক গুলোতে উন্নতমানের উপকরণ ব্যবহার করা হয়েছে। লাগেজগুলো সুপার লাইট, ওয়াটার প্রুফ ও ভিতরের নিরাপত্তার জন্য উপরে রয়েছে ঞঝঅ লক। ভেতরে রয়েছে প্রশস্থ জায়গা, অধিক কাপড় নেয়ার নিশ্চয়তা এবং ল্যাপটপ কুশন। লাগেজ গুলোতে রয়েছে ২ বছরের বিক্রয়োত্তর সেবা।

লাগেজ গুলোর  মডেল নম্বর বিপি-২০১০ এবং বিপি-২০১১। ২টি লাগেজ পাওয়া যাবে ৫টি রঙে। বিপি-২০১০ মডেলটি পাওয়া যাবে ৩টি সাইজে। সাইজগুলো হলো ২০,২৪ এবং ২৮ ইঞ্চি। আর বিপি-২০১১ মডেলটি পাওয়া যাবে ১৮,২২ এবং ২৬ ইঞ্চি সাইজে। লাগেজ গুলোর মূল্যও রাখা হয়েছে হাতের নাগালে। বিপি -২০১০ মডেলের তিনটি সাইজের মূল্য যথাক্রমে ৪ হাজার ৩০০ টাকা, ৫ হাজার ৬০০ টাকা ও ৬ হাজার ৬০০ টাকা। বিপি ২০১১ মডেলের মূল্য যথাক্রমে ৪ হাজার ২০০টাকা, ৫ হাজার ৪০০টাকা এবং ৬ হাজার ৪০০ টাকা।

রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি, যমুনা ফিউচার পার্ক, উত্তরা আমির কমপ্লেক্স, গুলশান ডি সি সি মার্কেট, বাইতুল মোকাররম, মিরপুরের শাহ আলী মার্কেট, মুক্তবাংলা শপিং কমপ্লেক্স, মুক্তি প্লাজা, চক বাজার, আজিজ সুপার মার্কেট, শাহবাগ ও নিউ মার্কেট, মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেট সহ মোহাম্মদপুরের জাকির হোসেন রোডের নিজস্ব বিপণন কেন্দ্রে লাগেজ ও ব্যাগপ্যাক গুলো পাওয়া যাচ্ছে।

ব্যাগ প্যাকার্সের কর্ণধার রিয়াজ আহমেদ বাবু বলেন, ‘আমরা যে লাগেজগুলো বাজারে এনেছি তা বাজারের অন্যান্য ব্র্যান্ডের চেয়ে গুণগত মানের দিক থেকে আকর্ষণীয় ও উন্নতমানের। নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব আমরা প্রমাণ করেছি আমাদের লাগেজ-এ। আমাদের সব পণ্যের রয়েছে নিজস্ব স্টাইল। যারা নতুন ব্যাগ ব্যবসায় আসতে আগ্রহী আমরা তাদেরও সহযোগিতা করবো। দেশীয় ব্র্যান্ডিং এর সুনাম সারা দেশে ছড়িয়ে দিতে আমরা ডিলার নিয়োগ দেব। বাংলাদেশের সব জেলাতেই ছড়িয়ে যাবে ব্যাগপ্যাকার্স।’

নতুন এই লাগেজ গুলো শিগগিরই পাওয়া যাবে ব্যাগপ্যাকার্সের নিজস্ব ওয়েবসাইটে  www.bagpackersbd.com। ব্যাগ প্যাকার্সের সাথে যুক্ত হতে পারেন যে কোন তরুণ উদ্যোক্তাও।

সিনিউজভয়েস/ডেক্স

Please Share This Post.