মোট বাজেট পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি, আইসিটি বিভাগ পাচ্ছে ১৯৩০ কোটি টাকা

জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ‘সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ: এখন সময় আমাদের, এখন সময় বাংলাদেশের’ শিরোনামে এবং ৮ দশমিক ২ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরে এবারের বাজেটের আকার ধরা হয়েছে ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা।

দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নে ২০১৯-২০ নতুন অর্থবছরে বাজেট বরাদ্দের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে এক হাজার ৯৩০ কোটি টাকা। গত অর্থবছরে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগকে এককভাবে বরাদ্দ দেওযা হয়েছিল দুই হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। যা পরে সংশোধিত বাজেটের পরিমাণ দাঁড়িয়েছিল এক হাজার ৭৩৭ কোটি টাকা।

আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশনে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের আগামী অর্থবছরে এই বাজেট বরাদ্দ ঘোষণা করছেন। অর্থমন্ত্রী হিসেবে বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে প্রথম বাজেট পেশ করছেন আ হ ম মুস্তফা কামাল। এটি স্বাধীনতার পর থেকে ৪৮তম বাজেট। আর আওয়ামী লীগ নেতৃত্বে সরকারের টানা একাদশ বাজেট এটি। এবারের বাজেটের আকার পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার।

এনবিআরের মাধ্যমে আয় হবে তিন লাখ ২৫ হাজার ৬শ কোটি টাকা। আর এনবিআর বহির্ভূত খাত থেকে কর সাড়ে ১৪ হাজার কোটি, কর ব্যতীত প্রাপ্তি ৩৭ হাজার কোটি টাকা এবং বিদেশি অনুদান ৪ হাজার ১৬৮ কোটি টাকা ধরা হয়েছে।

এদিকে, ঘাটতি মেটাতে অভ্যন্তরীণ খাত থেকে নেয়া হবে ৭৭ হাজার ৩৬৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে, ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ৪৭ হাজার ৩৬৪ কোটি টাকা এবং জাতীয় সঞ্চয়পত্র থেকে ২৭ হাজার কোটি টাকা নেয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে। এছাড়া ভর্তুকি, প্রণোদনা ও নগদ ঋণ বাবদ ধরা হতে পারে ৫০ হাজার ৬শ কোটি টাকা।

নতুন বাজেটে মূল্যস্ফীতির চাপ ৫ দশমিক ৫ শতাংশে রাখার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। আগামী অর্থবছরের জন্য দুই লাখ দুই হাজার ৭২১ কোটি টাকার বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি বা এডিপি চূড়ান্ত করা হয়েছে।

এর আগে, সংসদ ভবনে প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বিশেষে বৈঠকে অনুমোদন দেয়া হয় প্রস্তাবিত বাজেটের।

-সিনিউজভয়েস/জিডিটি/জুন১৩/১৯

Please Share This Post.