দেশে প্রথমবারের মতো আইওটি সম্মেলন

বিজ্ঞানের ধারাবাহিক অগ্রযাত্রায় এগিয়ে চলেছে বিশ্ব, পিছিয়ে নেই বাংলাদেশ। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্নকে পুঁজি করে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হলো ‘ইন্টারনেট অব থিংস (আইওটি) কনফারেন্স’। ৬ মে শনিবার, রাজধানীর ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামের আয়োজনে এই কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৯ টা থেকে শুরু হয়ে দিনব্যাপী চলে এই আয়োজন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব, চ্যানেল আই এর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক এবং বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজ। এছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. ইউসুফ মাহবুবুল ইসলাম, ডাটা সফট এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর মাহাবুব জামান, লিডস কর্পোরেশনের ম্যানেজিং ডিরেক্টর শেখ আব্দুল ওয়াহিদ, প্রফেসর (আইআইসিটি, বুয়েট) ড. লিয়াকত আলি, বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা আরিফুল হাসান অপু সহ প্রমুখ।

চ্যানেল আই এর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক এবং বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজ বলেন, কৃষি সেক্টরে আইওটির গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা এনে দিতে পারে নতুন সম্ভাবনার দ্বার। আইওটিকে কাজে লাগিয়ে কৃষি ক্ষেত্রে নতুন বিপ্লব আনা সম্ভব।

iot2

আইওটি কনফারেন্সের আয়োজক বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা আরিফুল হাসান অপু বলেন, ইন্টারনেট সংযুক্ত প্রযুক্তিপণ্যের তালিকা দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে। সেই সঙ্গে বাড়ছে এসব পণ্যের ব্যবহার। বিভিন্ন ধরনের ডিভাইস ইন্টারনেটে সংযুক্ত করার প্রযুক্তি হলো ‘ইন্টারনেট অব থিংস’ বা আইওটি। বাজারটি এতোটাই ক্রমবর্ধমান যে, চলতি বছর বিশ্বব্যাপী ৮৪০ কোটি ইউনিট ইন্টারনেট সংযুক্ত ডিভাইস ব্যবহার হবে। ২০২০ সাল নাগাদ আইওটি ডিভাইস ব্যবহার ২ হাজার ৪০ কোটি ইউনিট ছাড়িয়ে যাবে। চলতি বছর আইওটি খাতের ব্যয় ২ লাখ কোটি ডলারে পৌঁছবে।

আরিফুল হাসান বলেন, বাংলাদেশের মানুষের মাঝে আইওটি নিয়ে আরো বিস্তর ধারণা বিকাশের লক্ষে আমাদের এই আয়োজন। বিশ্বের পরবর্তী বিপ্লব আসছে ইন্টারনেট অব থিংস (আইওটি) ঘিরে। আইওটিকে সঙ্গে নিয়ে বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান উন্নয়নের ধারাকে ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যকে সামনে নিয়ে বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামের এই উদ্যোগে সকলেই আমন্ত্রিত।

আইওটি কনফারেন্সে রোবটিক্স, অগমেন্টেড রিয়েলিটি এবং আইওটি নিয়ে ৩টি ওয়ার্কশপ ছাড়াও আইওটি ক্যারিয়ার সহ ৩টি পৃথক টেকনিক্যাল সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। আইওটি, রোবটিক্স, অগমেন্টেড রিয়েলিটি ভিত্তিক প্রজেক্ট শোকেসিং সহ ছিল আরো অনেক আয়োজন। এছাড়াও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিবৃন্দ, দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের প্রতিনিধিবৃন্দসহ দিনব্যাপী এই আয়োজনে অন্তত ৪ হাজার দর্শনার্থী উপস্থিত ছিল।

এই আয়োজনে সহযোগিতায় ছিল ডাটা সফট, লিডস কর্পোরেশন লিমিটেড, ইএমকে সেন্টার, পিবাজার, রাইজ আপ ল্যাবস, স্পেস অ্যাপস বাংলাদেশ, ই-সফট, বাংলাদেশ আইপি ফোরাম, ক্যাম্পাস টিভি এবং ভ্যেনু সহযোগিতায় ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.