দেশে পেপাল আসছে ১৯ অক্টোবর

অর্থ স্থানান্তরের অনলাইন প্ল্যাটফর্ম পেপাল বাংলাদেশে চালু হচ্ছে ১৯ অক্টোবর। বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সাররাসহ অনেকেই বেশ দীর্ঘদিন ধরেই অপেক্ষা করছে এই পেপালের জন্য। অবশেষে  এল সুখবর। এবার বাংলাদেশ আইসিটি এক্সপো ২০১৭–এর দ্বিতীয় দিন পেপাল সেবা উদ্বোধন করবেন বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

আজ (সোমবার) বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) মিলনায়তনে ডিজিটাল মার্কেটিং প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করার সময় এসব তথ্য জানায় পলক।

পলক বলেন, বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সদের জন্য এটি একটি সুখবর। পেপাল আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হলে ফিল্যান্সিংসহ যারা  আউটসোর্সিং করেন তারা খুব সহজেই বিদেশ থেকে দেশে টাকা নিয়ে আসতে পারবেন। যা সত্যিই স্বপ্নের মতো। কারণ দেশে এই পেপাল চালু না থাকায় অনেক কষ্ট করে বিভিন্ন মাধ্যমে টাকা সংগ্রহ করেন ফ্রিল্যান্সরা। আর মাঝখান থেকে মধ্যস্বত্বভোগীরা মুনাফা লুটত। পেপাল চালু হলে সে সুযোগ আর থাকছে না।

প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি-বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন জানিয়ে পলক বলেন, মার্কিন কোম্পানি পেপাল হোল্ডিংস বিশ্বব্যাপী অনলাইন পেমেন্ট সিস্টেম হিসেবে কাজ করে। এটি অনলাইন অর্থ স্থানান্তর ও প্রচলিত কাগুজে পদ্ধতির পরিবর্তে ইলেকট্রনিক পদ্ধতি হিসেবে কাজ করে। বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম ইন্টারনেট পেমেন্ট কোম্পানি হিসেবে বিশ্বের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ফ্রিল্যান্সারদের কাছে জনপ্রিয় মাধ্যম।

প্রাথমিক  ভাবে জানা যায়, সোনালী, রূপালী ব্যাংকসহ নয়টি ব্যাংকে পেপাল সেবা পাওয়া যাবে। বেশ কিছুদিন ধরেই পেপাল কর্তৃপক্ষ বাজার যাচাইসহ নানা পরীক্ষা চালিয়েছে। সম্ভাবনাময় বাংলাদেশের কথা ভেবে বাংলাদেশে পুরোপুরি পেপাল সেবা চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এর ফলে বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সাররা উপকৃত হবেন। এ ছাড়া রেমিট্যান্স আসার হার বাড়বে। ডিজিটাল ট্রানজেকশন বাড়বে।

সিনিউজভয়েস/ডেস্ক

Please Share This Post.