দেশের বাজারে এইচপির নতুন লার্জ ফরম্যাট প্রিন্টার

এইচপি ইঙ্ক. দেশের বাজারে উন্মু্ক্ত করেছে এইচপি ডিজাইনজেট টি৮৩০ মডেলের নতুন লার্জ ফরম্যাট মাল্টিফাংশনাল প্রিন্টার।রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে নতুন লার্জ ফরম্যাট মাল্টিফাংশনাল প্রিন্টারটি বাংলাদেশের বাজারে আনুষ্ঠানিক অবমুক্তের ঘোষণা দেন এইচপির কর্মকর্তারা। এই প্রিন্টারটির মাধ্যমে অফিস এবং অবকাঠামো নির্মাণ স্থানে সহজে এবং দ্রুত প্রিন্ট, স্ক্যান ও কপির কাজ করা যাবে। আর্কিটেক্ট, ইঞ্জিনিয়ার এবং ডিজাইনারদের জন্য এই প্রিন্টারটি আদর্শ হতে পারে।

DSC_1236

অনুষ্ঠানে এইচপির কান্ট্রি ম্যানেজার (লার্জ ফরম্যাট ডিজাইন) সাশিকা ভিসান সিলভা বলেন, ‘এখন আর্কিটেক্ট, ইঞ্জিনিয়ার এবং ডিজাইন এক্সপার্টরা পছন্দ করেন প্রিন্টেড পেজের ওপর সহজে এডিট এবং রিভিউ করতে। এইচপি ডিজাইনজেট ৮৩০-এনপিআই মাল্টিফাংশনাল প্রিন্টারটির নেক্সট লেভেল ফিচার এবং মোবাইল প্রিন্টিং সুবিধার ফলে প্রফেশনালদের যখন যেভাবে প্রয়োজন সেভাবেই ব্যবহার করতে পারবেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘প্রফেশনালদের হাতের মুঠোয় নতুন রূপে বড় পরিসরের প্রিন্টিং। কারণ লার্জ ফরম্যাটের নতুন এই মাল্টিফাংশনাল প্রিন্টারটি ট্যাবলেট ডিভাইসের সঙ্গে সংযোগ দিয়ে কাজ করার সুবিধা দেবে। রয়েছে ড্যামেজ প্রতিরোধক ডিজাইন, বিল্ট-ইন স্ক্যানার সহ অত্যাধুনিক সব ফিচার। অবকাঠামো অভিজ্ঞ, সাধারণ ঠিকাদার এবং কম্পিউটার-ডিজাইন টিমের জন্য সুলভ এবং বহনযোগ্য এই প্রিন্টার।

এইচপি বাংলাদেশের সেলস ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার শামীম হাসান বলেন, ‘ঠিকাদারদের জন্য আর্কিটেকচার ড্রয়িং এবং তার দ্রুত প্রিন্ট, নির্মাণ স্থানে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এক্ষেত্রে বাইরে থেকে বড় পরিসরের প্রিন্টিং নিয়ে আসা, সময় ও ব্যয়সাপেক্ষ। যে কোনো স্থান থেকে যে কোনো পরিবর্তন, হাই কোয়ালিটি প্রিন্টিং এই প্রিন্টার দ্বারা করা সম্ভব।’

DSC_1027

প্রিন্টারটির রাগেড কেস নির্মাণ স্থানের ড্যামেজ ও ধুলা থেকে প্রিন্টারকে সুরক্ষিত রাখে। সেই সঙ্গে হুইল এবং স্ট্যান্ড থাকার কারণে অনেক বেশি ব্যবহারবান্ধব। এর ৩৬ ইঞ্চি বড় ইন্ট্রিগ্রেডেট স্ক্যানার দিয়ে প্ল্যান স্ক্যান ও শেয়ার করা যায় এবং টাচস্ক্রিনের মাধ্যমে প্রিন্ট প্রিভিউ ও ডকুমেন্ট ক্রপ করা যায়।

অনুষ্ঠানে শামীম হাসান ক্রেতাদের উদ্দেশ্যে এই প্রিন্টারের ওপর প্রমোশন অফার ঘোষণা করেন।অফারটি চলবে ৩১ জুলাই ২০১৬ পর্যন্ত। প্রমোশনাল অফারটি মিলবে ফ্লোরা লিমিটেড, স্মার্ট টেকনোলজি (বিডি) লিমিটেড এবং কম্পিউটার সোর্স লিমিটেডে।

-গোলাম দাস্তগীর তৌহিদ

Please Share This Post.