ঢাবি’র সাংবাদিকতা বিভাগে ল্যাপটপ প্রদান ও নতুন বিভাগের উদ্বোধন

বাংলাদেশের অনলাইন, প্রিন্ট এবং ইলেকট্রনিক্ মিডিয়ায় আধুনিক প্রযুক্তির যে উল্লেখযোগ্য ব্যবহার তা দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশে এখনো সে মাত্রায় পরিলক্ষিত হয়না। গণমাধ্যমের এই বিপ্লবে নেতৃত্ব দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগ’, আজ সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য-এর কার্যালয়ে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীদের মাঝে ল্যাপটপ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এ কথা বলেন।

ল্যপটপ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে প্রতিমন্ত্রী বলেন, তোমরা যারা এই ল্যাপটপ পেলে তারা যেন জননেত্রী শেখ হাসিনার এই ডিজিটাল বাংলাদেশ ভিশনটাকে ভুলবে না, আর ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে জননেত্রী শেখ হাসিনার মাননীয় আইসিটি উপদেষ্টার এই উদ্যোগ ও নেতৃত্বকে কখনো অস্বীকার করবে না এবং তোমাদের যে এই ডিজিটাল হাতিয়ার দেয়া হলো, সে হাতিয়ারকে কখনোই দেশ ও মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে ব্যবহার করবে না। দেশের প্রয়োজনে এবং মানুষের কল্যাণে এ সকল হাতিয়ার ব্যবহার করবে।

প্রতিমন্ত্রী এ সময় সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগের উন্নয়নে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনায় ল্যাপটপ প্রদান অব্যাহত রাখা এবং বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপনসহ বিভিন্ন বিষয়ে সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি প্রদান করেন। ল্যাপটপ প্রদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। অনুষ্ঠানে বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ এবং সাবেক শিক্ষার্থীগণও উপস্থিত ছিলেন।
এর পরে প্রতিমন্ত্রী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগে এনিমেশন ল্যাব এর উদ্বোধন করেন। এনিমেশন ল্যাবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেশের তরুণ-তরুণীরা অত্যন্ত মেধাবী। তাদের এই মেধার মূল্যায়নে শুধু দরকার একটি উপযোগী প্লাটফর্ম। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এবং তার আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টার প্রত্যক্ষ নির্দেশনায় সেই প্লাটফর্মগুলো আমরা তৈরী করছি। এনিমেশন শিল্পে যাতে বাংলাদেশ নেতৃত্ব দিতে পারে, সে জন্যই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এই এনিমেশন ল্যাব স্থাপন করা হলো।’
আশাবাদ ব্যক্ত করে এনিমেশন ল্যাবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, ‘আমাদের চলচ্চিত্র বা বিজ্ঞাপনের এনিমেশনের জন্য এখনো আমাদেরকে ব্যাংকক যেতে হয়। আজকের এই ল্যাব উদ্বোধনের ফলে আমরা সেই সংকট দূর করছি এবং আমি বিশ্বাস করি, সেদিন হয়তো খুব বেশী দূরে নয়, যেদিন এশিয়ার অন্যান্য দেশই এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এনিমেশন ল্যাবে তাদের প্রয়োজনীয় এনিমেশনের জন্য আসবে এবং আগামী দিনে এনিমেশন শিল্পে দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলে বাংলাদেশ নেতৃত্ব দেবে।’

কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের চেয়ারম্যান ড. সাব্বিরের সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। প্রসঙ্গত, ছাত্র-ছাত্রীদের যুগোপযোগী প্রযুক্তি শিক্ষায় শিক্ষিত ও দক্ষ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে সরকারের আইসিটি ডিভিশনের আওতাধীন বাংলাদেশ হাইটেক পার্ট কর্তৃপক্ষের আওতায় দেশের সরকারী ও বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপন করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে Software Testing  & ‍Quality Assurance Lab, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে Big Data Analytics Lab এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে Robotics Lab স্থাপন করা হয়েছে। অন্যদিকে, চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে Robotics Lab, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে Advance Computing Lab, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টেলিভিশন এন্ড ফিল্ম স্টাডিজ বিভাগে Audio Visual Lab, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে Pattern Recognition and Multimedia Lab, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে Artificial Intelligence and Control ও ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টসে State of Art IOT ইত্যাদি বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপন চূড়ান্ত প্রক্রিয়াধীন।

বিগত ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৬ তারিখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এই এনিমেশন ল্যাব স্থাপনের কার্যক্রম শুরু হয়। এ ল্যাব স্থাপনে ১ কোটি ৩৩ লক্ষ টাকা ব্যয় করা হয়েছে। এই ল্যাবের মাধ্যমে দেশে Creative Content-এ দক্ষ জনশক্তি সৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে।

সিনিউজভয়েস ডেক্স 

Please Share This Post.