ঢাকা এবং চট্টগ্রামে ফোরজি সেবা চালু করল গ্রামীণফোন

১৯ ফেব্রুয়ারি সোমবার, ঢাকা ও চট্টগ্রামের কিছু এলাকায় ফোরজি সেবা গ্রামীণফোন চালু করেছে গ্রামীণফোন।  এর মাধ্যমে দেশব্যাপী ফোরজি চালু করার প্রক্রিয়া শুরু হলো।

গ্রামীণফোনের সিইও মাইকেল ফোলি লাইসেন্স প্রদান অনুষ্ঠানস্থল থেকেই ফেসবুক লাইভের মাধ্যমে ফোরজি চালুর ঘোষণা দেন। অন্যদিকে প্রতিষ্ঠানটির ডেপুটি সিইও ইয়াসি আজমান জিপিহাউজে কর্মীদের নিয়ে ফোরজি উদ্বোধন উদযাপন করেন।

বর্তমানে ঢাকার বসুন্ধরা, বারিধারা, এবং গুলশান এলাকাসহ চট্টগ্রামের দামপাড়া, খুলশী এবং নাসিরাবাদে ফোরজি সেবা চালু হয়েছে। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে ঢাকা ও চট্টগ্রামের আরো এলাকা ফোরজি কাভারেজের আওতায় আসবে। বেশিরভাগ বিভাগীয় শহরে অচিরেই ফোরজি চালু হবে। প্রতিষ্ঠানটি থ্রিজির ক্ষেত্রে যেমন করেছিল এবারো একই রকম দ্রুতগতিতে ফোরজি বিস্তার করা হবে। আগামী ছয় মাসের মধ্যেই সব জেলা শহরে ফোরজি পৌঁছে যাবে।

ফোরজি সেবা চালু করার সময় গ্রামীণফোনের সিইও মাইকেল ফোলি বলেন, ‘আজ বাংলাদেশের সবার জন্য একটি গর্বের দিন এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের পথে একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক। আমরা গ্রাহকদের সেরা ফোরজি সেবা দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং আমাদের ফোরজি রোলআউট পরিকল্পনা তা নিশ্চিত করবে।’

এছাড়াও মাইকেল বাংলাদেশে ফোরজি বাস্তবে রূপ দেয়ার জন্য কঠোর পরিশ্রম করায় বাংলাদেশ সরকার, টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় এবং বিটিআরসিকে ধন্যবাদ জানান।

এর আগে গ্রামীণফোনকে ফোরজি পরিচালনার লাইসেন্স দেয়া হয়্ । সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটি ১৮০০ ব্যান্ড ৫ মেগাহার্জ বেতার তরঙ্গ কেনার ফলে ৪জি/এলটিই বিস্তারের জন্য সবচেয়ে কাঙ্ক্ষিত ব্যান্ডে সর্বাধিক স্পেকট্রাম হাতে পেয়েছে। এই নতুন স্পেকট্রাম এবং বিদ্যমান স্পেকট্রামে প্রযুক্তি নিরপেক্ষতা গ্রামীণফোনকে সেরা ফোরজি সেবা দেয়ার ক্ষেত্রে একটি শক্ত অবস্থানে পৌছে দিয়েছে। প্রযুক্তি নিরপেক্ষতার ফলে গ্রামীণফোন তার ৯০০, ১৮০০ এবং ২১০০ মেগাহার্জ ব্যান্ডের স্পেকট্রামে আরো দক্ষতার সঙ্গে ভয়েস ও ডাটা সেবা দিতে পারবে।

ফোরজি বিস্তারের সঙ্গে সঙ্গে নেটওয়ার্কের আধুনিকায়নের ফলে গ্রাহকরা এইচডি ভিডিও, লাইভ টিভি স্ট্রিমিং, ঝকঝকে ভিডও কল আর দ্রুতগতির ডাউনলোড উপভোগ করতে পারবেন।

গ্রামীণফোনের ডেপুটি সিইও ইয়াসির আজমান বলেন, ‘বাংলাদেশে ফোরজি সেবা চালু করতে পেরে আনন্দিত। আমরা বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে গ্রাহকদের কাছে সুলভে এই সেবা পৌঁছে দিতে কাজ করছি এবং ১৮ ফেব্রুয়ারি তারিখে দুটি কো-ব্র্যান্ডেড ৪জি হ্যান্ডসেট চালু করার মাধ্যমে তার বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে। গ্রাহকদের সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোর সঙ্গে সংযুক্ত রাখতে এবং দেশের সেরা ফোরজি সেবা দিতে আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।’

গ্রামীণফোন বাংলাদেশে তার গ্রাহকদের ডিজিটাল জীবনধারাকে এগিয়ে নিতে একটি ইকোসিস্টেম গড়ে তুলছে। ফোরজি চালু হওয়ায় দেশের মানুষ এবং ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের জন্য গ্রামীণফোন এবং ডিজিটাল উদ্যোক্তাদের আরো অনেক প্রয়োজনীয় সেবা নিয় আসতে সাহায্য করবে।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.