ঢাকায় উবারের একশ’ আশি দিন

বিশ্বের সবচেয়ে বড় অন-ডিমান্ড রাইড-শেয়ারিং কোম্পানি উবার আজ ঢাকায় সেবা চালু করার একশ’ আশি দিন উদযাপন করছে। যাত্রী ও চালক উভয়ের জন্যই ঢাকার প্রতিটি উবার যাত্রায় দারুণ অভিজ্ঞতা দেয়াই হবে ২০১৭ সালে কোম্পানির মূল উদ্দেশ্য। এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলে উবারের দ্রুত বর্ধনশীল শহরগুলোর মধ্যে ঢাকা স্পষ্টতই অন্যতম।

ঢাকায় উবার -এর মহাব্যবস্থাপক অর্পিত মুন্দ্রা বলেন, “বিশ্বের সবচেয়ে যানজটপূর্ণ শহরগুলোর মধ্যে ঢাকা অন্যতম। কর্মস্থলে যাতায়াতের জন্য বিশ্বস্ত, কার্যকর এবং সহজলভ্য আরো বিকল্প পরিবহন ব্যবস্থার চাহিদা রয়েছে। বিশেষ করে যেসব রুটে গণপরিবহন ব্যবস্থা চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল। এসব জায়গায় রাইড-শেয়ারিং জরুরি। উবার -এর মতো স্মার্টফোন অ্যাপগুলো বর্তমানের অবকাঠামো, বিশেষ করে ব্যক্তিগত গাড়ির গঠনমূলক ব্যবহারে সহায়তা করতে পারে, দক্ষতার সঙ্গে বাড়তি কোনো খরচ ছাড়াই। আরো বেশি মানুষ যেন তাদের গাড়ি যাতায়াতের জন্য ভাগাভাগি করতে পারেন, সহজলভ্য ও সুবিধাজনকভাবে এবং এক্ষেত্রে সেটি হবে গাড়ির মালিক হওয়া ছাড়াই। আমাদেরকে জীবনের অংশ করে নেয়ার জন্য ঢাকাবাসী- আমাদের যাত্রী এবং চালকদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ।”

একনজরে ঢাকায় উবার -এর একশ’ আশি দিন
গড় এস্টিমেটেড টাইম অব অ্যারাইভাল(ইটিএ) ৮ মিনিট, যা সর্বমোট ট্রিপের ৭৫ শতাংশের ভিত্তিতে, উবার -এর সবচেয়ে বেশি চাহিদা সকাল ৮টা থেকে ১০টা এবং সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১০টা , উবার সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়েছে এয়ারপোর্ট রোড, ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি এবং গুলশান ২ এলাকায় যাতায়াতের জন্য, ঢাকায় একজন ড্রাইভার একাই ট্রিপ নিয়েছেন ১৬৭১টি , ঢাকায় একজন যাত্রী উবারে ট্রিপ নিয়েছেন ৩৯১টি, আমাদের চালকদের মধ্যে দেখা গেছে নানা ভিন্নতা- তাদের মধ্যে যেমন আছেন একাধিক গাড়ির মালিক; তেমনি আছেন একটি গাড়ির মালিক, যারা গাড়ি চালাচ্ছেন পুরো সময়। বাড়তি আয়ের জন্য টেলিকম এবং ব্যাংকের চাকরিজীবীরাও তাদের গাড়ি এনেছেন উবার -এর আওতায়। বাড়তি হাত-খরচের জন্য ছাত্ররাও গাড়ি চালাচ্ছেন সপ্তাহের ছুটির দিনগুলোতে।

কর্মস্থলে যাতায়াতের দৈনন্দিন মাধ্যম হিসেবে উবার ব্যবহার ছাড়াও ভোরবেলা এয়ারপোর্ট যেতে কিংবা গভীর রাতে বন্ধু বা পরিবারের সঙ্গে ডিনার শেষে বাসায় ফিরতে ঢাকাবাসী আস্থা রাখছেন উবার -এর ওপর। সর্বোপরি, যাতায়াতে স্বাধীনতা এবং সব সময় নিরাপত্তা ও নির্ভরযোগ্যতার আশ্বাস দিয়েছে উবার, তাই এটিকে স্বাগত জানিয়েছেন ঢাকার নারী যাত্রীরা।
উবার ব্যবহারে গতি আনতে, প্রতিটি যাত্রা ‘শেয়ার-রাইড’ করতে, শহরে যাত্রীদের জন্য উবার -কে আরো নির্ভরযোগ্য ও সুবিধাজনক করে তুলতে এবং চালকদের জন্য সহজ করতে প্রযুক্তিগত উদ্ভাবনে বেশি জোর দিচ্ছে কোম্পানিটি। এ সংযোজনগুলোর জন্য যাত্রী ও চালকদের মতামত নেয়া হবে এবং সব মিলিয়ে উবার দেবে আরো দারুণ অভিজ্ঞতা।

উবার -এর আকর্ষণীয় কিছু বৈশিষ্ট্য যা এর ব্যবহারকে মজাদার করেছে:
যাত্রী এবং চালকদের নিরাপত্তা: নতুন ও উদ্ভাবনী উপায়ে যাত্রী ও চালকদের নিরাপত্তা বাড়াতে উবার -এর মতো প্রযুক্তিগুলো বিস্ময়কর সুযোগ করে দিচ্ছে বলে আমরা বিশ্বাস করি এবং এটা প্রতিটি যাত্রার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত। দেখে নিন কিভাবে আমরা ঢাকার যাতায়াত আরো নিরাপদ করে তুলছি, যা আগে কখনো হয়নি।
ট্রিপে কোনো কিছুই থাকছেনা অজানা

উবারে যখন কেউ গাড়ি ডাকেন, তখন চালক অনুরোধে সাড়া দেয়া মাত্রই তার নাম, ছবি, গাড়ির লাইন্সেস প্লেট নাম্বার এবং রেটিং যাত্রীর কাছে পৌঁছে যায়। এছাড়া, চালক যাত্রীর নাম ও রেটিং দেখতে পারেন। গাড়ি ডাকার পর ঠিকানা বুঝতে সমস্যা হলে চালক ও যাত্রী একে অপরের সঙ্গে অ্যাপের মাধ্যমেই যোগাযোগ করতে পারছেন।

চালক নিয়োগ করা হয় যাচাই-বাছাই শেষে যেকোনো ধরনের হয়রানিমূলক আচরণে একেবারেই ছাড় দেয় না উবার। সর্বোপরি, বৈধ কাগজপত্রসহ চালক নিয়োগ এবং তাদের একটি বাধ্যতামূলক দক্ষতা প্রশিক্ষণ দেয়ার ক্ষেত্রে আমরা সমানভাবে সচেতন। এতে যাত্রীদের দারুণ একটি অভিজ্ঞতা দিতে চালকদের সুবিধা হয়।
হারাবেন না কখনোই
অ্যাপে গন্তব্য জানিয়ে দেবার পর যাত্রীরা সেখানে সরাসরি তাদের রুট ম্যাপ দেখতে পারেন। এতে সব সময় তারা নিজেদের অবস্থান সম্পর্কে জানতে পারেন এবং এটাও দেখতে পারেন যে তারা সঠিক পথে যাচ্ছেন কিনা।
জানিয়ে দেয় যাত্রার বিবরণ
কোন পথে যাচ্ছেন, যাত্রায় আনুমানিক কতোটা সময় লাগবে- বন্ধু বা পরিবারকে আশ্বস্ত করতে এসব তথ্য তাদের সহজেই জানাতে পারছেন যাত্রীরা। যখন কাউকে এসব তথ্য জানাতে চাইবেন, তখন তিনি একটি লিংক পাবেন যেখানে চালকের নাম ও ছবি, গাড়ি এবং ট্রিপ রুট একটি ম্যাপে সরাসরি দেখা যাবে যাত্রা শেষ না হওয়া পর্যন্ত। আর তিনি এই পুরো ব্যাপারটাই করতে পারছেন মোবাইল ফোনে উবার অ্যাপ ডাউনলোড না করে।
দ্রুত সেবা, গাড়ির নিশ্চয়তা এবং আগমনের প্রত্যাশিত সময়: উবারে সাম্রগিক অভিজ্ঞতার কথা বিবেচনা করলে দ্রুত যাত্রীর কাছে পৌঁছানোর বিষয়টি বরাবরই আলোচনায় থাকছে, সেজন্য চালকরা গাড়ি নিয়ে যাত্রীর কাছে যেন আরো দ্রুত যেতে পারেন আমরা সেটি নিয়ে বিশেষভাবে কাজ করছি। আমরা আরো বেশি নির্ভরতার জায়গায় পৌঁছাতে সক্ষম, কারণ আমরা প্রতিনিয়ত চালকদের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছি যেন তারা আরো দ্রুত সময়ে যাত্রীর কাছে পৌঁছাতে পারেন।
যেভাবে গাড়ি আসে দ্রুত (ফরোয়ার্ড ডিসপ্যাচ)
একটি ট্রিপ শেষ হবার কিছু সময় আগেই একজন চালক তার পরবর্তী ট্রিপের জন্য যাত্রীর কাছ থেকে অনুরোধ পেতে পারেন। অনেক সময় এমন হয় যে, যাত্রীর অবস্থানের কাছে থাকা গাড়ির চেয়ে আরেকটি গাড়ি ট্রিপ শেষে তারও আগে আপনার কাছে পৌঁছে যাচ্ছে। এর ফলে
এস্টিমেটেড টাইম অব অ্যারাইভাল(ইটিএ) কমে যাচ্ছে, লাভবান হচ্ছেন যাত্রী ও চালক উভয়েই।
চালকদের জন্য আরো নিয়ন্ত্রণ এবং স্বচ্ছতা: যাত্রীকে গাড়িতে তোলা এবং গন্তব্যে নামিয়ে দেয়া- উবারে গাড়ি চালানোর সময় নিঃসন্দেহে এ দুটোই সবচেয়ে কঠিন কাজ। আমরা ড্রাইভারদের তাদের অভিজ্ঞতার ওপর আরো নিয়ন্ত্রণ দিতে চাই এবং উবার থেকে আয়ে দিতে চাই পুরোপুরি স্বচ্ছতা।
চাইলেই বিরতি
চালকদের সবসময়ের চাওয়া ছিলো গাড়ির জন্য যাত্রীর অনুরোধ পাওয়া সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার একটি ব্যবস্থা এবং উবার পার্টনার অ্যাপে এটি করা এখন সম্ভব। কোনো চালক যদি গাড়ি চালানো থেকে সাময়িক বিরতি নিতে চান, তাহলে ট্রিপে থাকাকালীন তাকে ‘স্টপ নিউ রিকোয়েস্ট’ বাটন চাপতে হবে। এর ফলে সাময়িকভাবে তার কাছে যাত্রীর অনুরোধ আসা বন্ধ হবে।
উবার শহরে যাতায়াতের জন্য লাখো মানুষের প্রচলিত ভাবনায় বৈপ্লবিক পরিবর্তনের লক্ষ্যে ঢাকায় প্রথম কার্যক্রম শুরু করে ২২ নভেম্বর ২০১৬।
উবার
উবার -এর লক্ষ্য সব জায়গায়, সবার জন্য একটি নির্ভরযোগ্য পরিবহন ব্যবস্থা তৈরি করা। আপনি কীভাবে বাটনের এক চাপে যাতায়াতের জন্য একটি গাড়ি পেতে পারেন? এ সমস্যার সমাধান খুঁজতে আমাদের শুরুটা হয় ২০১০ সালে। ৬ বছর পর এবং ২ বিলিয়ন ট্রিপ শেষে এখন আমরা বৃহত্তর একটি চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ শুরু করেছি, সেটি হচ্ছে অল্প গাড়িতে বেশি মানুষ যাতায়াতের ব্যবস্থা করে শহরে যানজট এবং দূষণ কমানো।

-সিনিউজভয়েস

Please Share This Post.